ঢাকা, রোববার 9 September 2018, ২৫ ভাদ্র ১৪২৫, ২৮ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

গাইবান্ধার পল্লীতে ছোট নারিচাগাড়ী ফাযিল (ডিগ্রী) মাদরাসার উন্নয়ন নেই

গাইবান্ধার পল্লীতে ১৯৪১ সালে স্থাপিত ছোট নারিচাগাড়ী ফাযিল (ডিগ্রি) মাদরাসা জরাজীর্ণ

ফেরদাউছ মিয়া, পলাশবাড়ী (গাইবান্ধা): গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার তালুককানুপুর ইউনিয়নের ছোট নারিচাগাড়ী গ্রামে ১৯৪১ সালে স্থাপিত ছোট নারিচাগাড়ী ফাযিল (ডিগ্রী) মাদ্রাসা সংস্কার, মেরামত ও নির্মাণের অভাবে এখনও অবহেলিত। দেখার কেউ নেই। প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে অনেক ত্যাগ তিতিক্ষা ও সুনামের সাথে পরিচালিত মাদ্রাসাটির শিক্ষার উপজেলার অন্যান্য মাদরাসার তুলনায় কোন অংশেই কম নয়। ফলাফল ভালো হওয়ায় ডিগ্রী মাদ্রাসাটিতে উন্নয়নের প্রতি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নেক নজর নেই। নেই কোন আন্তরিকতা।
অভিজ্ঞ শিক্ষক ম-লীর মাধ্যমে ১শ’ ১৮ বছর যাবৎ এই মাদ্রাসার পাঠদান কর্মসূচী চলছে। পাবলিক পরীক্ষার ফলাফলও আশানুরূপ। মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মোঃ আব্দুর নুর জানান, ১৯৪১ সালে স্থাপিত মাদ্রাসাটি ১৯৮৫ সালে এমপিও ভূক্তির মধ্য দিয়ে ৩২ জন শিক্ষক-কর্মচারী নিয়ে মাদ্রাসাটি বর্তমানে শিক্ষার্থীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় পাঁচ শতাধিক। অতি প্রাচীন মাদ্রাসা হিসেবে উন্নয়নের পাশাপাশি একটি একাডেমিক ভবন নির্মানের প্রয়োজন। তার সাথে মাদরাসাটিতে বিজ্ঞান শাখা চালু করা আবশ্যক। কিন্ত তা না থাকায় বিজ্ঞান শাখার শিক্ষার্থীরা পাঠদান থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
অধ্যক্ষ আরো জানান, যেহেতু মাদরাসাটি অতি প্রাচীন, সেহেতু পল্লী এলাকায় শিক্ষা বিস্তারে বর্তমান সরকার ও স্থানীয় সংসদ সদস্যের আশু হস্তক্ষেপ প্রয়োজন। তিনি স্থানীয় এমপি’র দৃষ্টি আকর্ষণ করে পল্লী অঞ্চলে অবস্থিত মাদ্রাসা উন্নয়নসহ একটি একাডেমিক ভবন নির্মাণের দাবী জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ