ঢাকা, শনিবার 8 September 2018, ২৪ ভাদ্র ১৪২৫, ২৭ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

গার্মেন্ট শ্রমিকদের নূন্যতম মজুরি ১৬ হাজার টাকা করার দাবি

স্টাফ রিপোর্টার: গার্মেন্ট শ্রমিকদের নূন্যতম মজুরি ১৬ হাজার করার দাবি জানিয়েছে গার্মেন্ট শ্রমিক আন্দোলন। গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এক সমাবেশে তারা এ দাবি জানান। সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন, গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতি আন্দোলনের সভাপতি তাছলিমা আক্তার, মাহবুর রহমান ঈসমাইল ও গার্মেন্ট শ্রমিকরা।
তাছলিমা আক্তার বলেন, সরকারি লোকসানি প্রতিষ্ঠানগুলোতে শ্রমিকদের মজুরি বাড়িয়ে যদি ১৫ হাজার টাকা হয়, তাহলে রপ্তানিমুখী পোশাক খাতের মজুরি কেন মাত্র ১২ হাজার টাকা প্রস্তাব করা হল? অথচ এই খাতে ১৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি রয়েছে বলে মালিকরা বিভিন্ন সময় তথ্য দিচ্ছেন। ২০১৩ সালের ১ ডিসেম্বর তিন হাজার টাকা মূল বেতন ধরে পোশাক শ্রমিকদের জন্য ৫ হাজার ৩০০ টাকা ন্যূনতম মজুরি নির্ধারণ করে সরকার। এরপর এবার মজুরি বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হল।
তিনি বলেন, “কারখানা মালিকরা মজুরি বোর্ডে বেতন বাড়িয়ে ৬৩৬০ টাকা করার যে প্রস্তাব দিয়েছে, তাতেও প্রতারণা রয়েছে। কারণ ২০১৩ সালে নতুন মজুরি ঘোষণার সময় প্রতিবছর ৫ শতাংশ হারে বেতন বাড়ানোর কথা বলা হয়েছিল। সেই প্রবৃদ্ধি চালু রাখা হলেও একজন শ্রমিকের বেতন ৬ হাজার টাকা হয়।”
গার্মেন্ট শ্রমিক নেতা মাহবুর রহমান ঈসমাইল বলেন, সরকার দলীয় শ্রমিক প্রতিনিধি আমাদের কাছে ১৬ হাজার টাকা ন্যূনতম মজুরি ঘোষণা করা হবে বলে কথা দিলেও তিনি তা পারলেন না। তিনি শ্রমিক লীগ নেত্রী ও মালিক পক্ষের মতোই কাজ করলেন। আমরা এই প্রস্তাব বাতিল করুন। অন্যথায় রাজপথে আন্দোলন করতে বাধ্য হব।”
সমাবেশে বক্তারা বলেন, রপ্তানি খাতে ৮৩ শতাংশ বেশি মুদ্রা অর্জনকারী গার্মেন্ট শিল্পের ৪০ লাখ শ্রমিকের অবস্থা আজ অবর্ণনীয়। “মালিক পক্ষ থেকে যে প্রস্তাব করা হয়েছে তা থেকে স্পষ্ট বোঝা যায় যে, মালিক সরকার মিলে মজুরি বৃদ্ধির নামে প্রহসন মঞ্চস্থ করতে যাচ্ছে। ১৬ হাজার টাকার পক্ষে যুক্তি দেখিয়ে তিনি বলেন, আইএলও কনভেনশন অনুসারে বর্তমান বাজার দর, মুদ্রাস্ফীতি, আর্থসামাজিক অবস্থা এবং শ্রমিকের জীবনমান বিবেচনায় এর চেয়ে কম মজুরি গ্রহণযোগ্য নয়।
বক্তারা আরও জানান, ২০১৩ সালে সরকার গার্মেন্ট শ্রমিকদের মজুরি করেছিলো ৫৩০০ টাকা। ৫ বছর পরে মালিক পক্ষ ৬৩৬০ টাকার প্রস্তাব শ্রমিকদের সঙ্গে প্রতারণা ও তামাশা ছাড়া আর কিছু নয়। তারা বলেন, একজন শ্রমিকের মজুরি হওয়া উচিত ২৮,৬২০ টাকা কিন্তু আমরা ১০ হাজার বেসিক বাড়ি ভাড়া, ৪ হাজার চিকিৎসা সহ মোট ১৬ হাজার টাকা দাবি করছি, যা অত্যন্ত ন্যায্য একটি দাবি। এসময় সরকার কে হুঁশিয়ারি দিয়ে তারা বলেন, চলতি সেপ্টেম্বরের মধ্যে যদি আমাদের দাবি মানা না হয় তাহলে অক্টোবর মাস থেকে কঠোর আন্দোলন করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ