ঢাকা, সোমবার 10 December 2018, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ২ রবিউস সানি ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

আনন্দ চাকমার অস্ত্র সমর্পণ

আব্দুল্লাহ আল- মামুন, (খাগড়াছড়ি), ৮ ডিসেম্বর: বিদেশি পিস্তল ও গুলীসহ ইউপিডিএফ’র ‘বিচার ও সাংগঠনিক’ পরিচালক আনন্দ চাকমা খাগড়াছড়িতে সেনাবাহিনীর কাছে অস্ত্র সমর্পণ করেছে।
বুধবার রাতে মহালছড়ি সেনা জোনের অধিনায়কের কাছে একটি ইউএস-এ তৈরি পিস্তল, ম্যাগজিনসহ তিন রাউন্ড গুলীসহ আনন্দ চাকমা অস্ত্র সমর্পণ করেন। সে খাগড়াছড়ি জেলার দীঘিনালা উপজেলার মনরঞ্জন চাকমার ছেলে।
বৃহস্পতিবার দুপুরে আনন্দ চাকমা সাংবাদিকদের জানান, আদর্শহীন ইউপিডিএফ’র খুন, গুম, অপহরণ, চাঁদাবাজির কারণে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার আশায় অস্ত্র সমর্পণ করেছেন। সরকার ঘোষণা দিলে অনেক ইউপিডিএফ’র নেতাকর্মী স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার জন্য অপেক্ষা করছে।
আনন্দ চাকমা জানান, রাঙামাটির নানিয়াচর উপজেলা চেয়ারম্যান শক্তিমান চাকমা ও ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিকের প্রধান তপন জ্যোতি ওরফে বর্মাসহ অসংখ্য মানুষকে হত্যা করেছে।
আনন্দ চাকমা জানান, ইউপিডিএফ(প্রসীত) গ্রুপের কাছে একে-৪৭, এসএমজি, চাইনিজ রাইফেল, এলএমজি, একাশি ও এম-১৬ মতো বিপুল ভারী আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে।
রাঙামাটি জেলার নানিয়াচর সার্কেলের বিচার ও সাংগঠনিক শাখার পরিচালক আনন্দ চাকমা জানান, শান্তিবাহিনী, জনসংহতি সমিতি ও গত চার বছর ইউপিডিএফ(প্রসীত) হয়ে কাজ করেছে। জীবনের ৩০ বছর আমি জঙ্গলে জঙ্গলে ঘুরে জীবন যাপন করেছি।
কিন্তু দুঃখের বিষয় পাহাড়ি জনগোষ্ঠির অধিকার আদায় ও তাদের উন্নতির যে লক্ষ্য নিয়ে যুবক বয়সে এই আন্দোলনের সাথে যুক্ত হয়েছিলাম তা থেকে ইউপিডিএফ সম্পূর্ণভাবে বিচ্যুত। ইউপিডিএফ’র কোন নীতি ও আদর্শ নেই।
তারা সকলেই রক্তের নেশা ও ক্ষমতার মোহে পড়ে আছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ