ঢাকা, রোববার 16 December 2018, ২ পৌষ ১৪২৫, ৮ রবিউস সানি ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

অসুস্থ নন, তারপরও হাসপাতালে ভর্তি এরশাদ

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:

সাবেক প্রেসিডেন্ট এবং জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর এ নিয়ে নানা গুঞ্জন শুরু হয়েছে।বিবিসি বাংলার সাথে এক সাক্ষাৎকারে দলর্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার জানিয়েছেন, এরশাদ অসুস্থ্য নন, শুধুমাত্র রুটিন চেক-আপের জন্যই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন তিনি এবং সেখানে কয়েকদিন থাকতে হতে পারে তাকে। 

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগেও এইচ এম এরশাদকে সামরিক হাসপাতালে নেয়া হয়েছিল। সেবার নির্বাচনে যাবেন না বলে ঘোষণা দেয়ার পরই তাঁকে জোর করে সামরিক হাসপাতালে নেয়া হয়েছিল বলে অভিযোগ উঠেছিল।

শেখ হাসিনার সঙ্গে দুই সাবেক প্রেসিডেন্ট বদরুদ্দোজা চৌধুরি এবং এইচ এম এরশাদ। এবারের নির্বাচনেও কি তারা এক নৌকায়?

সেবার বিএনপি জামায়াত সহ সকল বিরোধী দল নির্বাচন বর্জন করায় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদও নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছিলেন।তখন র‍্যাব তাকে ধরে নিয়ে সিএমএইচ হাসপাতালে ভর্তি করে এবং রওশন এরশাদের নেতৃত্বে জাতীয় পার্টির একাংশ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে। 

তবে এবারের প্রেক্ষাপট ভিন্ন।তবে এবার সব বিরোধী দল জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে।তারপরও রাজনীতিতে মিঃ আনপ্রেডিক্টেবল খ্যাত সাবেক স্বৈরশাসক এরশাদের হাসপাতালে ভর্তি হওয়া নিয়ে রাজনীতিবিদদের নানা কৌতুহল জন্ম দিয়েছে।

যা ঘটেছিল ২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে

২০১৩ সালে জাতীয় পার্টির নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে ব্যাপক টানাপোড়েন তৈরি হয়েছিল। শুরুতে নির্বাচনে অংশগ্রহণের কথা থাকলেও ৩রা ডিসেম্বর হঠাৎ করে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন এরশাদ। তিনি বলেছিলেন, সব দল নির্বাচনে অংশ না নেয়ায় তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

জাতীয় পার্টির এই সিদ্ধান্ত তখন আওয়ামী লীগ সরকারকে ভীষণ বিপাকে ফেলেছিল। 

এরকম এক পটভূমিতে ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে সাবেক প্রেসিডেন্ট এরশাদকে র‍্যাব আটক করেছে বলে খবর প্রকাশিত হয় ঢাকার পত্রিকায়। তবে র‍্যাবের পক্ষ থেকে তখন বলা হয়েছিল, তিনি আটক হননি, তাকে চিকিৎসার জন্য সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।এরপর বেশ কিছুদিন এরশাদকে সামরিক হাসপাতালে কাটাতে হয়েছিল।তার সঙ্গে দেখা-সাক্ষাতের ক্ষেত্রে নানা বিধিনিষেধ ছিল। এই অবস্থায় রওশন এরশাদের নেতৃত্বে দলের একটি অংশ নির্বাচনে অংশ নেয়।অপর অংশ নির্বাচন বয়কট করে।

তখন দলের কোন কোন নেতা তখন দাবি করেছিলেন, এরশাদ অসুস্থ নন। কথিত 'অসুস্থ' অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকলেও এরশাদকে গলফ খেলতে দেখা গেছে বলেও সেসময় পত্র-পত্রিকায় খবর প্রকাশিত হয়।

সূত্র:বিবিসি বাংলা

ডিএস/এএ্ইচ

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ