ঢাকা, বৃহস্পতিবার 13 December 2018, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৫ রবিউস সানি ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ঐক্যফ্রন্টে ভীড়লেন আ’লীগের সাবেক অর্থমন্ত্রীর ছেলে রেজা কিবরিয়া

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে ভীড়লেন আ.লীগ সরকারের সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ শাহ এ এম এস কিবরিয়ার ছেলে ও অর্থনীতিবিদ ড.রেজা কিবরিয়া। তিনি ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করতে চান এবং ইতোমধ্যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।আর এ জন্য তিনি ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন গণফোরামে যোগ দিয়েছেন। হবিগঞ্জ-১ (নবীগঞ্জ-বাহুবল) আসনে নির্বাচন করতেই তিনি গণফোরামে যোগ দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

আচমকা তার এ ঘোষণায় আলোড়ন তুলেছে হবিগঞ্জে।

আওয়ামী লীগ, বিএনপি উভয় দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে কৌতুহল বিরাজ করছে রেজা কিবরিয়ার প্রার্থিতার ঘোষণা নিয়ে।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও বিষয়টি নিয়ে ঝড় উঠে।

দলীয় নেতাকর্মীসহ হবিগঞ্জের সাধারণ মানুষ ড. রেজা কিবরিয়ার এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে। স্থানীয়রা বলছেন, হবিগঞ্জের উন্নয়নে রেজা কিবরিয়ার বাবার বহু অবদান রয়েছে। ব্যক্তি জীবনে ড. রেজা কিবরিয়া ক্লিন ইমেজের মানুষ। তিনি নির্বাচিত হলে পিতার মতই সাধারণ মানুষের জন্য কাজ করবেন এমন আশা তাদের।

১৯৯৬ সালের আওয়ামী লীগ সরকারের সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া গ্রেনেড হামলায় নিহত হন।

ড. রেজা কিবরিয়ার বিরুদ্ধে ১/১১ এর সময়ে দলের বিরুদ্ধে বিতর্কিত ভূমিকা রাখার অভিযোগ উঠে। তার গায়ে এটে যায় সংস্কারপন্থী তকমা।

এ কারণে ২০০৮ ও ২০১৪ সালের সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন পাননি রেজা। এবারও আওয়ামী লীগ থেকে তার মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা কম।তাই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে প্রার্থী হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন রেজা কিবরিয়া।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শরিক গণফোরাম থেকে শুক্রবার তিনি মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। তিনি নিজেই এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মনোনয়ন সংগ্রহের পর তিনি জানান, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মনোনয়ন দিলে তিনি ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করবেন। হবিগঞ্জ-১ (নবীগঞ্জ-বাহুবল) থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ইচ্ছাও পোষণ করছেন তিনি।

ড. রেজা কিবরিয়া নবীগঞ্জ উপজেলার দেবপাড়া ইউনিয়নের জালালসাপ গ্রামের এক মুসলিম পরিবারে ১৯৫৭ সনের ৬ মার্চ জন্মগ্রহণ করেন।

জালালসাপ গ্রামেই তার শৈশব কেটেছে। কৈশোর আর যৌবনের বেশিরভাগ সময় কেটেছে বিদেশে।

তিনি বর্তমানে জাতিসংঘে কাজ করছেন এবং তিনি কম্বোডিয়ার সরকারের অর্থনৈতিক উপদেষ্টা হিসেবে এখনো কর্মরত আছেন।

তার বাবা শাহ এএসএমকিবরিয়া ছিলেন জাতিসংঘের সেক্রেটারি আওয়ামী লীগ সরকারের সাবেক অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী।

২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জের বৈদ্যারবাজারে এক জনসভায় গ্রেনেড হামলায় নিহত হন।

এরপর ২০০৬ সালে রেজা কিবরিয়া আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পান। পরে সংস্কারপন্থি দলে চলে যাওয়ায় তার পরিবর্তে ২০০৮ সালে দেওয়ান ফরিদ গাজীকে এ আসনে মনোনয়ন দেওয়া হয়। পরে ২০১০ সালে দেওয়ান ফরিদ গাজী মৃত্যুবরণ করলে উপনির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী শেখ সুজাত মিয়া নির্বাচিত হন। ২০১৪ সালে ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জাতীয় পার্টির এমএ মুনিম চৌধুরী বাবু এ আসন থেকে নির্বাচিত হন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ