ঢাকা, মঙ্গলবার 11 December 2018, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৩ রবিউস সানি ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে দাবি মেনে নিতে ঐক্য প্রক্রিয়ার আহ্বান

সংগ্রাম অনলাইন : রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে আলোচনার মাধ্যমে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠনে পদক্ষেপসহ তিন দফা দাবি ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে মেনে দিতে সরকারকে সময়সীমা বেঁধে দিয়েছে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া।

শনিবার রাজধানীর মহানগর নাট্যমঞ্চে আয়োজিত নাগরিক সমাবেশ থেকে এই সময়সীমা দেয়া হয়।ঐক্য প্রক্রিয়ায় জনগণকে সম্পৃক্ত করার জন্য ১ অক্টোবর থেকে জাতীয় নেতাদের উপস্থিতিতে দেশব্যাপী সমাবেশ করারও ঘোষণা দিয়েছে ঐক্য প্রক্রিয়া।

নির্বাচনের আগে সংসদ ভেঙে দেয়া, খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দীর মুক্তি এবং নির্বাচনপ্রক্রিয়ায় সেনাবাহিনীর অংশগ্রহণের দাবি করা হয় সমাবেশ থেকে। এ সময় সারা দেশে ঐক্যপ্রক্রিয়ার কমিটি গঠনের কথাও জানানো হয় সমাবেশের ঘোষণাপত্রে।

ঐক্যপ্রক্রিয়ার আহ্বায়ক গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি সাবেক রাষ্ট্রপতি ডা: এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী। বক্তব্য রাখেন- বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জেএসডি সভাপতি আসম আবদুর রব, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সুলতান মোহাম্মদ মনসুর, বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ও ড. আবদুল মঈন খান, গণফোরামের কার্যকরী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, মোস্তফা মহসিন মন্টু, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (বিজেপি) চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থ, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের আমির আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমেদ আব্দুল কাদের, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরী, ২০ দলীয় জোট নেতা মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, মোস্তফা জামাল হায়দার, আহসান হাবীব লিংকন প্রমুখ। তেল গ্যাস বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক প্রকৌশলী মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ অনুষ্ঠানে ঘোষণাপত্র পাঠ করেন। সমাবেশ পরিচালনা করেন ঐক্যপ্রক্রিয়ার সদস্যসচিব আ ব ম মোস্তফা আমীন।

ঘোষণাপত্রে বলা হয়, সরকার আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠন এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করার কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করবে এবং তফসিল ঘোষণার আগে বর্তমান সংসদ ভেঙে দেবে।

গণদাবি আদায়ের লক্ষ্যে প্রতিটি জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডপর্যায়ে মুক্তি-সংগ্রামের চেতনায় বিশ্বাসী সব রাজনৈতিক দল, ব্যক্তি, শ্রেণিপেশা ও নাগরিক সমাজের সমন্বয়ে ‘বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য’ কমিটি গঠন এবং দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ঐক্যবদ্ধভাবে নিয়মতান্ত্রিক ও শান্তিপূর্ণ গণজাগরণের কর্মসূচি অব্যাহত রাখার আহ্বান জানানো হয় ঘোষণাপত্রে।

এতে বলা হয়, ন্যায়বিচারের স্বাভাবিক প্রক্রিয়াকে অগ্রাহ্য, ব্যাহত ও অকার্যকর করে অন্যায়ভাবে কারারুদ্ধ সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আইনগত ও ন্যায়সঙ্গত অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। কোটা সংস্কার ও নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী ছাত্রছাত্রীসহ সব রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে আনীত মিথ্যা মামলাগুলো প্রত্যাহার করতে হবে এবং গ্রেফতারকৃতদের মুক্তি দিতে হবে। এখন থেকে নির্বাচন শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোনো রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা যাবে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ