ঢাকা, শনিবার 5 January 2019, ২২ পৌষ ১৪২৫, ২৮ রবিউস সানি ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ইমরান খানের সাথে বৈঠকের অপেক্ষায় ট্রাম্প

৪ জানুয়ারি, সাউথ এশিয়ান মনিটর : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গত বুধবার বলেছেন যে, পাকিস্তানের সাথে তিনি ‘চমৎকার সম্পর্ক’ চান এবং দেশটির নতুন নেতৃত্বের সাথে  বৈঠকের জন্য তিনি অপেক্ষা করছেন।

একই  বৈঠকে মন্ত্রিসভার সহকর্মীদের ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন যে, তিনি পাকিস্তানকে দেয়া ১.৩ বিলিয়ন ডলারের সহায়তা বাতিল করেছেন কারণ “দক্ষিণ এশিয়ার এই দেশটি শত্রুদের আশ্রয় দিচ্ছে”।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট গুরুত্বের সাথে উল্লেখ করেন যে, তার প্রশাসন তালেবানদের সাথে শান্তি আলোচনার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। তিনি এটাও জানান যে, পাকিস্তানের নতুন নেতৃত্বের সাথে ‘শিগগিরই’  বৈঠক হবে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট গত মাসে আফগান যুদ্ধের ইতি টানার জন্য আলোচনার ব্যাপারে পাকিস্তানের সহায়তা চেয়ে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের কাছে চিঠি পাঠান। তিনি বলেন যে, পাকিস্তানের সাথে ভালো সম্পর্ক চান তিনি যদিও একই সাথে তিনি পাকিস্তানের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগও করেছেন।

তিনি বলেন, “আমরা পাকিস্তানের সাথে ভালো সম্পর্ক চাই, কিন্তু তারা শত্রুকে আশ্রয় দিচ্ছে, শত্রুর যতœ নিচ্ছে। আমরা সেটা করতে পারি না। আমি তাই দেশটির নতুন নেতৃত্বের সাথে  বৈঠকের অপেক্ষায় আছি। নিকট ভবিষ্যতেই আমরা সেটার আয়োজন করবো। আমরা যে ১.৩ বিলিয়ন ডলার দিতাম, সেটা বন্ধ করেছি আমি। এই অর্থটা পানিতে গেছে”।

দক্ষিণ এশিয়া ও আফগানিস্তান নিয়ে কৌশল ঘোষণার পর থেকেই অব্যাহতভাবে পাকিস্তানের সমালোচনা করে আসছেন ট্রাম্প। যদিও দুই দেশের কূটনীতিকদের পক্ষ থেকে দুই দেশের সম্পর্ক স্বাভাবিক করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

২০১৮ সালের নভেম্বরে ফক্স নিউজকে দেয়া ট্রাম্পের সাক্ষাতকারের প্রেক্ষিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট এবং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী উভয়েই বেশ কিছু সিরিজ টুইট করেন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বছরের শুরুতে পাকিস্তানকে দেয়া সহায়তা বন্ধ করেন। পরে তিনি মন্তব্য করেন যে, এই দেশটি আমাদের জন্য ‘একটা কানা-কড়িও কিছু করবে না’।

গত বছরের আগস্টে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন ইমরান খান। ক্রিকেটার থেকে রাজনীতিবিদ বনে যাওয়া ইমরান খান গত বছরের জানুয়ারিতে বলেছিলেন যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সাথে তার সাক্ষাত করা হবে ‘তিক্ত বড়ি গেলার মতো’, তবে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হলে তিনি তার সাথে  বৈঠক করবেন।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও গত সেপ্টেম্বরে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সাথে ইসলামাবাদে  বৈঠক করেন এবং আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য হুমকি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ‘টেকসই ও সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ’ গ্রহণের জন্য পাকিস্তানের কাছে জোর দাবি জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ