ঢাকা, শনিবার 27 October 2018, ১২ কার্তিক ১৪২৫, ১৬ সফর ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

তিব্বতিদের লড়াই

আখতার হামিদ খান : নিছক সহযোগিতা’ বা বন্ধুত্বপূর্ণ অবদান’ নয়, বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধে একদল ভিনদেশী মানুষ লড়েছিলেন জানবাজি রেখে। না, ভারতীয় সেনাসদস্য নন তারা। এ প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে চীন শাসিত তিব্বতের অধীবাসীদের কথা, একদল সাহসী তিব্বতি মানুষও লড়েছিলেন বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধে, পাকিস্তানী সেনাদের বিরুদ্ধে সম্মুখ সমরে।
 এ তিব্বতিদের নিজেদের লড়াই শুরু ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের বেশ আগেই। তিব্বতে চীনা শাসনের বিরুদ্ধে গেরিলা লড়াই শুরু করেছিলেন তারা। পরে বিপর্যয়ের মুখে ১৯৫৯ সালে স্বাধীনতাকামীদের নেতা ও ধর্মগুরু দালাইলামা’কে দলবলসহ ভারতে চলে আসতে সাহায্য করে এ গেরিলারা। গেরিলারা নিজেরাও অনেকে আশ্রয় নেন ভারতে।
 চীনের বিরুদ্ধে ভারতের ১৯৬২ সালের সীমান্ত-যুদ্ধেও ভারতের পক্ষে তাদের অংশ নেবার কথা ছিল। তাদের নিয়ে গঠিত হয় একটি রেজিমেন্ট- স্পেশাল ফ্রন্টিয়ার ফোর্স বা এসএফএফ নামে পরিচিত হয় এটি। উত্তর প্রদেশের দেরাদুন-এর কাছে অবস্থিত ছিল এর সদর দফতর। খুব দ্রুত যুদ্ধ শেষ হয়ে যাওয়া চীনের বিরুদ্ধে যুদ্ধে অংশ নেয়া হয়নি এসএফএফ’র।
 কিন্তু বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হবার পর প্রথম যে বিদেশী বাহিনীটি এতে বাংলাদেশের পক্ষে অংশ নিতে কাজ শুরু করে, সেটি হচ্ছে এসএফএফ। আনুষ্ঠানিকভাবে ভারতীয় সেনাবাহিনীর অধীনে নয়, ভারতের সহযোগিতায় তাদের পাশাপাশি যুদ্ধ করেছে তিব্বতি গেরিলারা।
 যুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এসএফএফ। কিন্তু তাদের সক্রিয় অংশগ্রহণের ইতিহাস আজ পর্যন্ত আড়ালে পড়ে আছে। বাংলাদেশের মানুষ নিজেদের স্বাধীন দেশ পেয়েছে। কিন্তু ওই তিব্বতিরা আজও ভারতে আশ্রিত’। যুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য ভারতেও কোনো স্বীকৃতি মিলেনি এ দেশহীন মানুষদের।
 গেরিলাদের এক জ্যেষ্ঠ নেতা দাপোন রাতুক নগোয়ান সম্প্রতি তার স্মৃতিকথা প্রকাশ করেছেন। সেখানে নিজেদের লড়াই-সংগ্রামের সঙ্গে উঠে এসেছে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পর্বও।
সময়ে শত্রু-মিত্র বদলে যায়
আর সব যুদ্ধে যেমন হয়, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধেও তিব্বতিদের শত্রু-মিত্রের হিসাব-নিকাশ পাল্টে গিয়েছিল সব। কথা ছিল চীনা বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করতে এসএফএফ’কে সাহায্য করবে ভারতীয় সরকার। কিন্তু কূটনৈতিক আলোচনার মধ্যে চীন-ভারত যুদ্ধ খুব দ্রুত শেষ হয়ে যাওয়ায় মাতৃভূমির দখলদারদের বিরুদ্ধে লড়া হয়নি তিব্বতিদের।
 পরে বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধ শুরু হলে ভারতের ‘র’ বা রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালিটিকাল উইয়েংর পরামর্শ অনুযায়ী তিব্বতিদের এক বিশেষ অভিযানে নামানোর উদ্যোগ নেয় দেশটির সরকার। রাতুক নগোয়ানের পদবি তখন তিব্বতি ভাষায় দাপোন’, ইংরেজিতে ব্রিগেডিয়ার। ভারতের প্রস্তাবের পর ব্রিগেডিয়ার রাতুকের ভাষায়, তিব্বতের নির্বাসিত সরকারের দিল্লীস্থ সদর-দফতর থেকে গেরিলাদের বলা হয় এ যুদ্ধে যাবার কোনো বিকল্প নেই’।
 স্মৃতিকথা প্রকাশের ব্রিগেডিয়ার রাতুক এনগোয়ান এক সাক্ষাৎকারে মন্তব্য করেছেন, ‘‘যদিও গেরিলা যুদ্ধে চীনের বিরুদ্ধে লড়ার কথা ছিল আমাদের, কিন্তু বাংলাদেশের যুদ্ধের সময় আমাদের প্রথম প্রধান শত্রু হলো মিজোরা। তিব্বতিদের যেমন ভারত প্রশিক্ষণ দিয়েছে, মিজো যোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ দিয়েছে পাকিস্তান।’’
 প্রসঙ্গত, ভারত শাসিত সাতবোন অঞ্চলের স্বাধীনতাকামী গেরিলাদের তখনকার পূর্ব-পাকিস্তান ভূখণ্ডে বিশেষত পার্বত্য এলাকায় আশ্রয় ও প্রশিক্ষণ সহযোগিতা দিত পশ্চিম পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠী। মিজো যোদ্ধারা তখন স্বাধীন মিজোরাম দেশ প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ে লিপ্ত।
 ব্রিগেডিয়ার রাতুকের বিবরণ থেকে জানা যায়, পার্বত্য চট্টগ্রাম সীমান্তবর্তী মিজোরামের দেমাগিরি ঘাঁটিতে মোতায়েন হবার পর পাকিস্তানের বাহিনীর বিরুদ্ধে নয়- তিব্বতি কমান্ডোরা প্রথম ও প্রধান লড়াইটা করেছে মিজো গেরিলাদের বিরুদ্ধেই।
 চীনের শাসনের বিরুদ্ধে মাতৃভূমি তিব্বতের অধিকার আদায়ের লড়াই করার জন্যই ভারতের সহযোগিতা নিয়েছিলেন রাতুক আর সহকর্মীরা। কিন্তু ভারতের হয়ে তাদের এমন এক শত্রুর বিরুদ্ধে প্রথমেই লড়তে হলো, যে মিজো যোদ্ধারাও লড়ছিল মাতৃভূমির স্বাধীনতার জন্য। অন্যদিকে পার্বত্য চট্টগ্রামে শেষ পর্যন্ত পাকিস্তানী বাহিনীর বিরুদ্ধে তিব্বতি গেরিলাদের বিজয় বাংলাদেশের স্বাধীনতার পথ প্রশস্ত করে।
মুক্তিবাহিনীর ছদ্মাবরণে তিব্বতিদের জয়যাত্রা
একাত্তরের নভেম্বর মাসে মিজোরাম সীমান্ত দিয়ে ঢুকে তিব্বতি বাহিনী পাকিস্তানী ঘাঁটিগুলো জয় করতে শুরু করে। পার্বত্যাঞ্চলে প্রচুর সম্মুখ যুদ্ধ হয়। প্রধানত বিভিন্ন সেতু ধ্বংস করার কাজ করে তিব্বতি বাহিনী। কালুর ঘাট বেতার কেন্দ্র এবং কাপ্তাই বাঁধে আক্রমণ করে।
 যুদ্ধের শেষের দিকে পাকিস্তানী বাহিনীর ৯৭ নম্বর ব্রিগেড ও দ্বিতীয় কমান্ডো ব্যাটালিয়ন পার্বত্য পথ ধরে বার্মায় পিছু হটতে চাইলে তিব্বতি বাহিনী সাফল্যের সঙ্গে তাদের প্রতিরোধ করে।
 যুদ্ধে এসএফএফ’র মোট ৫৬ জন সদস্য শহীদ হয়। বিগ্রেডিয়ার রাতুকের সম্প্রতি প্রকাশিত স্মৃতিকথা ছাড়াও এ যোদ্ধাদের কর্মকাণ্ডের আংশিক বিবরণী পাওয়া যায় বাহিনীটির আনুষ্ঠানিক কমান্ডার জেনারেল এসএস উবান-এর দি ফ্যান্টমস অফ চিটাগং: ফিফথ আর্মি ইন বাংলাদেশ’ নামের বইতেও।
 যুদ্ধ শেষে ৫৮৪ জন্য যোদ্ধাকে নগদ অর্থ উপহার দেয় ভারত সরকার। কোনো সম্মাননা মেলেনি। আইনগতভাবে প্রকাশ্যে ভারতে আশ্রিত তিব্বতিদের কোনো ‘রাজনৈতিক’ বা সামরিক’ কর্মকাণ্ডে জড়ানো নিষেধ। অন্যদিকে আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক ঝামেলা’ এড়াতে ভারত সরকার বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে তিব্বতি এ বাহিনীর পরিচয় দিতো মুক্তি বাহিনী’ হিসেবেই। মুক্তি বাহিনী’র ছদ্মাবরণেই আজো ঢেকে আছে তিব্বতি বীরদের সাফল্য ও সম্মান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ