ঢাকা, বৃহস্পতিবার 27 December 2018, ১৩ পৌষ ১৪২৫, ১৯ রবিউস সানি ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

র‌্যাবের টাকা উদ্ধারের ঘটনা নাটক

স্টাফ রিপোর্টার : পুলিশের র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটেলিয়ান (র‌্যাব) এর অভিযানে আমেনা ইন্টারপ্রাইজ থেকে দেড়শ’ কোটি টাকা উদ্ধারের ঘটনাকে ‘নাটক’ বলেছে বিএনপি। গতকাল বুধবার দুপুরে এক সাংবাদিক সম্মেলনে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, নির্বাচনের প্রাক্কালে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের নামও র‌্যাবের অভিযানের ধানের শীষের প্রার্থী মিয়া নুরউদ্দিন অপুকে জড়িয়ে যে কল্পকাহিনী রচিত হয়েছে তা বুঝতে আর কারো বাকি নেই। আপনাদের মনে আছে নিশ্চয় যে, সাবেক সেনা প্রধান জেনারেল মঈন উদ্দিন আহমেদ বলেছিলেন তারেক রহমান নাকী বিদ্যুৎ খাত থেকে ২০ হাজার কোটি টাকা লোপাট করেছেন। অথচ জানা গেলো ৫ বছরে বিদ্যুৎ খাতের বাজেটেই ছিলো ১৩ হাজার কোটি টাকা।
র‌্যাবের মহাপরিচালক একই কায়দায় দুবাই থেকে আসা টাকার মনগড়া কুতসামূলক কাহিনী রচনা করেছেন। মানুষের কাছে বিশ্বাসযোগ্য করার জন্য আওয়ামী নেতারা এই বানোয়াট কাহিনী নিজেরা প্রচার না করে র‌্যাবের মহাপরিচালকের মুখ দিয়ে বলাচ্ছেন। এটা প্রমাণিত যে, শরীয়তপুর-৩ আসনের ধানের শীষের প্রার্থী মিয়া নুরউদ্দিন অপুর উপর হামলার ঘটনা ছিলো পূর্বপরিকল্পিত। এই সহিংস ও ন্যক্কারজনক ঘটনা ঢাকতেই সরকার সুপরিকল্পিতভাবে কোটি কোটি টাকার নাটক মঞ্চস্থ করেছে।
রিজভী অভিযোগ করে বলেন, সরকার রাষ্ট্রের বিভিন্ন বাহিনীকে শত শত কোটি টাকা দিয়ে এরকম কল্পকাহিনী বানিয়ে বাজারজাত করার জন্য বায়োস্কোপ তৈরি করে রেখেছে। যার সাথে সত্যের কোনো লেশমাত্র নেই। নির্বাচনী মাঠ একতরফা করতেই বিভিন্ন বাহিনীকে তারা ব্যবহার করছে। র‌্যাবকেও ব্যবহার করা হচ্ছে এরকম কল্পকাহিনী রচনার জন্য। যেমন বন্দুক যুদ্ধের নামে বিচারবহির্ভূত হত্যার কাহিনী যেমন মানুষ বিশ্বাস করে না, মানুষ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো কর্মকান্ড বিশ্বাস করে না।
তফসিল ঘোষণার পর থেকে পুলিশ-র‌্যাব-বিজিবির নির্বাচনী মাঠ জুড়ে নৌকা প্রতীককে জিতানোর জন্য বেপরোয়া ভাব। এটা গণমাধ্যমে, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া ও সোশ্যাল মিডিয়ায়-এর ভুরিভুরি নিদর্শন রয়েছে। আমরা ফটোসহ আপনাদের দেখিয়েছি যে কী ন্যক্কারজনকভাবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা দলীয় দাসত্ব করছেন, সরকারদলীয় প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করছেন।
দেড়শ’ কোটি টাকার অভিযানের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, একজন প্রার্থী কি জানেন না যে, নির্বাচনে পোস্টার ব্যবহার করা যায় না। তাহলে ওই রঙ্গিন পোস্টার র‌্যাবেরই বানানো, তাদেরই ছাপানো। যেটা দেখাচ্ছেন যে, এখানে নুরউদ্দিন অপুর একজন কর্মকর্তা যিনি অফিস বানিয়েছেন সে (অপু) রঙ্গিন পোস্টার ছাপিয়েছেন। তাহলে এতটুকু কী বুদ্ধি নাই যে, রঙ্গিন পোস্টার ছাপানো নির্বাচনী আচরণ বিধির পরিপন্থি। আসলে মিথ্যার আশ্রয় নিলে, অপকর্ম করতে গেলে তার একটা নিদর্শন রেখে যায়। সেই নিদর্শনই তারা রেখেছে। ওখানে রঙ্গিন পোস্টার আসবে কী করে? বান্ডিল বান্ডিল টাকা এসব রাষ্ট্রেরই টাকা। এটা নাটক। কেউ কী বেকুব আছে নাকী যে, আপনার কোটি কোটি টাকা নিয়ে নিজের অফিসে রাখবে, আবার ধানের শীষের প্রার্থী হয়ে। যারা নিজের ঘরে থাকতে পারছে না, যাদের কর্মী-সমর্থকরা বিভিন্ন জায়গায় আত্মগোপন করে নির্বাচনী প্রচার চালাতে হচ্ছে আর সেই ধানের শীষের প্রার্থী ও তার ঘনিষ্ঠজনরা অফিসের মধ্যে কোটি কোটি টাকা রাখবেন আর চেক দেবেন-এটা পাগলেও বিশ্বাস করবে না।
রিজভী বলেন, এটা নির্বাচনের আগে সরকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দিয়ে বাজারে ছেড়েছে। এটা যদি ওবায়দুল কাদের সাহেব অথবা হানিফ (মাহবুব উল আলম হানিফ) সাহেবকে নিয়ে বলাতেন তখন মানুষ বলবে যে, বলতেই পারেন দলের লোক। কিন্তু একজন সরকারি বাহিনীর প্রধানকে দিয়ে বলেন তাহলে একটা বিভ্রান্তি তৈরি হতে পারে।
এই আশায়, এই চক্রান্তে র‌্যাবের মহাপরিচালকের মুখ দিয়ে এই মিথ্যা নাটকের কথা বলাচ্ছেন। এই কল্পকাহিনী তৈরির জন্য আপনি তাদেরকে কয়দিন আগে তুলে নিয়েছিলেন সেটাও দেশবাসী জানতে চায়। রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে ৮শ’ কোটি টাকা লুট হয়ে গেলো, ব্যাংকের ভোল্টের স্বর্ণ তামা হয়ে গেলো, লক্ষ লক্ষ টন কয়লা গিলে ফেলা হলো? সাগর-রুনি হত্যার তদন্ত তো র‌্যাবই করেছে। আজো কেনো এ লুট হওয়া টাকা কয়লা, সোনা উদ্ধার হয়নি, আজো কেনো সাগর-রুনি হত্যাকারী ধরতে পারেনি র‌্যাব? ডিজি সাহেব এই প্রশ্নগুলোর উত্তর দেবেন কী? যারা লাখ লাখ টাকা বিদেশে পাচার করে সেকেন্ড হোম ও বেগম পল্লী বানিয়েছে তারা ধরা-ছোঁয়ার বাইরে কেনো?
তিনি বলেন, তফসিল ঘোষণার পর থেকে গতকাল পর্য়ন্ত সারাদেশে গ্রেফতারের সংখ্যা ৮ হাজার ২৪৩ জন। গায়েবি ও মিথ্যা মামলার সংখ্যা ৭৭৩টি, মোট হামলা হয়েছে ২ হাজার ৬৯৩টি। এই সময়ে আহত হয়েছে ১২ হাজার ৩৫৩ জন ও ৪ জনকে হত্যা করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ