ঢাকা, বৃহস্পতিবার 6 December 2018, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ২৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

রংপুর-৫ (মিঠাপুকুর) আসন হাইকোর্টের নির্দেশে ২০ দলীয় জোটের ধানের শীষের প্রার্থী গোলাম রব্বানীর মনোনয়নপত্র দাখিল

মোহাম্মদ নুরুজ্জামান, রংপুর অফিস : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রংপুর-৫ (মিঠাপুকুর) আসনে ২০ দলীয় জোটের বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী ও বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর রংপুর জেলার পলিটিক্যাল সেক্রেটারি অধ্যাপক গোলাম রব্বানীর মনোনয়নপত্র হাইকোর্টের নির্দেশে গতকাল বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় রংপুরের জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্তকর্তা এনামুল হাবীবের কাছে জমা দিয়েছেন প্রস্তাবক ও সমর্থকদের উপস্থিতিতে তাঁর আইনজীবরা।
এ সময় রংপুর আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট আব্দুল কাইউম ম-ল, একরামুল হক, বায়েজিদ ওসমানী, আফতাব উদ্দিন, আব্দুল হাদী বেলাল, জাভেদ ইকবাল, কাওছার আলী, আব্দুল হাকিম, আরিফা বেগম, মাইদুল ইসলামসহ জাতীয়তাবাদী দল এবং জামায়াতে ইসলামী সমর্থিত রংপুর আইনজীবী সমিতির বেশ কয়েকজন সদস্য সেখানে উপস্থিত ছিলেন।
 মনোনয়নপত্র গ্রহণ করে জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা এনামুল হাবীব সাংবাদিকদের জানান, উচ্চ আদালতের নির্দেশে গোলাম রব্বানীর মনোনয়নপত্র গ্রহণ করা হয়েছে। যাচাই-বাছাই শেষে এ বিষয়ের সিদ্ধান্ত নির্বাচন কমিশনকে জানানো হবে।
 এদিকে অধ্যাপক গোলাম রব্বানীর আইনজীবীরা মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে প্রস্তাবক ও সমর্থকদের সাথে নিয়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে বের হওয়ার পরপরই জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মুখ সড়কে কাচারী বাজার মোড়ে একদল পুলিশ অধ্যাপক গোলাম রব্বানীর প্রস্তাবক ওমর ফারুক ওয়াহেদীকে (৫০) কোনো পরোয়ানা ছাড়াই গ্রেফতার করে তাঁকে মিঠাপুকুর থানার পুলিশের নিকট তাৎক্ষণিকভাবে হস্তান্তর করেন। এ সময় উপস্থিত আইনজীবীরা প্রতিবাদ জানালেও পুলিশ তা কর্ণপাত করেনি। অধ্যাপক গোলাম রব্বানীর আইনজীবী এডভোকেট বায়েজিদ ওসমানী জানান, প্রস্তাবক এবং সমর্থকদের যে সব মামলা ছিল হাইকোর্ট থেকে তাঁরা সেসব মামলায় জামিনে রয়েছেন। এই ঘটনায় রংপুর আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট আব্দুল কাইউম ম-লসহ উপস্থিত আইনজীবীরা তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করেন এবং সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে অবিলম্বে ওমর ফারুক ওয়াহেদীকে মুক্তি দেয়ার দাবি জানান। পরে বিকেল ৫টায় আইনজীবীরা মুচলেকা দিয়ে তাকে মুক্ত করেন।
উল্লেখ, গোলাম রব্বানীর  করা এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ৩ ডিসেম্বর সোমবার বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের বেঞ্চ এ আদেশ দেন। গোলাম রব্বানীর পক্ষে আইনজীবী ছিলেন এজেএম মোহাম্মদ আলী। শুনানিতে তাকে সহযোগিতা করেন আডভোকেট শিশির মনির ও ব্যারিস্টার ইমরান এ সিদ্দিকী। জানা গেছে, গত ২৮ নবেম্বর রংপুরের জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্তকর্তা এনামুল হাবীবের কাছে মনোনয়নপত্র দাখিল করতে গেলে গোলাম রব্বানীর প্রস্তাবক ও আইনজীবীকে পুলিশ বাধা দেয়। এ সময় বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে মনোনয়নপত্র দাখিলে বাঁধার সৃষ্টি করে কালক্ষেপণ করতে থাকেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। এক পর্যায়ে সময় উত্তীর্ণের অজুহাত দেখিয়ে মনোনয়নপত্র গ্রহণ করা হয়নি।
এ ব্যাপারে গত শনিবার তাঁর পক্ষ থেকে  নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দেয়া হয়। কিন্তু নির্বাচন কমিশন থেকে সুস্পষ্ট কোনো সিদ্ধান্ত না পাওয়ায় ২ ডিসেম্বর রোববার হাইকোর্টে রিট করা হয়। গত সোমবার এর শুনানি শেষে হাইকোর্ট গোলাম রব্বানীর মনোনয়নপত্র গ্রহণের পক্ষে রায় দেন। রংপুর-৫ (মিঠাপুকুর) আসনে বর্তমান এমপি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ এইচ এন আশিকুর রহমান। তিনি এবারও এই আসন থেকে নির্বাচনে অংশ নিতে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। মনোনয়ন যাচাই-বাছাই শেষে ২ ডিসেম্বর রোববার এ আসনে দুই বিএনপি প্রার্থীসহ ৪ জনের মনোনয়ন বাতিল করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।
উল্লেখ্য, জামায়াত নেতা গোলাম রব্বানী ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত মিঠাপুকুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে প্রায় ১ লাখ ২৮ হাজার ভোট পেয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাকির হোসেনকে পরাজিত করে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। বিগত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বেশ কয়েকটি মামলায় তিনি প্রায় সাড়ে ৪ বছর কারাগারে আটক থাকেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ