ঢাকা, সোমবার 10 September 2018, ২৬ ভাদ্র ১৪২৫, ২৯ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

গ্যাস আবিষ্কৃত হলেও সংযোগ বঞ্চিত এলাকাবাসী

রফিকুল ইসলাম: ফটিকছড়িবাসী দির্ঘদীন থেকে ফটিকছড়িকে জেলায় রুপান্তর করার দাবি জানিয়ে আসছেন। তাছাড়া আইন শৃংঙ্খলার যথাযথ উন্নয়নের জন্য ফটিকছড়িকে তিনটি থানায় বিভক্তি করার দাবীও দীর্ঘ দিনের। ফটিকছড়ি উত্তর ফটিকছড়ির ভুজপুরে থানা নির্মিত হলেও দক্ষিণ ফটিকছড়িতে এখনও থানা নির্মিত হয়নি। ফটিকছড়ির কোটি কোটি টাকার সম্পদ আগুন  থেকে বাঁচাতে কয়েকটি ফায়ার স্টেশন স্থাপনের দাবীর  প্রেক্ষিতে ফটিকছড়ি সদরে একটি নির্মিত হলে ও উত্তর ফটিকছড়ি ও দক্ষিণ ফটিকড়িতে এখনো নির্মিত হয়নি। উৎপাদিত ফসল ফলমুল সমুহ সংরক্ষণের জন্য গড়ে উঠেনি একটি হিমাগার।
ভুজপুর ও হারুয়ালছড়ির মত দক্ষিণ ফটিকছড়িতে সর্তা বা হালদা নদীতে রাবার ড্যাম নির্মান ও প্রয়োজনীয় সেচ ব্যবস্থার দাবি। ফেনী জেলার চাইতেও বড় এই উপজেলার স্বাস্থ্য সেবাও যথাযথ নয়। দেশের কয়েকটি জেলার চাইতে ফটিকছড়ি বড় উপজেলা হলেও স্বাস্থ কমপ্লেক্র রয়েছে মাত্র দুটি। তাতেও প্রয়োজনীয় ঔষধ পত্র,ডাক্তার ও জনবল নেই। তাছাড়া  রোগীদের প্রতি ডাক্তার ও র্নাস স্টাফদের অবহেলার অভিযোগতো নিত্যই আছে। এক কথায় হাসপাতাল দুটি যেন নিজেরাই রোগী। উত্তর ফটিকছড়িতে এবং দক্ষিণ ফটিকছড়িতে আরেকটি করে স্বাস্থ্য কমপে¬স্কের প্রয়োজন বলে স্থানীয় জন সাধারণ অভিমত পোষণ করেন। ফটিকছড়িতে সীমুতাং গ্যাস ফীল্ড আবিস্কৃত হলেও ফটিকছড়িবাসী গ্যাস সংযোগ থেকে বঞ্চিত। সন্ত্রাসদের অভয়ারন্য ফটিকছড়ি এখনো পুরোপুরিভাবে সন্ত্রাস মুক্ত না হওয়ায় ফটিকছড়ি বাসি এখনো সন্ত্রাসীদের হাতে জীম্মি। পুলিশ প্রসাশনের অবহেলায় ও যোগসাজসে নেশার রাজত্বও দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফটিকছড়ির শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর তেমন কোন উন্নতি হয় নাই। অন্তত একটি স্কুল কলেজ সরকারি করার দাবি র্দীঘদিনের থাকলে ও এখনো পর্যন্ত তা হয়নি। তবে সম্প্রতি ফটিকছড়ি ডিগ্রী কলেজকে সরকারি ঘোষিত হয়েছে বলে জানা গেছে। অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাটির ও টিনসেটের বাশঁঘরে লেখা পড়া চলছে ঝুঁকিপূর্ণভাবে । বিশেষ করে প্রাইমারী স্কুল গুলো দৈন্যদশা অংসখ্য শিক্ষক ছাড়া এসব বিদ্যালয়ে লেখা পড়া চলছে। এদিকে ফটিকছড়ির বিভিন্ন খাল নদী ছড়া  থেকে অবৈধ ভাবে বালি পাচার ও সরকারি বন বিভাগ গুলো থেকে গাছ বাঁশ পাচার অব্যহত থাকলেও স্থানীয় প্রশাসনের  তেমন কোন উদ্যেগ নেই। ফলে রাজস্ব বঞ্চীত হচ্ছে সরকার, সুবিধা ভোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে স্থানীয় জনসাধারণ নদীর বাঁধ ও সড়ক গুলোর হচ্ছে করুন অবস্থা।
ফকিছড়িতে আধুনিক জীবন যাত্রা ও মান উন্নয়নে গড়ে উঠেছে দুটো পৌরসভা। পৌরসভার অন্তর্ভুক্ত হলেও দীর্ঘ দিনেও কোন শিশু পার্ক বা বিনোদন কেন্দ্র গড়ে না উঠায় এখানে আনন্দ লাভের কোন সুযোগ  নেই। ফলে কোমলমতি শিশুদের মানসিক বিকাশে বাধা হয়ে দাড়িঁয়েছে।
প্রাকৃতিক সম্পদে ঘেরা এ ফটিকছড়ি অত্যন্ত সু-পরিচিত  উপজেলা। এই উপজেলায় রয়েছে বিভিন্ন স্কুল, মাদ্রাসা, কলেজসহ সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন  প্রতিষ্ঠান। নাজিরহাটবাসীর জন্য কোন স্থানে কোন শিশুপার্ক, বিনোদন কেন্দ্র, পর্যটন কেন্দ্র অথবা অবসর সময় কাটানোর প্রকল্প না থাকায় বৃদ্ধ, যুবক, যুবতী, চাকরিজীবীদের অবসর সময় কাটানোর এক প্রকার দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ