ঢাকা, সোমবার 21 October 2019, ৬ কার্তিক ১৪২৬, ২১ সফর ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

সাংবাদিকের রক্তে সৌদি যুবরাজের হাত রঞ্জিত: এরদোগানের উপদেষ্টা

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগানের উপদেষ্টা নূর জিফিক বলেছেন, সৌদি ভিন্ন মতাবলম্বী সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যার ঘটনায় যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমানের হাত রয়েছে। তিনি বুধবার তুর্কি পত্রিকা ইয়ানি বিরলিক-এ প্রকাশিত এক নিবন্ধে সুস্পষ্ট ভাষায় লিখেছেন, খাশোগির রক্তে বিন সালমানের হাত রঞ্জিত রয়েছে।

উল্লেখ্য, এই প্রথম তুর্কি প্রেসেডেন্টের সাথে সম্পর্কিত কোন কর্মকর্তার তরফ থেকে সরাসরি সৌদি ক্রাউন প্রিন্সের প্রতি হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ উত্থাপন করা হলো।

জিফিক তার এ নিবন্ধে আরো লিখেছেন, খাশোগি হত্যাকাণ্ডে সরাসরি জড়িত অন্তত পাঁচ ব্যক্তি মোহাম্মাদ বিন সালমানে অত্যন্ত আস্থাভাজন ও ডানহাত হিসেবে পরিচিত। এসব ব্যক্তি যুবরাজের অজ্ঞাতসারে কোনো কাজ করে না।

গত ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুলস্থ সৌদি কনস্যুলেটে নিজের আসন্ন বিয়ের কাগজপত্র আনতে গিয়ে নির্মমভাবে খুন হন খাশোগি। 

এ সম্পর্কে তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান মঙ্গলবার তার দলের সংসদ সদস্যদের উদ্দেশে দেয়া বক্তৃতায় ওই পৈশাচিক হত্যাকাণ্ডের বিস্তারিত বিবরণ দিলেও তিনি এ ঘটনায় সৌদি যুবরাজের জড়িত থাকার সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করেননি। কিন্তু তার একদিন পর তার উপদেষ্টা সরাসরি বিন সালমানের দিকে সংশয়ের আঙুল তুললেন। ওদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও বলেছেন, খাশোগি হত্যাকাণ্ডে সৌদি যুবরাজের হাত থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান মঙ্গলবারের বক্তব্যে গোয়েন্দা প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে বলেন, খাশোগি ২৮ সেপ্টেম্বর প্রথমবারের মতো সৌদি কনস্যুলেটে যান। তখন সেখানকার কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংগ্রহ করার জন্য তাকে ২ অক্টোবর আবার আসতে বলেন। এই কয়েকদিনের মধ্যে খাশোগিকে হত্যা করার পরিকল্পনা পাকাপোক্ত হয় এবং কূটনৈতিক দায়মুক্তির সুবিধা নিয়ে সৌদি ঘাতক দল রাজতন্ত্র-বিরোধী সাংবাদিককে খুন করে।

সূত্র: রয়টার্স, গার্ডিয়ান, মিডল ইস্ট মনিটর

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ