ঢাকা, মঙ্গলবার 25 September 2018, ১০ আশ্বিন ১৪২৫, ১৪ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

সিলেটে জামায়াতের ১৭ নেতাকর্মীকে কারাগারে প্রেরণ

সিলেট ব্যুরো : সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলায় গত রোববার সন্ধ্যায় একটি বৈঠক থেকে জামায়াতে ইসলামীর সিলেট জেলা সেক্রেটারিসহ ১৭ নেতাকর্মীকে আটক করে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ। রোববার রাতেই আটককৃতদের বিরুদ্ধে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ১৫/৩, ২৫-ডি ধারায় মামলা দায়ের করে পুলিশ। গতকাল সোমবার বেলা ২টায় তাদেরকে আদালতে হাজির করলে বিজ্ঞ আদালত জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।
রোববার রাতে বিশ্বনাথ থানায় এস আই সুলতান উদ্দিন বাদি হয়ে আটককৃতদের বিরুদ্ধে এই মামলাটি দায়ের করেন (মামলা নং-২৬, তাং- ২৩/০৯/২০১৮)। মামলায় গ্রেপ্তারকৃত ১৭ জনসহ মোট ৩৩ জন জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ ও আরো অজ্ঞাতনামা ৩০/৪০ জনকে আসামী করা হয়।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- সিলেট জেলা দক্ষিণ জামায়াতের সেক্রেটারি ও দক্ষিণ সুরমা উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মাওলানা লোকমান আহমদ, বিশ্বনাথ উপজেলা জামায়াতের আমীর আব্দুল কাইয়ুম, নায়েবে আমীর মাষ্টার এমাদ উদ্দিন, সেক্রেটারি মতিউর রহমান, সহকারী সেক্রেটারি আব্দুল মুকসিত আখতার, সাবেক সেক্রেটারি এএইচএম আখতার ফারুক, উপজেলা জামায়াতের কর্মপরিষদ সদস্য মাওলানা আনোয়ার হোসেন, বিশ্বনাথ ইউনিয়ন জামায়াতের সভাপতি এখলাছুর রহমান, রামপাশা ইউনিয়ন জামায়াতের সভাপতি হাজী আব্দুন নুর, সেক্রেটারি রজব আলী, দৌলতপুর ইউনিয়ন জামায়াতের সভাপতি বাবুল মিয়া, সেক্রেটারি তালেব আহমদ গোলাপ, অলংকারী ইউনিয়ন জামায়াতের আমীর জাহেদুর রহমান, সেক্রেটারি কামাল আহমদ, লামাকাজী ইউনিয়ন জামায়াতের নুরুল ইসলাম, সহকারী সেক্রেটারি আব্দুস শহিদ ও খাজাঞ্চী ইউনিয়ন জামায়াতের সেক্রেটারি আব্দুল মালিক। মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করে বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেন, সরকার বিরোধী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকায় আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে।
সিলেট জামায়াত নেতৃবৃন্দের নিন্দা
এদিকে, সিলেট জেলা দক্ষিণ জামায়াতের সেক্রেটারি ও দক্ষিণ সুরমা উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মাওলানা লোকমান আহমদসহ ১৭ নেতাকর্মীকে বিশ্বনাথে একটি সামাজিক অনুষ্ঠান থেকে অন্যায়ভাবে আটকের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন সিলেট জেলা ও মহানগর জামায়াত নেতৃবৃন্দ। অবিলম্বে আটক নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান তারা। বিবৃতি দাতারা হলেন- সিলেট মহানগর জাায়াতের আমীর এডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের, সেক্রেটারি মওলানা সোহেল আহমদ, সিলেট জেলা দক্ষিণ জামায়াতের আমীর মাওলানা হাবিবুর রহমান, নায়েবে আমীর অধ্যাপক আব্দুল হান্নান, সিলেট উত্তর জামায়াতের আমীর হাফিজ আনোয়ার হোসেন খান ও সেক্রেটারি মওলানা ইসলাম উদ্দিন। গতকাল সোমবার এক যৌথ বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন- অবৈধ সরকার আদর্শিক মোকাবিলায় ব্যর্থ হয়ে বিরোধী রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে দমনের জন্য প্রতিহিংসামুলক হিং¯্র খেলায় মেতে উঠেছে। কোন উস্কানী ছাড়াই রোববার বিকেলে বিশ্বনাথে একটি সামাজিক অনুষ্ঠান থেকে তাদেরকে আটক করে মামলা দেয়া হয়েছে। একটি অবাধ ও সুষ্ঠু জাতীয় নির্বাচনের দাবিতে যখন দেশপ্রেমিক জনতা ঐক্যবদ্ধ। ঠিক সেই মুহূর্তে গণতন্ত্রকামী জনতার নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনকে দমন করতেই অবৈধ সরকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীকে বিরোধী মতের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দিয়েছে। মানুষের জানমালের নিরাপত্তায় নিয়োজিত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনী সরকারের লাঠিয়াল বাহিনীর মত আচরণ করছে। গ্রেপ্তার নির্যাতন চালিয়ে গণতন্ত্রকামী জনতার আন্দোলন দমিয়ে রাখা যাবেনা। অবিলম্বে মাওলানা লোকমান আহমদসহ আটক সকল নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানিয়েছেন নেতৃবৃন্দ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ