ঢাকা, বৃহস্পতিবার 20 September 2018, ৫ আশ্বিন ১৪২৫, ৯ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

সিরীয় সীমান্তে নিরাপত্তা জোরদার করছে তুরস্ক

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:

তুরস্ক সরকার দেশটি সিরীয় সীমান্তে নিরাপত্তা জোরদার করেছে। সিরীয়ার ইদলিবে বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে সিরিয়া ও তার মিত্র রাশিয়া ও ইরানের করা হামলায় শরণার্থীর ঢল নামার আশঙ্কা করছে তুরস্ক। আর এ কারণেই মোতায়েন করেছে বাড়তি সেনা। খবর আল-জাজিরার।
 
তুরস্কের দক্ষিণ পূর্ব সীমান্তের ৫০ কিলোমিটার দূরে হাতয় প্রদেশের একটি বিমানবন্দরে সৈন্যদের পৌঁছতে দেখা যায়। তবে এসব সৈন্য সীমান্ত অতিক্রম করবে কি না তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
 
তুরস্ক ইতোমধ্যে সিরিয়া থেকে আসা প্রায় ৩৫ লক্ষ শরণার্থীকে জায়গা দিয়েছে। তাই নতুন করে আর কোনও শরণার্থী নিতে চাইছে না দেশটি। দেশটির একজন নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেটিন গুরকান বলেন, এ ধরনের সৈন্য সমাবেশের উদ্দেশ্য হলো নিরাপত্তা জোরদার করা। আমি মনে করি না ইদলিবে যুদ্ধে জড়ানোর ইচ্ছা বা সামর্থ্য কোনটিই তুরস্কের আছে। এর মূল উদ্দেশ্যই হলো সীমান্ত দিয়ে যাতে নতুন করে আর শরণার্থী প্রবেশ করতে না পারে।

এদিকে, সিরিয়ার ইদলিবে বেপরোয়া হামলা না চালাতে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদকে হুঁশিয়ারি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। রাশিয়া ও ইরানের সহায়তায় ওই অঞ্চলে বেপরোয়া হামলায় মানবিক সংকটের পাশাপাশি লাখ লাখ লোক নিহত হতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন ট্রাম্প।
 
ইদলিবে সিরিয়া-রাশিয়া হামলার পর ইতোমধ্যে সেই অঞ্চল ছেড়ে ৪০ হাজার মানুষ পালিয়ে গেছে। পুরোদমে আক্রমণ শুরু হলে অন্তত ৯ লাখ মানুষ উদ্বাস্তু হয়ে পড়বে বলে আশঙ্কা করছে জাতিসংঘ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ