ঢাকা, শনিবার 27 October 2018, ১২ কার্তিক ১৪২৫, ১৬ সফর ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

শ্রীনগরে ইউনিয়ন পরিষদের জায়গায় সেনিটারী ব্যবসা

মুন্সীগঞ্জ সংবাদদাতা : মুন্সীগঞ্জ শ্রীনগরের বাড়ৈখালী ইউনিয়ন পরিষদের জায়গা দখল করে দীর্ঘ দিন ধরে  জমজমাট সেনিটারী ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। এ ক্ষেত্রে প্রশাসন দেখেও না দেখার ভান করছেন বলে মনে করছেন স্থানীয় সচেতন মহল। রবিবার (২১ অক্টোবর) সরেজমিন ঘুরে এ সব তথ্য পাওয়া যায়।
সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার বাড়ৈখালী ইউনিয়ন পরিষদের জায়গার ভিতরে দক্ষিন পাশে  একই ইউনিয়নের শিবরামপুর গ্রামের ছালেম শেখের ছেলে দীর্ঘদিন ধরে এই সেনেটারি ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। ইউনিয়ন পরিষদের পূর্ব পাশের্^ মদিনা ট্রেডার্স নামে রতন শেখের একটি সেনেটারী দোকান রয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদে প্রবেশ মুখের রাস্তার দু’পাশে সারীবদ্ধ ভাবে রাখা হয়েছে মদিনা ট্রেডার্সের পাকা খুঁটি, রিং, স্লাবসহ নানা ধরনের সেনেটারী মালামাল। প্রায় ৩/৪ বছর ধরে রতন শেখ ইউনিয়ন পরিষদের  ভিতরের অনেকটা জায়গা বাশঁ দিয়ে বেড়া দিয়ে দখল করে সেনেটারী ব্যবসা করে থাকলেও দেখছেন না কেউ। শুধু তাই নয়, হঠাৎ করে ইউনিয়ন পরিষদে প্রবেশ করলে মনে হয়। এটা একটি সেনেটারীর কারখানা।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে এলাকার স্থাানীয় অনেকে জানায়, ইউনিয়ন পরিষদের ভিতরে এভাবে সেনিটারী মালামাল রেখে ব্যবসা করার ফলে সরকারি কিংবা বেসরকারী বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নানা ধরনের সমস্যার সৃষ্টি হয়। এ ছাড়া ইউনিয়ন পরিষদে জায়গায় বাঁশের বেড়া দিয়ে সেনেটেরী ব্যবসা করায় জায়গা সংকুচিত হয়ে যাওয়ার ফলে ইউনিয়ন পরিষদের দৈনন্দিন কাজ ও সরকারি  বিভিন্ন পন্য সামগ্রী বিতরনের ক্ষেত্রে ঘন্টার পর ঘন্টা সাধারন মানুষকে রাস্তায় অপেক্ষা করতে হয়।
স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান এ সব কিছু দেখেও যেন না দেখার ভান করছেন বলে এলাকা বাসীর অভিযোগ। ফলে বিভিন্ন গ্রাম থেকে আগত সাধারন মানুষকে নানা ভোগান্তির শিকার হতে হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় বাড়ৈখালী গ্রামের ৬০ ঊর্ধ্বে এক ব্যক্তি বলেন, আমার জানা মতে উপজেলার কোন ইউনিয়ন পরিষদের জায়গায় কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আছে।
ইউনিয়ন পরিষদের জায়গায় মদিনা ট্রেডার্সের মালিক রতন শেখের সেনেটারী ব্যবসা চালিয়ে যাওয়া বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান সেলিম তালুকদার আমাকে ব্যবসা করার জন্য জায়গাটি দিয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদের জায়গা সেনেটারী ব্যবসা করার জন্য ভাড়া দেওয়া হয়েছে কিনা!
এ বিষয়ে স্থানীয়  ইউপি চেয়ারম্যান সেলিম তালুকদারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রতন এসে আমার কাছে জায়গাটি চাইলে আমি তাকে সেনিটারী ব্যবসা করার জন্য জায়গাটি দেই।
এ ব্যাপারে উপজেলা নিবার্হী অফিসার জাহিদুল ইসলাম এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের আয় বর্ধনে ইউনিয়ন পরিষদ চেযারম্যান ও মেম্বারদের সম্মতি ক্রমে রেজুলেশনের মাধ্যমে ইউনিয়ন পরিষদের জায়গায় দোকান বা মার্কেট নির্মাণ করে ভাড়া দিতে পারে। তবে ব্যক্তিগত সার্থে কেউ যদি পরিষদের জায়গায় কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দেয় তবে তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ