ঢাকা, শনিবার 8 December 2018, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ২৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

চট্টগ্রামে জামায়াত ইসলামীর নারী কর্মী সন্দেহে ৩ নারীকে গ্রেফতার

চট্টগ্রাম ব্যুরো : চট্টগ্রামে গত ৫ ডিসেম্বর রাতে জামায়াত ইসলামীর নারী কর্মী সন্দেহে ৩ নারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলো- ১) জেসমিন আক্তার (২৯), পিতা-আব্দুল হাশেম, স্বামী-বেলাল হোসেন, মাতা- খাদিজা বেগম, সাং- ভেলু মিয়া, রাড়ি বাড়ী, থানা- ভোলা সদর, জেলা- ভোলা ২) শাহানারা বেগম (৩৮) পিতা-মোহাম্মদ মোশারফ হোসেন, স্বামী-মৃত মোঃ ইব্রাহীম ছোট্টু, মাতা-জাহেরা বেগম, সাং-রানী গ্রাম, মোশারফের বাড়ী, থানা-হাতিয়া, জেলা- নোয়াখালী ৩) হামিদা আক্তার (৩০), পিতা- বেলায়েত হোসেন তালুকদার, স্বামী-রহমান হাওলাদার, মাতা-মৃত ছালেহা বেগম, সাং-ইকরি, মমিন হাওলাদার বাড়ী, থানা-ভান্ডারিয়া, জেলা-পিরোজপুর, সবার বর্তমান ঠিকানা-কলসী দিঘী রোড, ফেলাগাজী বাড়ি, বায়তুল রিদওয়ান মসজিদ কলোনী, পুকুরের উত্তর পার্শ্বে, ০৮নং রুম, থানা-বন্দর, জেলা-চট্টগ্রাম।

পুলিশ জানিয়েছে, বন্দর নগরী চট্টগ্রামের বন্দর থানাধীন কলসী দিঘী রোড, ফেলাগাজী বাড়ি, বায়তুল রিদওয়ান মসজিদ কলোনী, পুকুরের উত্তর পার্শ্বে, ৮নং রুমে অভিযান পরিচালনা করে ৩(তিন) মহিলা গ্রেফতারসহ বিপুল পরিমাণ জেহাদী বই উদ্ধার করেছে মহানগর গোয়েন্দা (বন্দর) বিভাগ । এসময় তাদের সাথে থাকা অজ্ঞাতনামা কয়েক জন পালিয়ে যায়। পুলিশের দাবী তারা আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে বাধাগ্রস্ত করার উদ্দেশ্যে পরামর্শ করার জন্য সেখানে বৈঠক করতে ছিলো। তারা বিভিন্ন পোশাক কারখানা ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকরির ছদ্মবেশে সংগঠন পরিচালনা এবং নাশকতা সহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড পরিচালিত করে আসছে। গ্রেফতারকৃত ৩ জন আসামী ও অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে বন্দর থানায় নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়েছে।

মুক্তির দাবি জানিয়ে চট্টগ্রাম মহানগরী জামায়াত নেতৃবৃন্দের বিবৃতি : বন্দর থানার কলসী পুকুর পাড় এলাকা থেকে ঘুমন্ত অবস্থায় নিজ নিজ বাসা থেকে পৃথক পৃথক ভাবে গোয়েন্দা পুলিশ ৩ জন নিরীহ মহিলাকে গ্রেফতার করার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে ও অবিলম্বে নি:শর্ত মুক্তির দাবি জানিয়ে জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও চট্টগ্রাম মহানগরী আমীর মাওলানা মুহাম্মদ শাহজাহান ও কেন্দ্রীয় মজলিশে শূরার সদস্য ও চট্টগ্রাম মহানগরী সেক্রেটারি মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম এক যুক্ত বিবৃতি প্রদান করেন।

বিবৃতিতে চট্টগ্রাম মহানগরী জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেন, দেশের ১৬ কোটি মানুষ যখন একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য উম্মুখ হয়ে আছে তখন সরকারের পেটুয়া বাহিনী পুলিশ এখনো নারী-পুরুষ নির্বিশেষে গণগ্রেফতার, গায়েবি মামলা ইত্যাদি দিয়ে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির পায়তারা করছে। সরকার পুলিশ দিয়ে জামায়াত-শিবির ও ২০ দলীয় জোট নেতা-কর্মীদের অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করে নির্বাচন বানচাল করার ষড়যন্ত্র করছে। সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ পরিবেশে বন্দর থানার কলসি দিঘীর পাড় এলাকা থেকে গভীর রাতে গামেন্টর্স কর্মী ও নিরীহ নামাজি মহিলা জেসমিন আক্তার, শাহনারা বেগম ও হামিদা নামে ৩ জন নিরীহ মহিলা কর্মীকে পুলিশ গ্রেফতার করে নিয়ে যায় এবং মিথ্যা অভিযোগে মামলা দায়েরের মাধ্যমে হয়রানি ও নির্যাতনের আমরা তীব্র নিন্দা ও ঘৃনা জানাই। জামায়াত নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে বন্দর থানায় গ্রেফতারকৃত ৩ জন নিরীহ মহিলাকে নি:শর্ত মুক্তি ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জোর দাবি জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ