ঢাকা, সোমবার 24 September 2018, ৯ আশ্বিন ১৪২৫, ১৩ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ঘুমন্ত স্ত্রীকে এসিড মারার অভিযোগে স্বামী আটক

মণিরামপুর (যশোর) সংবাদদাতা : দীর্ঘ প্রায় ৯ মাস বিভিন্ন সময় ছদ্মবেশ ধারণ করে পালিয়ে থেকেও শেষ রক্ষা হয়নি কামরুজ্জামানের। চলতি বছরের ২৪ জানুয়ারি ভোর রাতে ঘুমন্ত স্ত্রী রাজিয়া সুলতানার মুখে এসিড মেরে ঝলসে দেয় স্বামী কামরুজ্জামান। মঙ্গলবার গভীর রাতে মণিরামপুর উপজেলার উত্তরপাড়া গ্রাম থেকে পুলিশ তাকে আটক করে।
স্বামী কামরুজ্জামানের বাধা উপেক্ষা করে পড়ালেখা চালিয়ে চাকরির চেষ্টা করায় ক্ষিপ্ত হয়ে এসিডে ঝলসে দেয় স্ত্রী রাজিয়ার দুই চোখ। সেই থেকে রাজিয়ার পিতা পরিবার চিকিৎসা করিয়ে আসছে। রাজিয়া ডান চোখে দেখতে পান না। বাম চোখেও ঝাপসা দেখেন। এখন রাজিয়ার পুরো জীবনটাই যেন ধীরে ধীরে ঝাপসা হয়ে আসছে। উন্নত চিকিৎসা নিতে ভারতের চেন্নাই শংকর নেত্রালয় অথবা সিঙ্গাপুরে যেতে বলেছেন চিকিৎসকরা। না হলে দুইটি চোখ অকেজো হয়ে পড়বে। কিন্তু উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রচুর অর্থের প্রয়োজন। কামরুজ্জামান আটকের পর এক প্রতিক্রিয়ায় এসব কথা বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন রাজিয়া। এসময় তিনি কামরুজ্জামানের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি করেন।
এ ঘটনায় ২৪ জানুয়ারি বুধবার রাতে ভিকটিমের বড় ভাই আবু তাহের বাদী হয়ে কামরুজ্জামানকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং ২৪। ঘটনার পর থেকে কামরুজ্জামান পলাতক ছিলো।
এসময় রাজিয়া ক্ষোভ করে বলেন, এসিডের যোগানদাতা পৌরশহরের নাঈম জুয়েলার্সসের মালিক ও কামরুজ্জামনের ভগ্নিপতি মোয়াজ্জাম হোসেনকে গ্রেফতারের দাবি জানালেও পুলিশ তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়নি বলেও তিনি অভিযোগ করেন।
থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোকাররম হোসেন জানান, ঘটনার পর থেকে কামরুজ্জামানের উপর নজর রাখা হলেও বার বার অবস্থান পরিবর্তন করায় তাকে আটক করা সম্ভব হচ্ছিল না। মঙ্গলবার গভীর রাতে উপজেলার উত্তরপাড়া গ্রামের কামরুজ্জামানের এক বন্ধুর বাড়ি থেকে আটক করা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ