ঢাকা, রোববার 18 November 2018, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

অবাধ সুষ্ঠু  নির্বাচনের জন্য পুরো জাতি  নির্বাচন কমিশনের দিকে তাকিয়ে  -------নির্বাচন কমিশনার শাহাদাত

 

স্টাফ রিপোর্টার : নির্বাচন কমিশনার অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার শাহাদাত হোসেন চৌধুরী বলেছেন,   দেশের ভবিষ্যতের জন্য একটা সুষ্ঠু নির্বাচন অপরিহার্য। গতকাল শনিবার সকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচনী প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে (ইটিআিই) আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

শাহাদাত হোসেন চৌধুরী বলেন, আমি, আপনি আমরা সবাই এই দেশের নাগরিক। আমরা বিশ্বাস করি, এ দেশের ভবিষ্যতের জন্য একটা সুষ্ঠু নির্বাচন অপরিহার্য। একটা সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমেই জনগণের প্রত্যাশিত সরকার গঠিত হতে পারে। যারা এই দেশটাকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

একটি অবাধ সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য পুরো জাতি নির্বাচন কমিশনের (ইসি) দিকে তাকিয়ে আছে জানিয়ে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা জাতির সে প্রত্যাশা পূরণে বদ্ধপরিকর।

নির্বাচন কমিশন একটা প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন চায় না জানিয়ে এই নির্বাচন কমিশনার বলেন, মাঠ পর্যায়ে যারা কাজ করছেন, তাদের সবসময় আমরা বলে থাকি, আপনারা হলেন কমিশনের অঙ্গপ্রতঙ্গ। প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং চারজন কমিশনারের সমন্বয়ে গঠিত নির্বাচন কমিশন চায়, একটা সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ এবং সকলের গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠান।

এ সময় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে প্রশিক্ষকদের প্রশিক্ষণ (টিওটি) ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার ও ইএমএস, সিআইএমএস ও আরএমএস সফটওয়ার বিষয়ক প্রশিক্ষণের উদ্বোধন করেন শাহাদাত হোসেন।

এর আগে প্রশিক্ষণার্থীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমরা চাই, যারাই নির্বাচনে আসুক আপনারা প্রত্যেকে দল-মত নির্বিশেষে নিরপেক্ষতা বজায় রাখবেন। আপনাদের নিরপেক্ষতা নিয়ে কোনো রকমের প্রশ্ন উঠলে নির্বাচন কমিশন আইনানুগ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেবে। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করার জন্য যা যা করা প্রয়োজন তাই করবে কমিশন ।

নিরপেক্ষতা নিয়ে কোনো প্রশ্ন উঠলে নির্বাচন কমিশন আইনানুগ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেবে বলেও সতর্ক করেন নির্বাচন কমিশনার। তিনি এ সময়, উপজেলা ও থানা নির্বাচন কর্মকর্তাদের নির্বাচন সংক্রান্ত সকল কাজ আইনানুগ ভাবে করার পাশাপাশি নিরপেক্ষতা বজায় রাখার নির্দেশনা দেন।

 

এবারের নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে শাহাদাত হোসেন চৌধুরী জানান, নিবন্ধিত দলের বাইরে অনেক অনিবন্ধিত দল জোটগতভাবে নির্বাচনে অংশ নিতে যাচ্ছে। নির্বাচন অত্যন্ত প্রতিযোগিতাপূর্ণ হবে। সব দল অংশ নেওয়ায় কমিশন আনন্দিত।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তেব্য ইটিআই মহাপরিচালক মোস্তফা ফারুক বলেন, নির্বাচন সংক্রান্ত সকল কাজ আইনানুগ ভাবে করতে হবে ও নিরপেক্ষতা বজায় রাখতে হবে। তিনি বলেন, এবারের নির্বাচন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। নির্বাচনের কাজে কোনো ধরনের অবহেলা হলে কমিশন তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবে।

প্রসঙ্গত, কমিশনের পুনঃতফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ২৮ নবেম্বর, মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের দিন ২ ডিসেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ৯ ডিসেম্বর এবং ভোটের দিন ৩০ ডিসেম্বর।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ