ঢাকা, রোববার 9 September 2018, ২৫ ভাদ্র ১৪২৫, ২৮ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নেত্রকোনায় স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ সঙ্গীত শিল্পী ন্যান্সির ছোট ভাই সানি গ্রেফতার

 

নেত্রকোনা সংবাদদাতা : নেত্রকোনায় যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগে শাহারিয়ার আমান সানি নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শাহরিয়ার আমান সঙ্গীত শিল্পী নাজমুন মুনিরা ন্যান্সির ছোট ভাই এবং শহরের সাতপাই পূর্বধলা রোড এলাকার বাসিন্দা।

শুক্রবার সন্ধ্যায় পুলিশ তাঁকে বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। এর আগে গত বৃহস্পতিবার রাতে শাহরিয়ারের স্ত্রী সামিউন্নাহার শানু তাঁর স্বামীসহ ন্যান্সি ও ন্যান্সির স্বামী নাদিমুজ্জামান যায়েদের নামে নেত্রকোনা মডেল থানায় নারী নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। ওই মামলায় শাহরিয়ারকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালের প্রথম দিকে সামিউন্নাহার শানু নেত্রকোনা সরকারি কলেজে পড়াকালীন সময়ে শাহরিয়ার আমানের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর ওই বছরের শেষের দিকে তাঁরা পারিবারিকভাবে একে অপরকে বিয়ে করেন। বর্তমানে তাঁদের চার মাসের একটি কন্যা শিশু রয়েছে। শানুর বাবার বাড়ি একই শহরের সাতপাই নদীর পাড় চক্ষু হাসপাতাল রোড এলাকায়। বিয়ের কয়েক মাস পর থেকেই শাহরিয়ার বেকারত্ব দেখিয়ে শানুকে তাঁর বাবার বাড়ি থেকে টাকা ও আসবাবপত্র এনে দিতে চাপ দেন। এতে শানু অপারগতা প্রকাশ করলে শাহরিয়ার তাঁর ওপর শারীরিক ও মানসিক নিযাতন চালান। সম্প্রতি তাঁর এই কাজে বড় বোন সঙ্গীত শিল্পী নাজমুন মুনিরা ন্যান্সি ও ন্যান্সির জামাই নাদিমুজ্জামান যায়েদ সাহায্য করেন। তাঁরা শাহরিয়ারকে উস্কানি ছাড়াও শানুকে বিভিন্ন সময়ে মানসিক নির্যাতন চালাতেন। গত ২৬ আগস্ট রাত নয়টার দিকে শাহরিয়ার শানুকে তাঁর বাবার বাড়ি থেকে পাঁচ লাখ টাকা এনে দিতে চাপ দেন। টাকা না দিলে তাঁকে তালাক দেওয়ার হুমকি দেয়া হয়। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে শাহরিয়ার শানুকে মারধোর করে গলা চেপে ধরে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা চালান। এ সময় শানুর চিৎকারে লোকজন এসে উদ্ধার তাঁকে করে।খবর পেয়ে ওই দিন রাতে শানুর বাবার বাড়ির লোকজন তাঁকে নিয়ে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এরপর বিষয়টি পারিবারিকভাবে সমাধানের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু শাহরিয়ার তাঁর সিদ্ধান্তে অটল। এ নিয়ে গত বৃহস্পতিবার রাতে শানু বাদী হয়ে নেত্রকোনা মডেল থানায় নারী নিযাতন দমন আইনের ১১ (খ) ধারায় মামলা করেন। মামলায় শাহরিয়ারকে প্রধান আসামি করে তাঁর বোন নাজমুন মুনিরা ন্যান্সি ও ন্যান্সির জামাই নাদিমুজ্জামান যায়েদকে আসামি করা হয়। এ ঘটনায় পুলিশ শুক্রবার সন্ধ্যায় শাহারিয়ারকে তাঁর বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়। নেত্রকোনা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. বোরহান উদ্দিন খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘গ্রেফতার হওয়া আসামীকে গতকাল শনিবার সকালে আদালতে পাঠানো হবে। মামলার অপর দুই আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।’ এ বিষয়ে নাজমুন মুনিরা ন্যান্সির সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তাঁর মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ