ঢাকা, বৃহস্পতিবার 11 October 2018, ২৬ আশ্বিন ১৪২৫, ৩০ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

রায় প্রত্যাখ্যান করে বিএনপির বিক্ষোভ

গতকাল বুধবার একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ের পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় আইনজীবী সমিতি ভবনের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল বের করে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়কে প্রতিহিংসামূলক আখ্যা দিয়ে প্রতিবাদে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপি। দলীয় সূত্র জানায়, বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশ ও সরকারি দল হামলা চালিয়েছে। এসময় আহত ও গ্রেফতার হয়েছে শতাধিক নেতাকর্মী।
একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ের পর বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এবং সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন আশা প্রকাশ করেছেন, আপিল করার পর দণ্ডিতরা খালাস পাবেন। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের সামনে জয়নুল আবেদীন এ মন্তব্য করেন। এদিকে রায়ের প্রতিক্রিয়ায় আইনজীবী সমিতি ভবনের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করে বিএনপির নেতাকর্মী ও আইনজীবীরা। এ সমাবেশে এডভোকেট জয়নুল অবেদীন বলেন, ‘এ মামলায় তারেক রহমান ন্যায়বিচার পাননি। এমনকি যাদের ফাঁসি দেওয়া হয়েছে তারাও ন্যায়বিচার পাননি। এই মামলায় সাজা দেওয়ার মতো কোন ইনগ্রেডিয়েন্ট (উপাদান) নেই। এই সাজা দেওয়া হয়েছে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে।
তিনি বলেন, আমরা মনে করি, এই মামলায় যেহেতু কোনো ইনগ্রেডিয়েন্ট নেই, আমরা রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবো। সর্বোচ্চ আদালত থেকে ইনশাল্লাহ আমরা খালাস পাবো আল্লাহর রহমতে।
মামলার রায়ে তারেক রহমানসহ বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে রায়ের প্রতিবাদে রাজধানীতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল। বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে রাজধানীর গ্রিনরোডে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি রাজিব আহসানের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি অনুষ্ঠত হয়। বিক্ষোভ মিছিলে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী অংশ নেন।
বিক্ষোভ মিছিলটি গ্রিনরোড মোড় থেকে শুরু হয়ে পান্থপথের বসুন্ধরার সিটির সামনে শেষ হয়। এসময় তারা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নামে মিথ্যা মামলা ও সাজা বাতিলের দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন। বিক্ষোভে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মামুনুর রশীদ মামুন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মিয়া মোহাম্মদ রাসেল, সহ-সাধারণ সম্পাদক আরিফা সুলতানা রুমা প্রমুখ।
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায় প্রত্যাখ্যান করে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে রাজশাহী বিএনপি। রায়ের প্রতিক্রিয়ায় শফিকুল হক মিলন বলেন, এই রায় সাজানো। শহীদ জিয়ার পরিবারকে ধ্বংস করার চক্রান্তের অংশ হিসেবে এই রায় দেয়া হয়েছে।
রায়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে চট্টগ্রাম আদালত ভবনে মিছিল ও সমাবেশ করেছে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি অ্যাডভোকেট দেলোয়ার হোসেনসহ অন্যরা। রায়ের প্রতিবাদে বরিশালে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের সামনে নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ করেছে। এ সময় তারা ফরমায়েশি রায় প্রত্যাখ্যান করে শ্লোগান দিতে থাকে। এদিকে বরিশাল নগরীর স্টীমার ঘাট এলাকা থেকে রায়ের প্রতিবাদে মিছিল বের করার চেষ্টাকালে বরিশাল মহানগর যুবদলের সভাপতি আক্তারুজ্জামান শামিমসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ
গ্রেনেড হামলা মামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ দলের নেতাদের সাজা দেওয়ার প্রতিবাদে রংপুর গ্রান্ডহোটেল মোড় এলাকায় জেলা বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে বিক্ষোভ করে বিএনপি। রায়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপি যুবদল স্বেচ্ছাসেবকদল ও ছাত্রদল। দুপুরে নগরীর রানীরবাজারসহ বিভিন্ন স্থানে এ বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়।
রায় ঘোষণার পর জামালপুরে বিএনপি ও ছাত্রদল শহরে পৃথক পৃথক মিছিল করেছে। এ সময় পুলিশ ছাত্রদলের মিছিলকারীদের ধাওয়া করে। এর আগে পুলিশ শহর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাইন উদ্দিন বাবুল এবং বিএনপির নেতা আনিসুর রহমান বিপ্লবকে শহরের বোষপাড়া এলাকা থেকে গ্রেফতার করে।
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামালা মামলার রায় প্রত্যাখ্যান করে নোয়াখালীতে বিএনপি আইনজীবী পরিষদের প্রতিবাদ সমাবেশ হয়েছে। বক্তারা বলেন, এ রায় সরকারের আজ্ঞাবহ রায়, এ রায়ে ন্যায় প্রতিফলন হয়নি। রায়ের পর সুনামগঞ্জে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপি। তবে সে মিছিলে বাধা দেয় পুলিশ। সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বিএনপি নেতারা অভিযোগ করেন, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যেই এমন রায় দেয়া হয়েছে। রায়ের প্রতিবাদে জয়পুরহাটে বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা জেলা বিএনপি কার্যালয় থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এ সময় পুলিশ মিছিলে বাধা দিলে তা পণ্ড হয়ে যায়। পরে বিএনপি’র কার্যালয়ের সামনে তারা বিক্ষোভ সমাবেশ করে। এসময় বক্তারা বলেন, তারেক রহমানকে রাজনীতি থেকে দুরে রাখার জন্য এই রায় দেওয়া হয়েছে।
২১শে আগষ্ট মামলায় তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সাজার প্রতিবাদে মতলবে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপির নেতাকর্মীরা। জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান শুককুর পাটোয়ারীর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভায় দলটির কয়েক শ নেতাকর্মী অংশগ্রহণ করে। এ সময় এম এ শুককুর পাটোয়ারী বলেন, জনগন এই অবৈধ সরকারের আজ্ঞাবহ আদালতের এই ফরমায়েশি রায় মানে না ও মানবে না। শুধু মাত্র রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য সরকার দুরভিসন্ধিমূলক পরিকল্পিত এই রায় আদালতের মাধ্যমে দিয়েছে। বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন মতলব পৌর বিএনপির সাবেক আহবায়ক মোজাম্মেল হক খোকন, মতলব ডিগ্রি কলেজ ছাত্রসংসদের সাবেক ভিপি জি এম খলিল, বিএনপি নেতা আলমগীর হোসেন রতন, আবদুল মান্নান,  চাদঁপুর জেলা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান কাইয়ুম, মতলব সরকারি কলেজ ছাত্রদলের আহবায়ক জুয়েল হোসাইন, যুবদল নেতা সিরাজ, মোরশেদ, পলাশ, শামীম প্রমুখ।
রায়ের প্রতিবাদে চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলা ও পৌর বিএনপি উপজেলা সদরে বিক্ষোভ মিছিল বের করেছে।  মিছিলে উপস্থিত ছিলেন, ফরিদগঞ্জ পৌর বিএনপি’র সভাপতি হারুন অর রশিদ, সাধারণ সম্পাদক আমানত গাজী, উপজেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক মজিবুর রহমান দুলাল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন পাটোয়ারী, জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল মতিন, ফরিদগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলম নান্টু, যুগ্ম আহবায়ক সোহাগ পাটোয়ারী, ছাত্রদল নেতা মঞ্জুরুল আলম রনি, মেহেদী হাসান মঞ্জু ও কামরুল ইসলাম রাঢ়ী প্রমুখ।
রায়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ দলের নেতাদের সাজা দেওয়ার প্রতিবাদে খুলনায় বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলে হামলা করেছে ছাত্রলীগ। এই ঘটনায় অন্তত সাতজন আহত হয়েছে। বুধবার দুপুরে রায়ের প্রতিবাদে খুলনা জেলা যুবদল ও ছাত্রদল বিক্ষোভ-মিছিলে এই হামলার ঘটনা ঘটে। শান্তিধাম মোড় এলাকায় মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এস এম একরামুল হক হেলালের নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে। খুলনা মহানগরীর সিটি কলেজের সামনে থেকে জেলা যুবদল ও ছাত্রদল মিছিল নামিয়ে পিটিআই মোড়ের দিকে যাওয়ার পথে মিছিলে হামলার ঘটনা ঘটে। ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয় ছাত্রলীগ ও মিছিলকারীদের সঙ্গে। এসময় যুবদল ও ছাত্রদলের সাতজন আহত হন। আহতরা হলেন- জেলা যুবদলের ভাইস প্রেসিডেন্ট শেখ কচি, সাধারণ সম্পাদক ইবাদুল হক রুবায়েদ, দফতর সম্পাদক জিএম রাসেল, যুবদল নেতা হেমায়েত রশিদ, জেলা ছাত্রদলের ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. মাসুম, সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম ও মহানগর ছাত্রদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জাফর ইকবাল।
জেলা যুবদলের দফতর সম্পাদক জিএম রাসেলের দাবি, তাদের মিছিলে পুলিশের সামনে ছাত্রলীগ লাঠি-শোটা, রড ও অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। এতে সাত নেতা-কর্মী আহন হন। তাদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। তবে খুলনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গুমায়ুন কবীরের দাবি, যুবদল ও ছাত্রদলের মিছিলে কোনো হামলার ঘটনা বা কেউ আহত হয়নি।
তারেক রহমানসহ দলের নেতাদের সাজা দেওয়ার প্রতিবাদে সুনামগঞ্জে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলে বাধা দিয়েছে পুলিশ। বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে জেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয় থেকে একটি মিছিল বের করে জেলা বিএনপি। মিছিলটি কিছুদূর অগ্রসর হলে পুলিশ বাধা দেয়। বাধা পেয়ে সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন বিএনপি নেতাকর্মীরা।এ সময় বক্তব্য দেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ফজলুল হক আছপিয়া, জেলা বিএনপির সভাপতি কলিম উদ্দিন মিলন। বক্তারা দাবি করেন, এই মামলায় তারেক রহমানসহ বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে চরিতার্থ করার লক্ষ্যে সাজা দেওয়া হয়েছে। মিছিলে আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি সেলিম উদ্দিন আহমদ, রেজাউল হক, আনিুসল হক, আ ত ম মিসবাহ, আনসার উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম নূরুল, জেলা যুবদলের সভাপতি আবুল মনসুর শওকত, সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রশিদ কয়েস প্রমুখ।
মামলার রায়ের প্রতিবাদে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। দুপুর ১টার দিকে লিংক রোডের ফতুল্লার ভুইগড় এলাকায় এঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থলে যাওয়া ফতুল্লা মডেল থানার পরিদর্শক(আইসিপি) গোলাম মোস্তফা জানান, একদল বিএনপি নেতাকর্মী লিংক রোডের ভুইগড় এলাকায় শ্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে বিএনপির নেতাকর্মীরা।
এছাড়া মামলার রায় ঘোষণার পর নারায়ণগঞ্জে কয়েকটি স্থানে অন্তত বিশটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটেছে। শহরের গলাচিপা, ফতুল্লার ভুইগড় ও সোনারগাঁয়ের বেশ কয়েকটি স্থানে এই বিস্ফোরণের ঘটানোগুলো ঘটে বলে নিশ্চিত করেছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম।
এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে বিএনপির ও অঙ্গ-সংগঠনের তিন নেতাসহ ১৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ। বিস্ফোরণের ঘটনাগুলোতে হতাহতের কোন ঘটনা না ঘটলেও সাধারণ মানুষের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে।
সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোরশেদ আলম জানান, সোনারগাঁ উপজেলার কাঁচপুর, মোগড়াপাড়া চৌরাস্তাসহ চারটি পয়েন্টে ৮ থেকে ১০টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় দুর্বৃত্তরা। কাঁচপুর বাস স্ট্যান্ডের সামনে তিনটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়। এ সময় কাঁচপুর বাসস্ট্যান্ডের সামনে থেকে উপজেলা তাতীদলের সভাপতি ইসমাইল শিকদারকে ককটেলসহ গ্রেফতার করা হয়। মোগড়াপাড়া চৌরাস্তা আইয়ুব প্লাজা মার্কেটের সামনে তিনটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে। এসময় মার্কেটে আগত ক্রেতা ও রাস্তায় চলাচলকারী পথচারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। আইয়ুব প্লাজা মার্কেটের তৃতীয় তলায় বর্তমান জাপা সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকার রাজনৈতিক কার্যালয় রয়েছে। তবে ওই সময় সাংসদ তার কার্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন না।
ওসি আরো জানান, ককটেল বিস্ফোরণের পর পুলিশ সাতটি তাজা ককটেলসহ উপজেলা যুবদলের যুগ্মসম্পাদক এনামুল হক রবিন, পিরোজপুর ইউনিয়ন বিএনপির যুগ্মসম্পাদক নুর নবী মাষ্টার, ও উপজেলা তাতিদলের সভাপতি ইসমাইল শিকদারকে আটক করেছে। তাদের বিরুদ্ধে নাশকতার চেষ্টা ও বিস্ফোরক আইনে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
এদিকে নগরীরর গলচিপা এলাকার তিন থেকে চারটি স্পটে পাঁচটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে। গলাচিপা ডিএইচএল শাখা অফিসের পাশের গলির ভেতরে একটি এবং আশেপাশের এলাকায় এই ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।    নারায়ণগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি ) কামরুল ইসলাম জানান, বিস্ফোরণের খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে কয়েকটি বিস্ফোরিত ককটেলের আলামত জব্দ করেছে।
একই সময়ে ফতুল্লার ভুইগড় এলাকায় ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা একটি ঝটিকা মিছিল বের করে কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়। এসময় পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে ধাওয়া দিলে মিছিলকারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে পালিয়ে যায়।
ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত  কর্মকর্তা (ওসি) এস এম মঞ্জুর কাদের জানান, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের ভুইগড় এলাকায় একটি মিছিল থেকে কয়েকটি বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে। পুলিশ যাওয়ার আগেই মিছিলকারীরা পালিয়ে যায়। এসময় তিন চারটি গাড়ি ভাংচুর করা হয়। এ ঘটনায় চারজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানান তিনি।
বিএনপির নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে মাদারীপুরে বিক্ষোভ-সমাবেশ করার সময় চারজনকে আটক করেছে পুলিশ।বুধবার সকালে ঢাকা থেকে আটক জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জাহান্দার আলী জাহানসহ বিএনপির নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে জেলা প্রশাসকের (ডিসি) কার্যালয়ের ভেতর বিক্ষোভ-সমাবেশ করে বিএনপি নেতাকর্মীরা। এসময় তাদেরকে আটক করে পুলিশ।  আটককৃতরা হলেন- জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট জামিলুর রহমান মিঠু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শাহাদাত হোসেন। এছাড়াও শাহিন চৌকিদার ও সাইদুল নামে আরও দু’জনকে আটক করা হয়।
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দলটির সিনিয়র নেতাদের বিরুদ্ধে দেয়া সাজার প্রতিবাদে টাঙ্গাইলে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিল করেছে জেলা ছাত্রদল। শহরের কলেজপাড়া এলাকায় এ বিক্ষোভ মিছিল করেন ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। মিছিলটি শহরের কলেজপাড়া মোড় থেকে শুরু করে নিরালা মোড়ে গিয়ে শেষ হয়। জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ভিপি নুরুল ইসলামের নেতৃত্বে ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক মো. মোস্তফা কামাল, রফিকুল ইসলাম, ক্রিড়া সম্পাদক রাসেদ খান সোহাগ, অর্থ সম্পাদক সুমন বাপ্পী, স্কুল বিষয়ক সম্পাদক সজীব, সদর থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক সুমনসহ বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী বিক্ষোভে অংশ নেন।
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায় প্রত্যাখ্যান করে বরিশালে ঝটিকা মিছিলের প্রস্তুতি নেয়ার সময় যুবদলের তিন নেতাকে আটক করেছে পুলিশ। আটক নেতারা হলেন- মহানগর যুবদলের সভাপতি অ্যাডভোকেট আকতারুজ্জামান শামীম, সাধারণ সম্পাদক মাসুদ হাসান মামুন ও যুবদল নেতা হাফিজুর রহমান। বরিশাল নগরের লঞ্চঘাট এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়। কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মো. আসাদুজ্জামান বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।
তারেক রহমানসহ দলটির সিনিয়র নেতাদের বিরুদ্ধে দেয়া সাজার প্রতিবাদে মৌলভীবাজারে বিক্ষোভ করেছে বিএনপি। বুধবার দুপুর দেড়টায় শহরের শাহ মোস্তফা কলেজ সম্মুখে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান গ্রুপের অনুসারী স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদল বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করে। এসময় উপস্থিত ছিলেন- জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি স্বাগত কিশোর দাশ চৌধুরী, সিনিয়র সহ-সভাপতি শাম্মির হাবিব চৌধুরী রবিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল হান্নান, ছাত্রদল সভাপতি রুবেল মিয়া, সহ-সভাপতি রাজু আহমদ,শাহ আলম প্রমুখ।
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ দলটির সিনিয়র নেতাদের বিরুদ্ধে দেয়া সাজার প্রতিবাদে চট্টগ্রাম জেলা আদালত চত্বরে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে নগর বিএনপি।
বিএনপির এই তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ কর্মসূচিতে ছিলেন, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম, চট্টগ্রামের সভাপতি অ্যাডভোকেট দেলোয়ার হোসেন, আইনজীবী ফোরামের নেতা অ্যাডভোকেট মফিজুল হক ভূইয়া, অ্যাডভোকেট বদরুল আনোয়ার, অ্যাডভোকেট তারেক আহমেদ, অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, অ্যাডভোকেট জহরুল আলম, নগর বিএনপি নেতা কাজী বেলাল, কামরুল ইসলাম প্রমুখ।
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ দলটির সিনিয়র নেতাদের বিরুদ্ধে দেয়া সাজার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ ও পথসভা করেছে রাজশাহী  নগর ও জেলা বিএনপি নেতাকর্মীরা। বুধবার দুপুরে রায়ের প্রতিবাদে নগরীর রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ সমাবেশ ও পথসভা করেন নেতাকর্মীরা।
নগর বিএনপি সভাপতি ও সাবেক সিটি মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের নেতৃত্বে সেখানে উপস্থিত ছিলেন- দলটির রাজশাহী বিভাগের সহসাংগঠনিক সম্পাদক শাহীন শওকত, নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলন প্রমুখ।
পরে পুলিশি বাধায় মিছিল নিয়ে অগ্রসর হতে পারেননি নেতাকর্মীরা। এ সময় রাস্তায় বিক্ষোভ সমেবেশ করে বিএনপি। অন্যদিকে, এ রায়ের প্রতিবাদে দুপুরে নগরীর অলোকার মোড় এলাকার বিক্ষোভ মিছিল বের করে জেলা বিএনপি। এতে নেতৃত্ব দেন জেলার সভাপতি অ্যাডভোকেট তোফাজ্জাল হোসেন তপু। পুলিশি বাধায় এ মিছিলটিও ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। পরে সেখানে পথসভা করে ফিরে যান নেতাকর্মীরা।
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ দলটির সিনিয়র নেতাদের বিরুদ্ধে দেয়া সাজার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে রংপুর মহানগর ও জেলা বিএনপি নেতাকর্মীরা।  এছাড়াও রায় ঘোষণার পর তাৎক্ষণিকভাবে মহানগর ও জেলা ছাত্রদল, যুবদল, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরাও রায়ের প্রতিবাদে পৃথক বিক্ষোভ করে। এসময় তারা এই ষড়যন্ত্রমূলক মামলার সাজা বাতিলের দাবি জানান।
বুধবার দুপুরে রায়ের পরেই মহানগর ও জেলা বিএনপি এবং সকল অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করার চেষ্টা করলে পুলিশ বাধা দেয়। এসময় বিএনপি নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের বাগবিতণ্ডা হয়। পরে পুলিশি বাধায় বিএনপি নেতারা দলীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করে। 
সমাবেশে উপস্তিত ছিলেন- মহানগর বিএনপির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর হোসেন, সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মিজু, সাবেক সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান সামু, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আনিছুর রহমান লাকু এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি সাহিদার রহমান জোসনা, মামুনুর রশিদ, মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি এ্যাড.রেজেকা সুলতানা ফেন্সি, মহানগর যুবদল সভাপতি মাহফুজ উন নবী ডন, সাধারণ সম্পাদক লিটন পারভেজ, সাংগঠনিক সম্পাদক জহির আলম নয়ন, জেলা যুবদল সভাপতি নাজমুল আলম নাজু, সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম ঝন্টু, যুগ্ম সম্পাদক শাহ জিল্লুর রহমান জেমর্স, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি নুর হাসান সুমন, সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া ইসলাম জিম, জেলা ছাত্রদল সভাপতি মনিরুজ্জামান হিজবুল, সাধারণ সম্পাদক শরিফ নেওয়াজ জোহা, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শহিদুল ইসলাম লিটন, জেলা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক শহিদুল ইসলাম শহীদ প্রমুখ।
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়কে কেন্দ্র করে নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বুধবার নিউইয়র্ক সময় ভোররাত পৌনে ৩টার দিকে জ্যাকসন হাইটসের ডাইভার সিটি প্লাজায় এ ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গ্রেনেড হামলার রায় ঘোষণার পরপরই এর প্রতিবাদে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এ সময় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা সেখানে আনন্দ মিছিল নিয়ে হাজির হয়।
শুরুতে নির্দিষ্ট দূরত্বে উভয় দলই শ্লোগান দিতে থাকে। একপর্যায়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বিএনপি নেতাকর্মীদের দিকে এগিয়ে গেলে দুই দলের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। একপর্যায়ে দুপক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এর আগে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ঘোষণার পরপর জ্যাকসন হাইটসে খাবার বাড়ি রেস্টুরেন্টের সামনে আনন্দ মিছিল বের করে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। এ সময় তারা স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড এবং বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে মিষ্টি খাইয়ে আনন্দ-উল্লাস করে।
রায় ঘোষণার পরপরই ডাইভারসিটি প্লাজায় জড়ো হয়ে বিক্ষাভ মিছিল ও স্লোগান দেয় যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি নেতাকর্মীরা। এ সময় গ্রেনেড হামলা মামলার রায়কে প্রহসনের রায় উল্লেখ করে নেতারা বলেন, এই রায় ইতিহাসের পাতায় কালো অধ্যায় হিসেবে লেখা থাকবে। তারা অবিলম্বে তারেক জিয়াকে গ্রেনেড হামলা মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়ার দাবি জানান। সেই সঙ্গে বেগম খালেদা জিয়ারও নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান বক্তারা। বিএনপির বিক্ষোভে বক্তব্য রাখেন মিজানুর রহমান ভুইয়া মিল্টন, কাজী সাখাওয়াত হোসেন আজম, মাকসুদ চৌধুরী, মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, মোশাররফ হোসেন সবুজ, সৈয়দ আকিকুর রহমান ফারুক, মার্শাল মুরাদ, আমানত হোসেন আমান, আহাদ প্রমুখ।
একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায়কে রাজনৈতিক ‘উদ্দেশ্য প্রণোদিত’ আখ্যায়িত করে তা প্রত্যাখ্যান করেছে ফিনল্যান্ড বিএনপি। এক বিবৃতিতে সংগঠনটি জানায়, তারা সরকারের এই ইশারার রায়ে ক্ষুব্ধ। ফিনল্যান্ড বিএনপি নেতা জামান সরকার, মবিন মোহাম্মদ ও মোকলেসুর রহমান চপল ছাড়াও বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেন এজাজুল হক ভূঁইয়া রুবেল, বদরুম মনির ফেরদৌস, সামসুল গাজী।
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ের প্রতিবাদে সভা করেছে মালয়েশিয়া বিএনপি। দেশটিতে বিএনপির সভাপতি প্রকৌশলী বাদলুর রহমান খান বাদলের সভাপতিত্বে ও সহ-দফতর সম্পাদক হাবিবুর রহমান শিশিরের পরিচালনায় এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন- কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য ও মালয়েশিয়া বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. মোশাররাফ হোসেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওয়ালি উল্লাহ জাহিদ, আজিজুর রহমান, মালয়েশিয়া স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক বশির আলম, হারুন দেওয়ানজি, মালয়েশিয়া যুবদলের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম খান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন সাগর প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ