ঢাকা, বুধবার 12 September 2018, ২৮ ভাদ্র ১৪২৫, ১ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

আনসার-গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর পরিচালক পদে পদোন্নতিতে অনিয়ম

চট্টগ্রাম ব্যুরো : অনিয়ম, দুর্নীতি, দলীয়করণ, স্বজনপ্রীতি ও রাজনৈতিক তদবিরের ভিত্তিতে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর পরিচালক পদে পদোন্নতি দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এতে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীতে অসন্তোষ বিরাজ করছে। ফলে বাহিনীতে  দেখা দিয়েছে এক ধরনের অস্থিরতা, বিশৃঙ্খলা। এই পদোন্নতিকে নির্বাচনী পদোন্নতি বলে আখায়িত করেছেন পদোন্নতি বঞ্চিতরা। তারা বলছেন, ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তিনমাস আগে ৬০ ভাগ যোগ্যতা সম্পন্ন সিনিয়র কর্মকর্তাদের বাদ দিয়ে অযোগ্য ও অদক্ষ জুনিয়র কর্মকর্তাদের পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে।
সূত্র জানায়, গত বৃহস্পতিবার বিদায়ী মহাপরিচালকের শেষ কর্মদিবসে তড়িঘড়ি করে ২৪জন কর্মকর্তাকে পরিচালক পদে পদোন্নতি দেয়া হয়। প্রায় ৫৩জন কর্মকর্তার মধ্যে ২৯জন কর্মকর্তা পদোন্নতির সকল যোগ্যতাপূরণ করা সত্ত্বেও তাদেরকে ডিঙিয়ে অনেক অদক্ষ ও জুনিয়র কর্মকর্তাদের পদোন্নতি দেয়া হয়। এতে বাহিনীর মধ্যে শৃংখলা এবং কমান্ড চ্যানেল  ভেঙ্গে পড়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।

পদোন্নতির আদেশে  দেখা যায়, ১৫তম ব্যাচের ২জন কর্মকর্তার মধ্যে ২জনই, ১৮তম ব্যাচের মধ্যে ৭জনের মধ্যে ৫ জন, ২১তম ব্যাচের ১১জনের মধ্যে ৬জন, ২৪তম ব্যাচের ২০জনের মধ্যে ৯জন, এবং ২৫তম ব্যাচের ৮জনের ৩জন কর্মকর্তাকে পদোন্নতি থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। আবার যাদের পদোন্নতি দেয়া হয়েছে, তাদের কারো গত দুই বছরের এসিআরই নেই। অর্থাৎ অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে। শুধু তাই নয়, ২ সপ্তাহ আগে বাহিনীর উপ-মহাপরিচালক পদে পদোন্নতির ক্ষেত্রেও গ্রেডেশন তালিকা ১ ও ২ নম্বরে থাকা কর্মকর্তাকে বাদ দিয়ে তালিকার পরে থাকা ৫জন কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেয়া হয়েছে। অথচ তাদের পদোন্নতির সকল যোগ্যতা বিদ্যমান ছিল। তাদের চাকরি আছে মাত্র এক বছরেরও কম সময়।

সূত্র জানায়, ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আনসার বাহিনীর প্রায় লক্ষাধিক সদস্য ভোট কেন্দ্রে নিরাপত্তা প্রদানে নিয়োজিত থাকবে। এই সময় তড়িঘড়ি করে বিপুল সংখ্যক সিনিয়র কর্মকর্তাকে বাদ দিয়ে সুবিধাভোগী মহল একটি বাহিনীর মধ্যে অসন্তোষ সৃষ্টি করেছেন। এতে চরম বিশৃংখলা সৃষ্টি হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। জাতীয় নির্বাচনের আগে যেকোনো বাহিনীতে অসন্তোষ ভয়াবহ পরিণতি ডেকে আনতে পারে। এই ধরণের সিদ্ধান্ত সরকারকে বিব্রত করার একটি চক্রান্ত বলে মনে করছেন তারা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ