ঢাকা, শুক্রবার 9 November 2018, ২৫ কার্তিক ১৪২৫, ২৯ সফর ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

অ্যাটর্নি জেনারেলকে বরখাস্ত করলেন ট্রাম্প

প্রশ্ন করতে গেলে সিএনএন সাংবাদিকের মাইক কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করছেন এক হোয়াইট হাউস কর্মকর্তা

৮ নবেম্বর রয়টার্স/বিবিসি : যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশন্সকে বরখাস্ত করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

গত বুধবার এক টুইটে ট্রাম্প বলেছেন, “তার কাজের জন্য অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশন্সকে ধন্যবাদ জানিয়েছি আমরা এবং তার শুভকমনা করি!”

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার প্রভাব বিস্তার নিয়ে চলা তদন্ত থেকে সেশন্স নিজেকে সরিয়ে নেওয়ার পর থেকে বারবার তার শীর্ষ আইন কর্মকর্তার সমালোচনা করে আসছিলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

ট্রাম্প জানিয়েছেন, ভারপ্রাপ্ত অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্বপালন করবেন সেশন্সের চিফ অব স্টাফ ম্যাথু হুইটেকার। এ পদে স্থায়ী নিয়োগ পরে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আলাবামার সাবেক সিনেটর ও প্রায় প্রথম থেকেই ট্রাম্পের প্রতি সমর্থন জানানো সেশন্স তার পদত্যাগপত্রে পদ ছাড়ার সিদ্ধান্তটি যে তার নিজের ছিল না তা পরিষ্কার করেছেন।

তারিখবিহীন এক চিঠিতে তিনি লিখেছেন, “প্রিয় প্রেসিডেন্ট মহোদয়, আপনার অনুরোধে আমি আমার পদত্যাগপত্র জমা দিচ্ছি।”

চিঠিতে ট্রাম্পকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেছেন, “সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্বপালনকালে, আমরা আইনের শাসন পুনর্বহাল ও নিশ্চিত করেছি।”    

হোয়াইট হাউসের কর্মকর্তাদের ভাষ্য অনুযায়ী, বুধবার মধ্যবর্তী নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে ট্রাম্পের এক সংবাদ সম্মেলনের আগে ট্রাম্পের চিফ অব স্টাফ জন কেলি সেশন্সকে ডেকে পাঠিয়েছিলেন।

এদিকে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে কথা কাটাকটির কয়েক ঘন্টার মধ্যে সিএনএন এর প্রধান হোয়াইট হাউস সংবাদাতার অনুমতিপত্র স্থগিত করেছে হোয়াইট হাউস।

গত  বুধবার হোয়াইট হাউসে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের এক সংবাদ সম্মেলনে সিএনএনের জিম অ্যাকোস্টার মাইক্রোফোন কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন হোয়াইট হাউসের এক কর্মী, কিন্তু মার্কিন তথ্যমন্ত্রী সারা স্যান্ডার্স জানিয়েছেন ওই সংবাদিকের প্রবেশাধিকার প্রত্যাহার করা হয়েছে কারণ তিনি ‘একজন তরুণী নারীর ওপর হাত রেখেছেন’।

অ্যাকোস্টা স্যান্ডার্সের এ দাবিকে ‘মিথ্যা’ বলে অভিহিত করেছেন।

ওই সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প সিএনএনের এ সংবাদিককে ‘অভদ্র, ভয়ানক ব্যক্তি’ বলে তিরস্কার করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে মধ্য আমেরিকা থেকে অভিবাসীদের একটি বহর যুক্তরাষ্ট্রের দিকে এগিয়ে আসছে, এ সংক্রান্ত প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সাম্প্রতিক এক বিবৃতি চ্যালেঞ্জ করার পর অ্যাকোস্টাকে অপমান করেন ট্রাম্প। 

ট্রাম্পের সঙ্গে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে প্রেসিডেন্টকে দ্বিতীয় আরেকটি প্রশ্ন করার চেষ্টা করেন অ্যাকোস্টা, তখন হোয়াইট হাউসের এক কর্মী সদস্য দ্রুত এগিয়ে এসে অ্যাকোস্টার হাত থেকে মাইক্রোফোন নিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। এ সময় অ্যাকোস্টার বাধায় ওই নারী কর্মী মাইক্রোফোনটি নিতে না পেরে পাশেই বসে পড়েন, গণমাধ্যমে আসা একটি ভিডিওতে এমনটিই দেখা গেছে।

এ সময় ট্রাম্প অ্যাকোস্টাকে বলতে থাকেন, “অনেক হয়েছে, অনেক হয়েছে।”

তারপর তিনি অ্যাকোস্টাকে বসে পড়তে ও মাইক্রোফোন নামিয়ে রাখতে বলেন।

 এরপর ট্র্যাম্প বলেন, “আপনি তাদের হয়ে কাজ করেন এর জন্য নিজেদের নিয়ে লজ্জিত হওয়া উচিত সিএনএনের। আপনারা সারা হাকবিকে (স্যান্ডার্স) নিয়ে যা করেছেন তা ভয়ানক।”    

টুইটারে দেওয়া এক বিবৃতিতে স্যান্ডার্স বলেছেন, “কোনো সাংবাদিক তার হাত দায়িত্ব পালনের চেষ্টারত একজন তরুণী নারীর ওপর রাখবে এটি হোয়াইটস হাউস কখনোই সহ্য করবে না।

 “ঘটনা হচ্ছে তাদের কর্মীরা যে ধরনের আচরণ করে তাতে সিএনএন গর্বিত, এটি শুধু ন্যক্কারজনকই না, এটি প্রত্যেকের প্রতি তাদের সাংঘাতিক অবজ্ঞার একটি উদাহরণ, যাদের মধ্যে তরুণী নারীও রয়েছেন, যিনি এই প্রশাসনেই কাজ করেন।

“আজকের এ ঘটনার ফলে হোয়াইট হাউস এ ঘটনায় জড়িত ওই সাংবাদিকের অনুমতিপত্র পরবর্তী নোটিশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত করছে।”

এক টুইটে অ্যাকোস্টা জানিয়েছেন, হোয়াইট হাউসের ভিতরে প্রবেশ করার সময় তাকে বাধা দিয়েছে সিক্রেট সার্ভিস। হোয়াইট হাউসে অ্যাকোস্টার প্রবেশানুমতি প্রত্যাহারের নিন্দা জানিয়েছেন সাংবাদিকরা।

এই সিদ্ধান্তকে ‘অনৈতিক’ ও ‘অগ্রহণযোগ্য’ বলে অভিহিত করেছে হোয়াইট হাউস কোরেসপন্ডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন।

“তাৎক্ষণিকভাবে এই দুর্বল ও বিপথগামী পদক্ষেপ বাতিল করার জন্য হোয়াইট হাউসের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি আমরা,” এক বিবৃতিতে বলেছে অ্যাসোসিয়েশন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ