ঢাকা, বৃহস্পতিবার 13 September 2018, ২৯ ভাদ্র ১৪২৫, ২ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

বিএনপি নেতাদের জাতিসংঘ ডাকতে পারে কিন্তু সিদ্ধান্ত আমরাই নেবো -ওবায়দুল কাদের

স্টাফ রিপোর্টার : জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পদত্যাগ চেয়ে বিএনপিসহ বিভিন্ন বিরোধী দলের দাবিকে মামা বাড়ির আবদারের সঙ্গে তুলনা করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগ করবেন, তাহলে দেশের দায়িত্ব নেবেন কে? মির্জা ফখরুল? মামা বাড়ির আবদার! সবকিছুই সংবিধান অনুযায়ী চলবে, আমরা সংবিধানের বাইরে যাব না।
গতকাল বুধবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে ঢাকা পরিবহণ সমন্বয় কর্তৃপক্ষের পরিচালনা পর্ষদের ১১তম সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের। এই সভায় সভাপতিত্ব করেন তিনি।
মন্ত্রী বলেন, ‘পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, নির্বাচন হবে পবিত্র সংবিধান অনুযায়ী। সরকার কোনো চাপের কাছে নতি স্বীকার করবে না।’
নির্বাচনের আগে বিএনপি চেয়ারসপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তির যে দাবি বিএনপির নেতারা তুলেছেন তার জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তাদের নেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দেবেন আদালত। এখানে সরকারের কিছু করার নেই। সরকার যদি আদালতের ওপর হস্তক্ষেপ করতো তাহলে ৩০টির ওপরে মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন পেতেন না। বারবার বলেছি, আবারও বলছি, এটা আদালতের বিষয়।’
তফসিল ঘোষণার আগে সংসদ ভেঙে দিতে বিএনপির দাবি উড়িয়ে দিয়ে সরকারের এই সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী বলেন, অক্টোবর মাসের পর আর সংসদ বসবে না। মন্ত্রীরা শুধু রুটিন ওয়ার্ক করবেন। সংসদ আনুষ্ঠানিকভাবে ভাঙা হবে না, তবে সংসদ বসবে না, যদি না দেশে যুদ্ধাবস্থা তৈরি হয়।
জাতিসংঘ বিএনপিকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে কিনাÑ জানতে চাইলে এই আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘তারা জাতিসংঘসহ বিভিন্ন বিদেশী সংস্থার কাছে অবিরাম নালিশ করে চলেছে। আরও নালিশ হয়তো তারা দেবে। তবে ডাকলে যেতেই পারে। এখানে সরকার কিংবা আওয়ামী লীগের কোনো আপত্তি নেই। জনগণই আমাদের শক্তি। জাতিসংঘ ডাকতে পারে, কথা বলতে পারে। কিন্তু আমাদের সিদ্ধান্ত আমরাই নেব। সংবিধান বহির্ভূত কোনো চাপের কাছে নতি স্বীকার করব না।
ওবায়দুল কাদের বলেন, পুলিশ সড়কের শৃঙ্খলা ফেরাতে যত কঠোর পদক্ষেপেই নিক না কেন তা রাজনৈতিক নেতাকর্মীরা মানছে না বলে অভিযোগ করেছেন।
আইন অমান্যকারীদের গ্রিক বীর আলেকজান্ডারের সঙ্গে তুলনা করে তিনি বলেন, ‘রাস্তা দাপিয়ে বেড়ানো আলেকজান্ডাররা কারা? পুলিশ কেন তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিচ্ছে না? ঢাকা-সাভারসহ সারাদেশে একই চিত্র। এটা কোনোভাবেই হতে দেওয়া যায় না।’
ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘পুলিশ পলিটিক্যাল কাউকে কিছু বলে না, এটা কেমন কথা! ঝাঁকে ঝাঁকে আলেকজান্ডার দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। ঢাকার নেতাদের সতর্ক করে রাখছি এ বিষয়ে আপনারা নজর না দিলে অচিরেই কর্মী হারাবেন।’
সড়ক দুর্ঘটনা সম্পর্কে সতর্ক করে মন্ত্রী বলেন, শরীর মেরামত করা গেলেও মাথা মেরামত করা যায় না। সবাইকে হেলমেট পরতে হবে, শুধু পুলিশকে দিয়ে হবে না। এ বিষয়ে রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের, বিশেষ করে জনপ্রতিনিধিদের অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে। না হলে এটা সফল করা যাবে না।
ওবায়দুল কাদের বলেন,  আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর রোববার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে সড়ক পরিবহণ আইন-২০১৮ উত্থাপন করা হবে । রোববার আমি আইনটি সংসদে উত্থাপন করব। এরপর আইনটি স্ট্যান্ডিং কমিটির কাছে পাঠানো হবে। স্ট্যান্ডিং কমিটি যদি তাদের কাজ দ্রুত শেষ করতে পারে, তাহলে এ অধিবেশনে আর তা সম্ভব না হলে অক্টোবরের মাঝামাঝি সময় এ সরকারের মেয়াদের শেষ সংক্ষিপ্ত অধিবেশনে আইনটি পাস করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ