ঢাকা, সোমবার 3 December 2018, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

কুয়েটে ২৩০ শিক্ষার্থীকে আর্থিক জরিমানা ও মার্ক কর্তনের শাস্তি

খুলনা অফিস : নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের দিন পরীক্ষায় অংশ না নেয়ায় খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় ও চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের শাস্তিমূলক ব্যবস্থার সিদ্ধান্ত নিয়েছে একাডেমিক কাউন্সিল। কাউন্সিলের কতিপয় সদস্যের প্রতিবাদ সত্ত্বেও দুই শিক্ষাবর্ষের ২৩০ জন শিক্ষার্থীর প্রত্যেককে ৫০০ টাকা জরিমানা এবং তাদের অর্জিত মার্কের ৫ শতাংশ কেটে নেয়া নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বলে জানা গেছে।

কুয়েট সূত্র জানায়, গত আগস্টে সারাদেশে নিরাপদ সড়ক আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে। কুয়েটের ছাত্র-ছাত্রীরাও সে আন্দোলনে জড়িয়ে পড়ে। আন্দোলন চলার মধ্যে ৫ আগস্ট মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় ও চতুর্থ বর্ষের টার্ম ফাইনাল পরীক্ষা ছিল। সেদিন সকালে শিক্ষার্থীরা বিভাগের সামনে মানববন্ধন পালন করে এবং বিভাগীয় প্রধানকে তারা পরীক্ষায় অংশ নেবে না বলে অবহিত করে। ওইদিন বিভাগের শিক্ষকরা সভা করে পরীক্ষা দুপুরের পরে গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু ছাত্র-ছাত্রীদের কেউ অংশ নিতে না আসায় পরীক্ষা নেয়া যায়নি।

এরপর গত ২৫ নবেম্বর অনুষ্ঠিত একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়। সে সভায় শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার প্রস্তাব ওঠে। কাউন্সিলের সদস্যদের কেউ কেউ মার্ক কেটে নেয়ার বিপক্ষে যুক্তি তুলে বলেন, পাঁচ শতাংশ মার্ক কেটে নিলে ছাত্র-ছাত্রীরা গ্রেডিং পয়েন্টে পিছিয়ে পড়বে এবং ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এছাড়া কিছু ছাত্র-ছাত্রী আন্দোলনে অংশ নেয়নি, তাদেরকে শাস্তি দেয়াটাও যথার্থ হবে না। কিন্তু তাদের মতামত গৃহীত হয়নি। এখন শিক্ষার্থীদের মার্ক কর্তন ও জরিমানা প্রদানের শাস্তি ভোগ করতে হবে। একই সাথে বর্তমান টার্মের ৫ বিষয়ের সাথে আরও একটি বিষয়ের পরীক্ষা দিতে হবে।

এ ব্যাপারে মার্ক কাটা গেলে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন স্বীকার করে শাস্তিপ্রাপ্ত দুই বর্ষের ছাত্ররা বলেন, আমরা ভুল করেছি। শিক্ষকরা আমাদের অভিভাবক। তারা শাস্তি দিলে আমাদের করার কিছু নেই।

কুয়েটের রেজিস্ট্রার জি এম শহিদুল আলম বলেন, ‘নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের জন্য নয়, নির্ধারিত দিনে পরীক্ষা না দেয়ায় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে, নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের নেপথ্যে পরীক্ষা পেছানোর দাবিতেই ক্যাম্পাসে আন্দোলন করেছিল শিক্ষার্থীরা। নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছিল; কেন ওই ডিপার্টমেন্টের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় বসলো না?’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ