ঢাকা, রোববার 9 September 2018, ২৫ ভাদ্র ১৪২৫, ২৮ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

এশিয়া কাপে অংশ নিতে আজ ঢাকা ছাড়ছে ক্রিকেট দল

 

স্পোর্টস রিপোর্টার : এশিয়া কাপ ক্রিকেটে অংশ নিতে আজ ঢাকা ছাড়ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় বিমানে চড়বে বাংলাদেশ দল। আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতে শুরু হচ্ছে এমিয়া কাপের আসর। আসরের প্রথম ম্যাচেই শ্রীলংকার বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ দল। তবে এশিয়া কাপ খেলতে যাবার আগে ক্রিকেট ভক্তদের মনের আকাশে হঠাৎ কালো মেঘ। কারণ এশিয়া কাপে দলের দু’নির্ভরযোগ্য খেলোয়ার তামিম-সাকিব খেলতে পারবেন কিনা তা নিশ্চিত নয়। এদিকে একটি ইংরেজী জাতীয় দৈনিকে সাক্ষাতকারে সাকিব জানান তিনি ২০-৩০ ভাগ ফিট। অন্যদিকে ডান হাতের অনামিকায় হঠাৎ ব্যথা তামিম ইকবালের খেলা নিয়েও সংশয়ের জন্ম দিয়েছে। তবে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু আর বিসিবি চিকিৎসক দেবাষিশ চৌধুরী মনে করেন এই দু ক্রিকেটারর খেলা নিয়ে কোন সংশয়ের কিছু নেই। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু বলেন, ‘তামিম ও সাকিবের কারো খেলা নিয়েই সংশয় নেই। আমাদের কাছে এমন কোন খবর নেই, যা শঙ্কার কারণ হতে পারে। সাধারণতঃ কোন ক্রিকেটারের ইনজুরি বা সমস্যা থাকলে তা ফিজিওর মাধ্যমে আমাদের কাছে আসে। আমরা তখন অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা নেই। ফিটনেসে ঘাটতি থাকলে কিংবা ইনজুুরি হলে তা পরিমাপের চেষ্টা করা হয়। ফিটনেস ঘাটতি কতটা কিংবা ইনজুরির মাত্রাই বা কেমন, তা নিরূপণের পরই আসরা করণীয় স্থির করি। কিন্তু এ ক্ষেত্রে অমাদের কাছে সে অর্থে কোনই নেতিবাচক খবর নেই। সাকিবের ফিটনেস নিয়ে যে খবর চাওর হয়েছে এবং তা কেন্দ্র করে ভক্ত ও সমর্থকদের মনে যে সংশয়-সন্দেহর কালো মেঘ জন্মেছে ,আমার জানা মতে তা ভিত্তিহীন। অমূলক। সাকিব নিজে আমাদের কাছে তার ফিটনেস নিয়ে কোন অভিযোগ করেনি। ফিজিও, ট্রেনার, কোচ এবং বিসিবির চিকিৎসক কারো কাছেই সাকিব বলেনি যে, তার ফিটনেসে ঘাটতি আছে। বলেনি সে মাত্র ২০-৩০ ভাগ ফিট। যেহেতু তার ফিটনেস নিয়ে সাকিব টিম ম্যানেজমেন্টের কাছে কোন অভিযোগ করেনি, তাই আমরা ধরেই নিয়েছি সে সম্পূর্ণ ফিট। আর যদি কোনো ঘাটতি থেকেও থাকে, সেটাও বড় কিছু নয়।’ তামিম ইকবালের ডান হাতের অনামিকায় ব্যথা নিপ্রেধান নির্বাচক বলেন, ‘আমরা জানি নাজমুল হোসেন শান্তর সাথে তামিম ইকবালেরও হাতের আঙ্গুলে ব্যথা আছে। তাই তো আমরা শেষ মুহূর্তে মুুমিনুলকে ব্যাকআপ হিসেবে দলে নিয়েছি। তারপরও আমার মনে হয় না, তামিমের সমস্যা তেমন গুরুতর কিছু। আশা করছি তা কমে যাবে এবং তামিম ঠিক খেলতে পারবে।’ বিসিবির চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী তামিম ও সাকিব ইস্যুতে বেশ ইতিবাচক। ডা. দেবাশীষ বলেন, ‘আমরা জানি ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে সাকিব শতভাগ ফিট ছিল না। হাতে সমস্যা ছিল। কিন্তু বাস্তবতা হলো, পুরোপুরি ফিট না হয়েও সাকিব ওয়েস্ট ইন্ডিজে বেশ ভালো পারফর্ম করেছে। দলের সাফল্যে গুরুত্বপূর্ণ অবদানও রেখেছে। তারপর প্রায় এক মাস সময় কেটে গেছে। সাকিব বিশ্রামেই ছিল। যেহেতু আর খলেনি এবং প্রাকটিসও করেনি; মোটামুটি বিশ্রাম পেয়েছে। তাই আমার তো মনে হয়, তার ঐ সমস্যা পুরোপুুরি ভালো না হলেও ফিটনেস লেভেল আরও ভালো হবার কথা। আমার মনে হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের চেয়ে এশিয়া কাপে আমরা আরও ফিট সাকিবকে দেখবো।’ আর সত্যিই যদি সাকিবের ফিটনেসে বড় ধরনের ঘাটতি থাকতো, তাহলে আমরা জানতাম। কিন্তু সাকিব আমাদেরকে নিজের আঙ্গুলের ব্যাথা ও ফিটনেস নিয়ে কোনো কথাই বলেনি। ‘আমার ব্যথা আরও বেড়েছে। ফিটনেস কমেছে- এমন কোনো অভিযোগও করেনি। করলে অবশ্যই আমরা জানতাম। আমরা তা নিয়ে আলাপ আলোচনা করে সম্ভাব্য করণীয় স্থির করে ফেলতাম। কিন্তু অমন কোনো খবর আমাদের কাছে নেই। ঘুরিয়ে বললে সাকিবের পক্ষ থেকে আমাদের ফিটনেসে ঘাটতির কোনো কথা বলা হয়নি। তাই আমি সাকিবের ফিটনেস নিয়ে চিন্তার কিছু দেখছি না।’ তামিমের আঙ্গুলের ব্যথা নিয়ে ডা. দেবাশীষ বলেন, ‘হ্যাঁ, তামিমের ডান হাতের অনামিকায় (রিং ফিঙ্গারে) ব্যথা আছে। যে কারণেই তাকে বিশ্রাম দেয়া হয়েছে। আমার বিশ্বাস তার ব্যথা কমে যাবে। এবং আশা করছি তামিম ঠিকই এশিয়া কাপ খেলতে পারবে। একই কথা প্রয়োজ্য নাজমুল হোসেন শান্তর ব্যাপারেও। তারও ব্যথা আছে এখনো। তবে মনে হয় সময়ের সাথে সাথে তা কমতে থাকবে।’ হজ পালনের পর দেশে ফিরে আবার ২৪ ঘন্টার মধ্যে স্ত্রী ও কন্যার সাথে সময় কাটাতে যুক্তরাষ্ট্র চলে গেছেন সাকিব। সেখান থেকে সরাসরি আরব আমিরাতে দলের সাথে মিলিত হবার কথা বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের। জাতীয় দলের বহর আরব আমিরাত যাবার কয়েক ঘন্টার মধ্যে সাকিবও চলে আসবেন বলে জানা গেছে। সংযুক্ত আবর আমিরাতের এশিয়া কাপে গ্রুপে মাশরাফি বিন মুর্তজাদের অন্য প্রতিপক্ষ শ্রীলংকা ও আফগানিস্তান। ‘এ’ গ্রুপে রয়েছে ভারত ও পাকিস্তান। তাদের গ্রুপ সঙ্গী বাছাই পর্ব পেরিয়ে আসা হংকং। এশিয়া কাপে বাংলাদেশ দল: মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান (সহ-অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, মোহাম্মদ মিঠুন, লিটন দাস, মুশফিকুর রহিম, আরিফুল হক, মাহমুদউল্লাহ, মোসাদ্দেক হোসেন, নাজমুল হোসেন শান্ত, মেহেদী হাসান মিরাজ, নাজমুল ইসলাম, রুবেল হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান, আবু হায়দার রনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ