ঢাকা, সোমবার 24 September 2018, ৯ আশ্বিন ১৪২৫, ১৩ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ভিয়েতনামকে হারিয়েই দ্বিতীয় রাউন্ডে বাংলাদেশ

গতকাল রবিবার কমলাপুর শহীদ সিপাহী মোস্কফা কামাল স্টেডিয়ামে এএফসি কাপ অ-১৬ মহিলা ২০১৯ চ্যাম্পিয়ানশীপ থাইলেন্ড কোয়ালিফাই এর বাংলাদেশ বনাম ভিয়েতনাম এর মধ্যাকার খেলায় গোলের পর বাংলাদেশ ধলের খেলোয়াড়দের উল্লাস ।

স্পোর্টস রিপোর্টার: এএফসি অনূর্ধ্ব - ১৬ নারী ফুটবলের দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলার যোগ্যতা অর্জন করলো বাংলাদেশ। বাছাই পর্বে ‘এফ’ গ্রুপে নিজেদের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ভিয়েতনামকে হারিয়ে গ্রুপে শ্রেষ্টত্ব পায় স্বাগতিকরা। গতকাল রোববার বাংলাদেশ ও ভিয়েতনামের মেয়েদের ম্যাচটি ছিল অলিখিত ফাইনাল। সমান পয়েন্ট ও সমান গোলগড় থাকায় দুই দলের সামনেই ছিল গ্রুপসেরা হয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে ওঠার লক্ষ্য। বাংলাদেশ পেরেছে জয়ের ধারা ধরে রেখে অপরাজিতভাবে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠতে। কমলাপুরস্থ শহীদ সিপাহী মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ ২-০ গোলে ভিয়েতনামকে হারিয়েছে। বিজয়ী দলের পক্ষে গোল দুটি করেন তহুরা ও আখি। আক্রমন পাল্টা আক্রমনে খেলা শুরু হলেও ম্যাচের কর্তৃৃত্ব ছিল বাংলাদেশের হাতে। ভিয়েতনামের মেয়েরা রক্ষণাত্মক খেলতে থাকেন। কৌশল ছিল প্রতি আক্রমণে খেলার। সময় নষ্টের প্রবণতা তাদের ছিল শুরু থেকে। তবে বল বেশি সময় ছিল ভিয়েতনামের অর্ধেই। একের পর এক আক্রমণ করেও স্বাগতিক মেয়েরা গোলের দেখা পায় ৪৫ মিনিটে। প্রথমার্ধের শেষ মিনিটে তহুরার গোলে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। আনাই মগিনির ক্রসে ভিয়েতনামের গোলরক্ষক দাও থি ফ্লাইট মিস করলে জটলা থেকে শট নেন শামসুন্নাহার। গোললাইনের কাছ থেকে তহুরা হেড করে বল জালে পাঠান। তহুরা অফসাইডে ছিলেন কিনা তা জানতে অতি উৎসাহী অস্ট্রেলিয়ান রেফারি দৌড়ে যান তার স্বদেশী সহকারীর রেফারির কাছে। তবে এবার আর বাংলাদেশকে বঞ্চিত করেননি সহকারী রেফারি-জানিয়ে দেন ক্লিয়ার গোল।

এর আগে একবার শামসুন্নাহারের প্লেসিং জালে জড়ালেও রেফারি ও সহকারী রেফারি মিলে গোল বাতিল করে সবাইকে অবাক করেন। এ সময় গ্যালারিতে উত্তেজনা তৈরি হয়। আগে থেকেই রেফারির কিছু বিতর্কিত সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ হয়ে ছিল গ্যালারির দর্শকরা। ৫৯ মিনিটে তহুরা বল জালে পাঠিয়ে গোল উদযাপন শুরু করলেও তার আগেই সহকারী রেফারি অফসাইডের পতাকা উঁচিয়েছিলেন। তবে ব্যবধান বাড়াতে বেশি সময় নেয়নি বাংলাদেশ। ৬৩ মিনিটে বামপ্রান্ত থেকে অধিনায়ক মারিয়া মান্ডার কর্নারে শামসুন্নাহার হেড নিলে বল ফিরে আসে ক্রসবারে লেগে। আখি খাতুনের প্রথম শট গোলরক্ষক ফিরিয়ে দিয়েও শেষ রক্ষা করতে পারেননি-ফিরতি বলে আঁখির বা পায়ের টোকা জালে জড়ালে দ্বিতীয় গোলের উচ্ছ্বাস ছড়ায় গ্যালারিতে। ৮৫ মিনিটে তৃতীয়বারের মতো তহুরার গোল বাতিল হয় অফসাইডে। শেষ পর্যন্ত ২-০ গোলের জয়েই লাল-সবুজ জার্সিধারী কিশোরীরা জায়গা করে নেয় এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের দ্বিতীয় পর্বে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ