ঢাকা, রোববার 9 September 2018, ২৫ ভাদ্র ১৪২৫, ২৮ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আগস্ট মাসে রাজনৈতিক সন্ত্রাস

মুহাম্মদ ওয়াছিয়ার রহমান : [চার]
১৭ আগস্ট নোয়াখালীর বসুরহাটে বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের বাড়ি থেকে ১২ বিএনপি নেতা-কর্মীকে আটক করে পুলিশ। আটককৃতরা হলো- বিএনপি নেতা সিরাজুল ইসলাম, স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা আব্দুল ওয়াহাব রাজা, যুবদল নেতা খায়রুল আলম সেলিম, আবুল কাশেম ও ওমর ফারুকসহ ১০-১২ জন। ২০ আগস্ট চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপির আহবায়ক অহিদুল ইসলাম বিশ্বাসকে শহরের বুজরুক গড়গড়িতে নিজ বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ। ২১ আগস্ট শেরপুর সদর থেকে বিএনপি নেতা দেলোয়ার হোসেন ও আফজাল হোসেনকে পুলিশ আটক করে। ২৩ আগস্ট বগুড়ার নন্দীগ্রাম বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় বিএনপির হামলায় ছাত্রলীগ নেতা আবু হোরায়রা আকাশসহ আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগের ৫ জন আহত হয়। পুলিশ এক বিএনপি নেতাকে আটক করে। নারায়নগঞ্জের আড়াইহাজার থেকে বিএনপির উপজেলা সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবুকে পুলিশ সরকারী সফর আলী কলেজের সামনে থেকে আটক করে। ২৪ আগস্ট নোয়াখালীর চাটখিল থেকে বিএনপি ও ছাত্র দলের ৪ নেতাকে আটক করে পুলিশ। আটককৃতরা হলো- চাটখিল পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান শামসুল আরেফিন শামীম, জেলা বিএনপির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক নাছির উদ্দিন বকশী, উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মনির হোসেন কাজল ও পরকোট ইউনিয়ন ছাত্রদল সহ-সভাপতি তানভীর হোসেন।
২৫ আগস্ট লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে ঢাকা মহানগরী বিএনপি যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এম.এ হান্নানকে তার গ্রামের বাড়ি আটিয়া থেকে আটক করে পুলিশ। ২৮ আগস্ট চট্টগ্রামের মিরসরাই বিএনপির ৭ নেতা-কর্মী আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে আদালত তাদের জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠায়। ৩০ আগস্ট সিরাজগঞ্জ সদরের বাগবাটি ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আব্দুল আউয়ালকে দত্তবাড়ি গ্রাম থেকে আটক করে পুলিশ। ৩১ আগস্ট ভোলা সদরে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হারুণ-অর-রশীদ ট্রুম্যানকে আটক করে পুলিশ। কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম পুলিশ ১৫ বিএনপি নেতা-কর্মীকে আটক করে। আটককৃতরা হলো- উপজেলা বিএনপির যুগ্ম-আহবায়ক নূর হোসেন বলাই, উপজেলা কৃষক দল সভাপতি হাসান শাহরিয়ার খাঁ, সাধারণ সম্পাদক সালেহ আহমেদ পাটোয়ারী, পৌর সভার ৫ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ইয়াসিন পাটোয়ারী, বিএনবি কর্মী ইয়াকুব আলী মিয়াজী, গাজী সেলিম, দুলাল, জাফর আহমেদ, ইয়াকুব, আনোয়ার হোসেন, শাহাদাৎ চৌধূরী, শহীদ, ছাত্রদল কর্মী ওসমান গনি ও সোহেল। সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান, প্রচার সম্পাদক সাজিদুল হক, সদস্য কামাল পাশা, নবাব মিয়া, উপজেলা শ্রমিক দল নেতা ফেরদাউস আলম ও এমদাদুল হুদাকে আটক করে পুলিশ।
ছাত্র দল ঃ ৫ আগস্ট ফরিদপুরের বোয়ালমারী থেকে ছাত্রদল বোয়ালমারী সরকারী কলেজ শাখা সাধারণ সম্পাদক সালেহ আহমেদ মৃধা রুবেলকে ষ্টেডিয়াম এলাকা থেকে আটক করে পুলিশ। ১১ আগস্ট সিলেট শহরের কুমারপাড়ায় পুনঃনির্বাচিত মেয়র আরিফুল হক চৌধূরীর বাসার সামনে ছাত্রদলের দলীয় কোন্দলে ছাত্রদল মহানগর সাবেক সহ-প্রচার সম্পাদক ফয়জুর রহমান রাজুকে কুপিয়ে আহত করলে, পরে হাসপাগালে গিয়ে রাজু মারা যায় এবং লিটন ও উজ্জ্বল নামে ২ কর্মী আহত হয়। ছাত্রদল মুন্না গ্রুপ ও আব্দুর রাকিব গ্রুপের মধ্যে এই ঘটনা ঘটে বলে জানা যায়। ২৪ আগস্ট বরিশাল জেলা ও মহানগরী ছাত্র দলের কমিটি গঠন নিয়ে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ১০ জন। গত ১৯ আগস্ট ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদ জেলা ও মহানগর কমিটি ঘোষণা করলে বিক্ষোভ ও অফিসে তালা ঝুলিয়ে দেয় পদবঞ্চিতরা। পরের দিন পদ বঞ্চিতরা শহরে ঝাড়ু মিছিল বের করে এবং কেন্দ্রীয় সভাপতি রাজিব আহসানের ছবিতে অগ্নিসংযোগ করে।
২৫ আগস্ট বরিশালের গৌরনদী থেকে আগারপুর ইউনিয়ন ছাত্রদল সহ-সভাপতি পিয়াল হাওলাদার ও যুবদল নলচিড়া ইউনিয়ন সভাপতি জহিরুল ইসলাম হাওলাদারকে আটক করে পুলিশ। ২৬ আগস্ট রাজশাহী মহানগর বিএনপি অফিসে তালা লাগায় ছাত্রদল এবং ২৭ আগস্ট অফিস ও আসবাবপত্র ভাংচুর ছাত্রদল পদবঞ্চিত নেতারা। কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে জগমোহনপুরে ৮ বাস যাত্রী হত্যা মামলায় ছাত্রদল নেতা জাহাঙ্গীর আনোয়ার তুহীনকে আটক করে পুলিশ। ২৯ আগস্ট নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁও থেকে জেলা ছাত্রদল সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম সজীব, সোনারগাঁও ছাত্রদল নেতা মোজাম্মেল, কাজী হিমেল, ফরহাদ হোসেন, আব্দুল হালিম, ওমর ফারুক, বিল্লাল হোসেন, রুহুল আমীন পাভেল, আবুল বাশার, সাইদুর রহমান, সাইজ উদ্দিন, জাকারিয়া, খোরশেদ আলম ও ইউনুসকে কাঁচপুর ইউনিয়ন ছাত্রদল অফিস থেকে আটক করে পুলিশ।  ৩১ আগস্ট নরসিংদীর পলাশ উপজেলা পুলিশ ছাত্রদল সভাপতি মোস্তাক আহমেদ খানকে মালিতা গ্রাম থেকে আটক করে।
যুব দল ঃ ২৪ আগস্ট বরিশালের গৌরনদীতে ১৫ আগস্ট শোক দিবসের তোরণের কাপড় চুরির অভিযোগে যুবদল নলচিড়া ইউনিয়ন সভাপতি জহির দাওলাদারকে আটক করে পুলিশ। ২৬ আগস্ট সাতক্ষীরার কলারোয়া থেকে যুবদল উপজেলা সভাপতি আব্দুল কাদের বাচ্চুকে ঝিকরগাছার বাকড়া এলাকায় বেড়াতে গেলে সেখান থেকে পুলিশ তাকে আটক করে। ২৭ আগস্ট ভোলার লালমোহন থেকে যুবদল উপজেলা আহবায়ক শাহীনুল ইসলাম হাওলাদার কবীরকে আটক করে পুলিশ।
শ্রমিক দল ঃ ২ আগস্ট ঝালকাঠি সদরে বিএনপি অফিসের সামনে থেকে শ্রমিক দল জেলা সভাপতি টিপু সুলতানকে আটক করে পুলিশ।
 স্বেচ্ছাসেবক দল ঃ ১৫ আগস্ট চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দল সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন বুলুকে ফয়’স লেক এলাকা থেকে আটক করে পুলিশ।
ওলামা দল ঃ ১৭ আগস্ট বগুড়ার নন্দীগ্রাম থেকে পুলিশ জেলার জাতীয়তাবাদী ওলামা দলের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ফজলে রাব্বি তোহাকে শাকপালা মোড় থেকে আটক করে।
কৃষক দল ঃ ১৯ আগস্ট সাতক্ষীরার তালা থেকে উপজেলা পুলিশ কৃষক দল সভাপতি আলী হোসেনকে বড়বিলা এলাকা থেকে আটক করে।
জামায়াত ঃ ৩ আগস্ট চট্টগ্রাম খুলশী থানার মুরগীর ফার্ম এলাকা থেকে সাবেক এমপি ও জামায়াত নেতা শাহজাহান চৌধূরীসহ ৭ নেতা-কর্মীকে আটক করে পুলিশ। নীলফামারী সদরের ছাড়ারপাড়া এলাকা থেকে উপজেলা জামায়াত আমীর আবু হানিফ, ইটাখোলা ইউনিয়ন জামায়াত আমীর খবির উদ্দিন, জামায়াত নেতা আব্দুস সবুর, মাহবুবুর রহমান, একরাম খান, আবু নূর ও ওয়াহিদুল ইসলামকে আটক করে পুলিশ। ৮ আগস্ট গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ পুলিশ আল-হিকমা দাখিল মাদ্রাসা থেকে ৮ জামায়াত নেতা-কর্মীকে আটক করে। আটককৃতরা হলো- জাহাঙ্গীর আলম, আইউব আলী, মোনায়েম খন্দকার, রাশেদুল ইসলাম বাবু, জামাল উদ্দিন, রেজাউল ইসলাম লিটন, আতিকুর রহমান ও মোহাম্মদ আলী। নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ থেকে হাফেজ হাফিজুর রহমান, হাফেজ বেলায়েত হোসেন ও আলমগীর হোসেন নামে তিন জামায়াত নেতা-কর্মীকে পুলিশ আটক করে। রংপুরের মিঠাপুকুর থেকে পুলিশ উপজেলা পরিষদ ভাইস-চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা আব্দুল বাসেদ মারজানসহ ৯ জনকে আটক করে।
১০ আগস্ট ঝালকাঠি জেলা ডিবি পুলিশ একটি সাংগঠনিক বৈঠক থেকে ৮ জামায়াত নেতা-কর্মীকে আটক করে। আটককৃতরা হলো- জেলা জামায়াতের সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডঃ নাছির উদ্দিন, সাবেক জেলা সেক্রেটারী এ্যাডঃ বি.এম আমিনুল ইসলাম, সদর থানা আমীর শাহ জামাল, সেক্রেটারী মাওলানা মনিরুজ্জামান, কেওড়া ইউনিয়ন জামায়াত সভাপতি আব্দুল মালেক সিকদার, বরিশাল শহর জামায়াত নেতা কাওছার আহমেদ, জামায়াত নেতা জাকির হোসেন ও হাবিবুর রহমান। ১৪ আগস্ট নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ থানা পুলিশ চৌমুহনী থেকে উপজেলা জামায়াত আমীর দেলোয়ার হোসেনসহ ১১ জামায়াত-শিবির নেতা-কর্মীকে আটক করে। ১৭ আগস্ট নীলফামারীর ডিমলা উপজেলা পরিষদ ভাইস-চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা অধ্যাপক মুজিবুর রহমান, উপজেলা আমীর মাওলানা মহিউর রহমান, বালাপাড়া ইউনিয়ন সভাপতি জয়নুল আবেদীন ও পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়ন সভাপতি এ.বি.এম শামসুল হককে ছোটখাতা গ্রাম থেকে আটক করে পুলিশ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ