ঢাকা, সোমবার 10 September 2018, ২৬ ভাদ্র ১৪২৫, ২৯ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আগস্ট মাসে রাজনৈতিক সন্ত্রাস

মুহাম্মদ ওয়াছিয়ার রহমান : [পাঁচ]
২৮ আগস্ট কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার বিজয়পুর গ্রাম থেকে পুলিশ ৭ মহিলা কর্মীসহ ৯ কর্মীকে আটক করে। আটককৃতরা হলো- মকবুল হোসেন ও আব্দুল কাদেরসহ ৯ জন। ২৯ আগস্ট নারায়নগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে জামায়াত নেতা সাহাব উদ্দিনকে পাইনাদী নতুন মহল্লা থেকে আটক করে পুলিশ।
শিবির ঃ ৫ আগস্ট যশোরের কেশবপুরে ভালুকঘর গ্রাম থেকে শিবির সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন সভাপতি মেহেদী হাসান, সেক্রেটারী মঞ্জুজুরুল ইসলাম, সাকিব হাসান, সিরাজুল ইসলাম, আব্দুল খালেক ও আলমগীর হোসেনসহ ৭ জনকে আটক করে। ৬ আগস্ট বগুড়ার শহরের সপ্তবর্দী মার্কেট এলাকা থেকে বগুড়া উত্তর জেলা শিবির সভাপতি মিজানুর রহমানকে আটক করে পুলিশ। ১৬ আগস্ট পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীতে বাহেরচর বাজার থেকে শিবির সন্দেহে ইয়াকুব হোসেন নামে সরকারী পটুয়াখালী কলেজের এক ছাত্রকে পিটিয়ে পুলিশে দেয় ছাত্রলীগ।
২৩ আগস্ট দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার মাঝাপাড়া জামে মসজিদের সামনে থেকে পুলিশ রংপুর মহানগরী সাবেক শিবির সভাপতি রাকিবুর রহমান পলাশকে আটক করে।
২০ দলীয় জোট ঃ ২৬ আগস্ট বাগেরহাটের মোংলা থেকে ২০ দলীয় জোটের ২ নেতাকে আটক করে পুলিশ। আটককৃতরা হলো- জামায়াত নেতা আমির হোসেন ও বিএনপি কর্মী আফসার আলী। যশোরের কেশবপুর থেকে ২০ দলীয় জোটের ৩ নেতা-কর্মীকে আটক করে পুলিশ। আটককৃতরা হলো- জামায়াত নেতা মাওলানা আব্দুল খালেক, যুবদল নেতা উজ্জ্বল বিশ্বাস ও হেলাল বিশ্বাস। ৩১ আগস্ট রাজশাহীর পুঠিয়া ও বাগমারা থেকে ২০ দলীয জোটের ৯ নেতা-কর্মীকে আটক করে পুলিশ। আটককৃতরা হলো- পুঠিয়া উপজেলা পরিষদ ভাইস-চেয়ারম্যান ও জামায়াত উপজেলা আমীর আহমেদ উল্লাহ, কান্দ্রা গ্রামের হুমায়ুন কবীর, আশরাফুল ইসলাম ও জিউপাড়ার শামিম রেজা, বাগমারা উপজেলার ঝিকড়া এলাকার বিএনপি কর্মী মোয়াজ্জেম হোসেন, আব্দুল খালেক, আব্দুর রউফ, জামায়াত কর্মী আবু সায়েম ও আব্দুল করীম।
জাপা ঃ ১০ আগস্ট নাটোরের বাগতিপাড়ায় জাপা সাবেক এমপি আবু তালহা, জাপা নেতা আব্দুল গনি, আব্দুল খালেক, রাশিদুল ইসলাম ও আব্দুল কুদ্দুসের বিরুদ্ধে ১০ কোটি টাকার মানহানির মামলা করে জাপার বাগতিপাড়া উপজেলা শাখা সদস্য-সচিব শফিকুল ইসলাম সানা। ১২ আগস্ট নোয়াখালীতে কমিটি গঠন নিয়ে দলীয় কোন্দলে জেলা জাতীয় পার্টি অফিসে তালা দেয় পদবঞ্চিত বোরহান উদ্দিন মিঠু গ্রুপ।
জাতীয় ছাত্রসমাজ ঃ ১২ আগস্ট রংপুর শহরে শেষ রাতে রাস্তায় ব্যারিকেট দিয়ে ট্রাকে ডাকাতি করার অভিযোগে ছাত্র সমাজ মহানগর সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম ছোট, সাংগঠনিক সম্পাদক রাজু ও আরিফ হোসেনকে আটক করে পুলিশ। আটককৃতরা রাস্তার ঠিকাদারী কাজ পরিদর্শন করতে আসে বলে দাবি করলেও যেহেতু বিষয়টি শেষ রাতে এবং এই সময় পরিদর্শনে আসার কথা নয়, তাই ওই দাবি পুলিশের কাছে গ্রহন যোগ্য না হওয়ায় তাদের গ্রেফতার করা হয়।
জাসদ ঃ ২৯ আগস্ট কুমিল্লা শহরে জাসদ (রব) কেন্দ্রীয় মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ও কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জাসদ মনোনীত বিগত দুই বার মেয়র প্রার্থী শিরিন আক্তারকে ৫৫ পিস ইয়াবাসহ আটক করে র‌্যাব-১১।
 জেএমবি ঃ ৩ আগস্ট লালমনিরহাটের পাটগ্রাম পৌর এলাকা থেকে জেএমবি নেতা ফজলে রাব্বি, শাহীন ইসলাম ও হাসান মাসুদকে ২টি বিদেশী পিস্তল, ৫ রাউন্ড গুলি, ২টি ম্যাগজিন, ১টি দেশী ওয়ান শুটারগান ও ১ রাউন্ড গুলিসহ আটক করে র‌্যাব-১৩। ৪ আগস্ট কুড়িগ্রাম থেকে পুলিশ জেএমবি সদস্য তোফাজ্জল হোসেন তোতা মিয়া, রফিকুল ইসলাম ও আব্দুল হামিদকে ১টি বিদেশী পিস্তল, ৪ রাউন্ড গুলি, ২টি ম্যাগজিন, ৫০০ এমএল সালফিউরিক এসিড, ৫০০ গ্রাম সোডিয়াম নাইট্রেট পিউরিফাইড (বিস্ফারক পাউডার) ও ৫০০ গ্রাম ইমপ্লুরা নাইট্রেট উদ্ধার করা হয় বলে পুলিশ দাবি করে। ১৩ আগস্ট ঢাকার উত্তরার আব্দুল্লাহপুর থেকে জেএমবির সদস্য মহিবুল ইসলাম, মোজাম্মেল হক বেলাল, শামীম আহমেদ ও দেলোয়ার হোসেনসহ ৫ জনকে আটক করে পুলিশ। এ সময় পুলিশ তাদের কাছ থেকে ২টি চাপাতি, ৯৬টি ডেটনেটর, ১০টি ব্যাটারী ও বোমা তৈরীর সারঞ্জাম উদ্ধার করে বলে দাবি করে। ৩০ আগস্ট ঢাকার যাত্রবাড়ি বাসষ্ট্যান্ড মোড় থেকে জেএমবি সদস্য আব্দুর রাজ্জাককে আটক করে র‌্যাব-১০। ৩১ আগস্ট রাজশাহীর গোদাগাড়ীর চরবোয়ালমারী থেকে জেএমবির নেতা আমিনুল ইসলাম, মোশাররফ হোসেন মুরসালিন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদরের ইসমাইল হোসেন, রফিকুল ইসলাম ও আব্দুল মতিনকে ১টি বিদেশী পিস্তল, ১টি ম্যাগজিন, ৪ রাউন্ড গুলি, ৭টি হ্যান্ড গ্রেনেট ও ২০০ গ্রাম গান পাউডারসহ আটক করে পুলিশ। বরিশাল শহরের দরগাবাড়ি এলাকা থেকে জেএমবির সদস্য আব্দুল্লাহ আল-মিরাজ ওরফে খালেদ সাইফুল্লাহ ওরফে সাইফুল ইসলামকে ১টি পিস্তল, ২টি ম্যাগজিন, ৪ রাউন্ড গুলি ও অন্যান্য জিনিসসহ আটক করে র‌্যাব-৮।
হিজবুত তাহরির ঃ ৩০ আগস্ট চট্টগ্রাম শহরের কাজির দেউড়ী মোড় থেকে র‌্যাব-৭ আমিরুজ্জামান পারভেজ নামে এক হিজবুত তাহরিরের সদস্যকে আটক করে।
পূর্ব বাংলা কমিউনিষ্ট পার্টি : ৩০ আগস্ট রংপুর জজ কোর্টের পিপি ও বারের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেকের কাছে এক কোটি টাকা চাঁদাদাবি করে র্পূব বাংলা কমিউনিষ্ট পার্টির কমান্ডাররা। চাঁদা না দিলে ৭ দিনের মধ্যে হত্যা করার হুমকি দেয়।
জন সংহতি সমিতি এমএন লারমা গ্রুপ ঃ ১৮ আগস্ট খাগড়াছতি সদরে স্বনির্ভর এলাকায় ইউপিডিএফ প্রসীত বিকাশ খীসা ও জেএসএস এমএন লারমা গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে নিহত ৭ এবং আহত ৩ জন। নিহতরা হলো- পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের ভারপ্রাপ্ত জেলা সভাপতি তপন চাকমা, পিসিপি কর্মী এল্টন চাকমা, গনতান্ত্রিক যুব ফোরামের নেতা পলাশ চাকমা, বিকাশ চাকমা, বরুণ চাকমা, রূপন চাকমা ও জিতায়ন চাকমা, এর মধ্যে ৩ জন গ্রামবাসী।
একই সাথে সমর বিকাশ চাকমা, সুকিরণ চাকমা ও সোহেল চাকমা আহত হয়। ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের প্রচার বিভাগের প্রাধান নিরন চাকমা ঘটনার জন্য জনসংহতি সমিতি এমএন লারমা গ্রুপকে দায়ী করে। [সমাপ্ত]

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ