ঢাকা, সোমবার 12 November 2018, ২৮ কার্তিক ১৪২৫, ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

তফসিল পেছাতে ইসিতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট যুক্তফ্রন্ট ও ইসলামী আন্দোলনের চিঠি

স্টাফ রিপোর্টার: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল এক মাস পিছিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব দিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার কাছে চিঠি দিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
গতকাল রোববার বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশনে গিয়ে এই চিঠি পৌঁছে দেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য বিজন কান্তি সরকার, সাবেক ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার আবদুল বারী ও বিএনপি চেয়ারপার্সনের গুলশান কার্যালয়ের গণমাধ্যম শাখার কর্মকর্তা শাইরুল কবির খান। 
এদিকে ভোট গ্রহণের দিন এক সপ্তাহ পেছানোর দাবি জানিয়ে চিঠি দিয়েছে বি. চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্ট ও ইসলামী আন্দোলন।
 ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, আগামী ১৯ নবেম্বর রাজনৈতিক দলগুলোর মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ তারিখ। মির্জা ফখরুল গতকাল রোববার চিঠিতে জানিয়েছেন, এত অল্প সময়ের মধ্যে সব কাজ শেষ করে মনোনয়নপত্র দাখিল করা সম্ভব না। তাই, সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে এই তফসিল এক মাসের জন্য পিছিয়ে দিতে অনুরোধ জানান তিনি।
চিঠিতে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, 'বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি), ২০ দলীয় ঐক্যজোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গণতন্ত্র উদ্ধারের অংশ হিসেবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। অধিকাংশ রাজনৈতিক দলের মতামতকে উপেক্ষা করে তড়িঘড়ি করে নির্বাচন কমিশন যে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করেছে তা গ্রহণযোগ্য নয়। কারণ, এত সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যে সব রাজনৈতিক দলগুলোর পক্ষে বিভিন্ন কার্যক্রম সম্পন্ন করে মনোনয়নপত্র দাখিল করা কোনোভাবেই সম্ভব নয়। যা ইতিমধ্যে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়েছে। অতএব, সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে নির্বাচনী সিডিউল এক মাস পিছিয়ে দিতে বিশেষভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি।
এদিকে গতকাল বিকেল সাড়ে তিনটায় ইসিতে বি. চৌধুরীর চিঠি নিয়ে যান বিকল্পধারার সাংগঠনিক সম্পাদক ওমর ফারুক, বিকল্পধারার প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুর রউফ মান্নানসহ দলের আরও কয়েকজন।
বি. চৌধুরীও তার চিঠিতে বলেছেন, ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী স্বল্পসময়ে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র গ্রহণ, যাচাই-বাছাই, সাক্ষাৎকার গ্রহণ ইত্যাদি ব্যবস্থা গ্রহণ কঠিন হবে। তিনি বলেন, মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার তারিখ এক সপ্তাহ পিছিয়ে ১৯ নবেম্বরের পরিবর্তে ২৬ নবেম্বর করা হোক। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই ২২ নবেম্বরের পরিবর্তে ২৯ নবেম্বর, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার ২৯ নবেম্বরের পরিবর্তে ৫ ডিসেম্বর করা হোক। অনুরূপভাবে ভোটগ্রহণের তারিখ ২৩ ডিসেম্বরের পরিবর্তে ৩০ ডিসেম্বর করার প্রস্তাব করেন।
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ নির্বাচন এক সপ্তাহ পিছিয়ে দেয়ার দাবি জানিয়েছে। গতকাল পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দলটির আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম বলেন, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল নির্বাচন পিছিয়ে দেয়ার ব্যাপারে একমত হয়েছে। কমপক্ষে এক সপ্তাহের জন্য হলেও নির্বাচন পিছিয়ে দিয়ে নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি করে সকল রাজনৈতিক দলকে নির্বাচনে অংশগ্রহণের সুযোগ দিতে হবে। তারা আজ সোমবার নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সাক্ষাৎ চেয়ে নির্বাচন কমিশনকে একটি চিঠি দিয়েছে।
গত ৮ নবেম্বর জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন সিইসি কে এম নূরুল হুদা। তিনি জানান, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ তারিখ ১৯ নবেম্বর সোমবার। মনোনয়ন বাছাইয়ের শেষ তারিখ ২২ নবেম্বর বৃহস্পতিবার। মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৯ নবেম্বর বৃহস্পতিবার। ২৩ ডিসেম্বর রোববার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ