ঢাকা, বৃহস্পতিবার 11 October 2018, ২৬ আশ্বিন ১৪২৫, ৩০ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

জ্বালানি সরবরাহ নিয়ে অবরুদ্ধ গাজাবাসীর পাশে কাতার

১০, অক্টোবর, আল জাজিরা .বিবিসি: ইসরায়েল কর্তৃক অবরুদ্ধ ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় মানবিক বিপর্যয় মোকাবিলায় জ্বালানি সরবরাহ নিয়ে গাজাবাসীর পাশে দাঁড়িয়েছে কাতার। আল জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার গাজার একমাত্র বিদ্যুৎকেন্দ্রে এসব জ্বালানি পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে ।

জাতিসংঘ প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে দক্ষিণ গাজার কারাম আবু সালেম বর্ডার ক্রসিং অতিক্রম করে জ্বালানিবাহী ছয়টি ট্রাক। এসব ট্রাকে চার লাখ ৫০ হাজার লিটার জ্বালানি ছিল। গাজা উপত্যকার শাসক দল হামাসের মুখপাত্র হাজেম কাসেম বলেন, কাতারি জ্বালানিতে আজ থেকে গাজার বিদ্যুৎ সরবরাহ (সরবরাহ) আংশিকভাবে বাড়ছে।

ফিলিস্তিন-ইসরায়েল ইস্যুতে ফিলিস্তিনের পক্ষে জোরালো অবস্থান নেওয়া দেশগুলোর অন্যতম কাতার। বিশেষ করে অবরুদ্ধ গাজাবাসীর জীবনে স্বাচ্ছন্দ্য ফেরাতে অঞ্চলটিতে কাজ করছে দোহা। তবে ২০১৭ সালের জুনে সৌদি জোটের কাতারবিরোধী অবরোধে গাজা উপত্যকার প্রতি কাতারি সমর্থন অব্যাহত রাখা দৃশ্যত কঠিন হয়ে পড়ে। কেননা, সৌদি আরব চায় ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাসের ওপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহার করুক কাতার। তবে হামাসকে মুক্তিকামী গাজাবাসীর গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত প্রতিনিধি মনে করে দোহা।

ফিলিস্তিনি ভূখন্ড গাজায় শেখ হামাদ সিটির খেলার মাঠে শিশুদেরকে খেলতে দেখার দৃশ্য অনেকটাই স্বাভাবিক। শিশুরা যখন খেলাধুলা করে তখন তাদের অভিভাবকদেরও দেখা যায় পাশেই বিলাসবহুল অ্যাপার্টমেন্ট ভবনের ছায়ায় বসে গল্প করতে বা কথা বলতে। গাজায় সবচেয়ে আকর্ষণীয় এলাকা হলো এই হাউজিং প্রকল্প, যার নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছিলো ২০১২ সালে। আর এ প্রকল্পের পুরো অর্থের যোগান দিয়েছে কাতার। প্রকল্প এলাকার নামকরণ করা হয়েছে দেশটির সাবেক শাসক শেখ হামাদের নামে। নিম্ন আয়ের প্রায় দুই হাজার ফিলিস্তিনী পরিবার ইতোমধ্যেই সেখানে স্থানান্তর হয়েছে। কমপ্লেক্স এলাকায় নতুন স্কুল, দোকানপাট, আকর্ষণীয় মসজিদ এবং এলাকা জুড়ে সবুজের আয়োজনে একটা নান্দনিক শহর হয়ে উঠেছে শেখ হামাদ সিটি।

শুধু এই শেখ হামাদ সিটিই নয়, বরং তহবিল সরবরাহসহ গাজাবাসীর যে কোনও ইস্যুতে প্রায়ই ভ্রাতৃত্বের হাত বাড়িয়ে দেয় কাতার। গাজার অন্যতম প্রধান দাতা ও সহযোগী হিসেবে বিবেচনা করা হয় দেশটিকে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে গাজা উপত্যকায় নতুন বাড়তি, হাসপাতাল ও সড়ক নির্মাণে কোটি কোটি ডলার ব্যয় করেছে কাতার। দেশটি আরও প্রায় ১০০ কোটি ডলার দেওয়ার অঙ্গীকার করেছে

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ