ঢাকা, রোববার 23 September 2018, ৮ আশ্বিন ১৪২৫, ১২ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

আগামী নির্বাচন হবে অগ্নি পরীক্ষা -এইচ টি ইমাম

স্টাফ রিপোর্টার: আগামী সংসদ নির্বাচন বাংলাদেশ ও স্বাধীনতার জন্য অগ্নিপরীক্ষা বলে মস্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও দলীয় নির্বাচনি পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারম্যান এইচ টি ইমাম।
গতকাল শনিবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে কৃষক লীগের বর্ধিত সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। কৃষক লীগের সভাপতি মোতাহার হোসেন মোল্লার সভাপতিত্বে এ বর্ধিত সভায় আরও বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক খন্দকার শামসুল হক রেজা, সহ-সভাপতি আরিফুর রহমান দোলন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সমীর চন্দ্র চন্দ, উম্মে কুলছুম স্মৃতিসহ বিভিন্ন জেলা থেকে আগত নেতারা।
এইচ টি ইমাম বলেন, সামনের নির্বাচন আমাদের জন্য বিশাল এক চ্যালেঞ্জ। এ চ্যালেঞ্জকে গ্রহণ করে আমরা অবশ্যই উতরে যাবো। এ বিশ্বাস, আত্মবিশ্বাস ও প্রত্যয় থাকতে হবে যে বিজয়ের কোনও বিকল্প নাই। আগামী নির্বাচন আমাদের বাংলাদেশ ও স্বাধীনতার জন্য একটি অগ্নিপরীক্ষা, এখানে আমরা যদি কোনোভাবে ব্যর্থ হই এবং পিছিয়ে পড়ি, তাহলে স্বাধীনতার শত্রুরা পাকিস্তান ও তাদের দোসরদের সঙ্গে মিলিত হয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা বিনষ্ট করার চেষ্টা করবে।
তিনি বলেন, আমরা (আওয়ামী লীগ) শুধু যে নিশ্চিহ্নই হবো তা-ই নয়, এ উন্নয়ন থাকবে না, এ দেশের স্বাধীনতা আক্রান্ত হবে। তাই আমাদের এ ভোটযুদ্ধে বিজয় লাভ করতে হবে, বিজয়ের কোনও বিকল্প নাই।
আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের এই সদস্য বলেন, আমাদের যে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রয়েছে, তা ধরে রাখা জরুরি। বাংলাদেশকে পিছিয়ে নেওয়ার জন্য দেশের শত্রুরা বারবার চেষ্টা করছে। স্বাধীনতার পরে দেশে সবচেয়ে আক্রমণ হয়েছে স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তির ওপর। আমাদের ওপর বারবার আক্রমণ করেছে, আমরা কারো ওপর আক্রমণ করি নাই। এ শক্তির চেষ্টা এখনও অব্যাহত রয়েছে।
এইচ টি ইমাম বলেন, আমি তরুণ প্রজন্মের সামনে কথা বলতে চাই সব সময়। তাদের সামনে আমি বাংলাদেশের কথা, দেশপ্রেমের কথা, বীরত্বের কথা, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আগামীর বাংলাদেশ কেমন হবে, তাতে তারা শামিল হবে কিনা, জাতীয় সংগীত গাইবে কিনা এসব কিছু আমি তাদের মনের মধ্যে গেঁথে দিতে চাই। এরাই আমাদের নবীন ভোটার। এ তরুণ প্রজন্মকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক মগজ ধোলাই হয়েছে, এখন পাল্টা আরেক রকমের মগজ ধোলাই দিয়ে নিয়ে আসা কঠিন কাজ, কিন্তু আমাদের তা করতে হবে। এ জন্য আমি স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় কোনও জায়গায় যাওয়া বাদ দিই না।
তিনি বলেন, অনেকই হয়তো প্রার্থী হবেন, কৃষক লীগের ভালো প্রার্থীরাও মনোনয়ন পাবেন। জাতীয় নির্বাচনের ভোটযুদ্ধে আমাদের সব সংগঠনের নেতাকর্মীদের লাগবে। কঠোর পরিশ্রম করতে হবে, এর কোনও বিকল্প নাই। পরিশ্রম না করলে আমরা কিছুতেই সুফল ঘরে তুলতে পারবো না।
এইচ টি ইমাম বলেন, আমাদের সম্পর্কে মানুষের ভুল ধারণা আছে। বঙ্গবন্ধু সম্পর্কেও ছিল, এখনও অনেকেই বলে। কিন্তু চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিন সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড। আওয়ামী লীগ থাকাকালীন দেশে কোনও সংকট হবে না।
তিনি বলেন, আমাদের নির্বাচনি কৌশল একটাই, তা হলো মানুষের মন জয় করা এবং আমাদের ভালো কাজগুলো তুলে ধরা। আমরা শত্রুর সমালোচনা করবোই, তার আগে আমাদের নিজের ভালোগুলো তুলে ধরবো। আমাদের দলের চিন্তাভাবনা যে কত সুদূরপ্রসারি তা তুলে ধরতে হবে।
এইচ টি ইমাম বলেন, একজন প্রার্থী হবেন বলে আমাদের আরেকজন প্রার্থীকে খারাপ বলবেন, এতে আমাদের শত্রুরা তখন বলবে, তোমরা নিজেরাই বলছো তোমাদের লোকগুলো খারাপ। আমাদের কোনও এমপি যদিও খারাপ থাকে, এখন সেগুলো বলার সময় না। দলের ওপর আস্থা রাখুন, নেতৃত্বের ওপর আস্থা রাখুন, তারাই সেই ব্যবস্থা করবেন। নিজেদের মধ্যে আত্মসমালোচনা করুন। কিন্তু ওই এমপির আমলে কোনও উন্নয়ন হয়নি, মানে হলো আওয়ামী লীগের আমলে কোনও উন্নয়ন হয়নি। এগুলো বাদ দিয়ে একত্র হয়ে দল গঠন করে ভবিষ্যতের পথে এগিয়ে চলুন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ