ঢাকা, শুক্রবার 28 December 2018, ১৪ পৌষ ১৪২৫, ২০ রবিউস সানি ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

সিডনির ৩৮ তলা আবাসিক ভবনে ‘নিরাপত্তা ঝুঁকি’

২৭ ডিসেম্বর, বিবিসি : অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে ৩৮ তলাবিশিষ্ট ভবন ওপাল টাওয়ারের দেয়ালে ফাটল দেখা দিলেও নিরাপত্তা ঝুঁকি অস্বীকার করার চেষ্টা করছে ভবন কর্তৃপক্ষ। স্থানীয় বেশকিছু সংবাদমাধ্যমে ভবনের দেয়ালে ফাটল ধরার ছবি প্রকাশিত হয়েছে। কর্তৃপক্ষ সংস্কারের কথা বলে ভবনের বাসিন্দাদের সাময়িকভাবে ভবন ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছিল। একদিনের মাথায় তাদের আবার ফিরিয়ে আনা হলেও হঠাৎ করেই দ্বিতীয় দফায় আবার তাদের ভবন ছাড়তে বলা হয়েছে। তা সত্ত্বেও জোরালোভাবে নিরাপত্তা ঝুঁকি অস্বীকার করে ভবন কর্তৃপক্ষ বলছে, এটি কেবলই একটি সতর্কতামূলক পদক্ষেপ। 

গত সোমবার ওপাল টাওয়ার ভবনের একটি ভার বহনকারী কংক্রিট প্যানেলে ফাটল দেখা দেয়। এতে ভবনটি ২ মিলিমিটার সরে যায় এবং পলেস্তারায় ফাটল দেখা দেয়। এ অবস্থায় টাওয়ার থেকে সরে যেতে বলা হয় বাসিন্দাদের। তবে একদিন পর গত মঙ্গলবার ভবনের ডেভেলপার কোম্পানি ইকোভ ভবনটিকে নিরাপদ ঘোষণা করে। টাওয়ারের দুই-তৃতীয়াংশ বাসিন্দাকে অ্যাপার্টমেন্টে ফিরে আসতে বলা হয়। বক্সিং ডেতে ওপাল টাওয়ারকে ‘উচ্চ গুণমান সম্পন্ন ভবন’ ঘোষণা করেন ইকোভের পরিচালক। তিনি দাবি করেন, নির্মাতা প্রতিষ্ঠান আইকন কন্সট্রাকশন্স একটি ‘প্রতিষ্ঠিত, উচ্চ গুণমান সম্পন্ন’ নির্মাতা। গত বৃহস্পতিবার দুপুরে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান আইকন নতুন করে ভবনের বাসিন্দাদের সরে যেতে বলে। জানানো হয়, ভবনের সব বাসিন্দাকে সরিয়ে নেওয়া হবে যেন পুরো ভবনে নির্বিঘ্নে পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও সংস্কার কাজ করা যায়।পুলিশকে উদ্ধৃত করে বিবিসি জানিয়েছে, সোমবার প্রায় তিন হাজার মানুষকে সরিয়ে নেওয়া হয়। শুরুতে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, টাওয়ারের ৩৯২টি ইউনিটের মধ্যে ৫১টি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। প্রথম দফায় ভবন নিরাপদ দাবি করে বেশিরভাগ মানুষকে ফিরে আসতে বলা হয়েছিল। তবে নতুন করে আবার তাদের সরে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

ভবনের নির্মাতা প্রতিষ্ঠান আইকন বলছে, সরিয়ে নেওয়া বাসিন্দাদেরকে অন্তত ১০দিন ভবনের বাইরে থাকতে হবে। সে সময় তাদের থাকা-খাওয়ার সব খরচ জোগাবে কোম্পানি। কোম্পানির এক মুখপাত্র বলেন, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সব বাসিন্দাকে সরাতে হবে এবং এ কাজে ১০ দিন সময় লাগবে। আইকনের দাবি, পূর্ব সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবেই বাসিন্দাদের সরানো হচ্ছে। তাদের আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। আইকন বলছে, বাসিন্দাদের সরিয়ে নেওয়ার কারণে খুব দ্রুত কাজ শেষ করতে পারবে তারা।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত ভবনের কিছু ছবি প্রকাশ করা হয়েছে। সেখানে দেখা গেছে, দেয়ালের পলেস্তারা খসে পড়েছে ও ফাটল দৃশ্যমান হয়েছে। গত বুধবার নিউ সাউথ ওয়েলস সরকার জানিয়েছে, ওই ভবন ও আশেপাশের আবাসিক ভবনগুলো কাঠামোগতভাবে নিখুঁত কিনা তাও পরীক্ষা করা হচ্ছে। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ