ঢাকা, সোমবার 15 October 2018, ৩০ আশ্বিন ১৪২৫, ৪ সফর ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

লোহাগাড়ায় বাস টার্মিনালের অভাবে নিত্যসঙ্গী যানজট

লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম)সংবাদদাতা : চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের ব্যস্ততম লোহাগাড়ার সদর বটতলী মোটর স্টেশনে স্থায়ী বাস টার্মিনাল না থাকায় দিন দিন যানজট বাড়ছে। মহাসড়কে ঘন্টার পর ঘন্টা যানজটে আটকা পড়ছেন হাজার হাজার যাত্রী। এছাড়া যানজটের ফলে কক্সবাজারগামী পর্যটকদের ভোগান্তি বাড়লেও সমস্যা সমাধানে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদ্যোগ নেই।
সরেজমিন দেখা যায়, ঢাকা-চট্টগ্রাম থেকে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে যাওয়ার পথে ও কক্সবাজার থেকে ফেরার পথে দুরপাল্লার গাড়িগুলো লোহাগাড়ার সদর বটতলী মোটর স্টেশনে যাত্রা বিরতি দেয়। প্রতিটি গাড়ি ১০-২০মিনিট এ স্টেশনে অবস্থান করে। অথচ গাড়ি রাখার জন্য এখানে কোন টার্মিনাল তৈরী করা হয়নি। দুরপাল্লার গাড়িগুলো সড়কের দু’পাশে রেখে নির্দিষ্ট সময় বিরতি দিচ্ছে। এর ফলে লোহাগাড়ার সদর বটতলী মোটর স্টেশনে যানজট বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে শ্রীহীন হয়ে পড়ছে পুরো এলাকাটি।
 সংশ্লিষ্টরা জানান, দক্ষিণ চট্টগ্রামের অন্যতম বাণিজ্যিক এলাকা লোহাগাড়ার সদর বটতলী মোটর স্টেশন। নানা প্রয়োজনে বিভিন্ন এলাকার অর্ধলক্ষাধিক মানুষ এ উপশহরে আসেন। ক্রমবর্ধমান আধুনিকায়নে এর প্রসারতাও দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। কিন্তু একটি বাস টার্মিনালের অভাবে পুরো এলাকাটির সৌন্দর্যহানির পাশাপাশি যানজট সমস্যা প্রকট হয়ে উঠেছে। এতে জীবনযাত্রার গতি থমকে যাচ্ছে, হচ্ছে পরিবেশ দূষণ।
 এদিকে যানজট নিরসনে ২০০৩ সালে শহরের উপকন্ঠে পুরাতন বিওসি এলাকায় সড়ক ও জনপথ বিভাগের বিশাল পরিত্যক্ত জমিতে বাস টার্মিনাল নির্মাণের প্রয়োজনীয়তা জানিয়ে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর কাছে চিঠি দেয় লোহাগাড়া শহর উন্নয়ন কমিটি। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এছাড়া চিঠিটি দেওয়ার পর সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্মকর্তারা তড়িঘড়ি করে বিভিন্ন ব্যক্তির নামে মৎস্য চাষের জন্য জায়গাটি ইজারা দেয়। অভিযোগ রয়েছে, এরপর তারা মৎস্য প্রকল্পের নাম দিয়ে এ জায়গায় বাসা ভাড়া, দোকানপাট, দালান নির্মাণ করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। লোহাগাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট ফরিদ উদ্দিন খান বলেন, লোহাগাড়াকে অত্যাধুনিক শহর হিসাবে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে যানজট প্রধান সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। লোহাগাড়ার সদর বটতলী মোটর স্টেশনের উপর চাপ কমাতে পার্শ্ববতী কোন স্থানে বাস টার্মিনাল তৈরী করা জরুরী। এ ব্যাপারে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে আমি যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ