ঢাকা, শনিবার 12 January 2019, ২৯ পৌষ ১৪২৫, ৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

আলিসের হ্যাটট্রিকে রংপুরকে ২ রানে হারালো ঢাকা

স্পোর্টস রিপোর্টার : বিপিএলে টানা তৃতীয় জয়ের দেখা ফের ঢাকা ডায়নামাইটস। গতকাল উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে রংপুর রাইডার্সকে ২ রানে হারিয়েছে ঢাকা । ফলে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে হ্যাট্টিক জয়ের স্বাদ নিলো ঢাকা। আর চতুর্থ ম্যাচে দ্বিতীয় হারের স্বাদ নিলো রংপুর রাইডার্স।  মিরপুরে ঢাকা ডায়নামাইটস ও রংপুর রাইডার্সের মধ্যকার হাই-ভোল্টেজ ম্যাচটি হয়ে থাকল তার উ্জ্বল দৃষ্টান্ত। রংপুরের প্রায় জেতা ম্যাচটি নাটকীয়ভাবে ২ রানে জিতে নিল ঢাকা। সাকিব আল হাসানের দলের এই নাটকীয় জয়ের নায়ক আলিস আল ইসলাম। ২২ বছর বয়সী তরূণের এটাই ছিল বিপিএলে অভিষেক ম্যাচ। আর অভিষেকেই তিনি করে ফেললেন হ্যাটট্রিকের বিশ্ব রেকর্ড। টি-টোয়েন্টিতে অভিষেকে এর আগে  কেউই হ্যাটট্রিক করতে পারেননি। তার নাটকীয় হ্যাটট্রিকেই নাটকীয় জয় পেল ঢাকা। ঢাকার ছুড়ে  দেওয়া ১৮৩ রানের জবাবে এক র্পায়ে মাত্র ২ উইকেটেই রংপুর করে ফেলে ১৪৬ রান। জয়ের জন্য রংপুরের দরকার তখন মাত্র ৩৮ রান। হাতে ৮ উইকেট। বল বাকি ২৮টি। রংপুরের জয়কেই তখন মনে হচ্ছিল নিয়তি। কিন্তু দক্ষিণ আফিকান ব্যাটসম্যান রাইলি রোসো আউট হতেই ভোজভাজির মতো পাল্টে যায় ম্যাচের চেহারা। বিপদের সবচেয়ে বড় কাটা হয়ে উঠা রোসোকে আউট করে নাটকীয় পর্বের শুরুটা করেন আলিস ইসলামই। এরপর ১৫ বলের ব্যবধানে আরও ৪ উইকেট হারিয়ে মহা চাপে পড়ে যায় রংপুর। এই ৪ উইকেটের মধ্যে ৩টিই আবার তুলে নেন তরুণ অফস্পিনার আলিস।  যে ৩টি উইকেটই টানা ৩ বলে। মানে হ্যাটট্রিক। টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং-এর সিদ্বান্ত নেন রংপুর রাইডার্সের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। ব্যাটিং-এ নেমে ৬৪ রানে ৪ উইকেট হারায় ঢাকা ডায়নামাইটস। তবে ছয় নম্বরে নেমে ঢাকাকে খেলায় ফেরান অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাইরন পোলার্ড। সাকিব ৩৭ বলে ৩৬ রান করেন। তবে ব্যাট হাতে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬২ রান করেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাইরন পোলার্ড। তার ২৬ বলের ছোট্ট ও ঝড়ো ইনিংসে ৫টি চার ও ৪টি ছক্কা ছিলো। এছাড়া আন্দ্রে রাসেল ১৩ বলে ২৩ , রনি তালুকদার ১৮ ও মিজানুর রহমান ১৫ রান করেন। রংপুরের পেসার শফিউল ইসলাম ৩টি, ইংল্যান্ডের খেলোয়াড় বেনি হাওয়েল-সোহাগ গাজী ২টি করে উইকেট নেন। জবাবে ওভার প্রতি নয়-এর বেশি টার্গেট নিয়ে খেলতে নেমে দলীয় ১৯ রানে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মারকুটে ব্যাটসম্যান ক্রিস গেইলকে হারায় রংপুর। ৯ বলে ৮ রান করে ফিরেন গেইল। আরেক ওপেনার মেহেদি মারুফও বড় স্কোর গড়তে পারেননি। ১০ রান করেন তিনি। তবে তৃতীয় উইকেটে ১২১ রান যোগ করে রংপুরকে ম্যাচের লাগাম দিয়ে দেন দক্ষিণ আফ্রিকার রিলি রুশো ও মোহাম্মদ মিথুন। মিথুন ৪৯ রানে থেমে গেলেও রৌসু ৮৩ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন। ৮টি চার ও ৪টি ছক্কায় ৪৪ বলে নিজের ইনিংসটি সাজান রুশো। তবে রুশো ও মিথুন ফিরে যাবার পর তাসের ঘরের মত ভেঙ্গে পড়ে রংপুরের মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যান। ২ উইকেটে ১৪৬ রান থেকে ১৯ ওভারে ৯ উইকেটে ১৭০ রানে পরিণত হয় রংপুর। তাই শেষ ওভারে ১৪ রান প্রয়োজন পড়ে রংপুরের। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ঐ ওভার থেকে রংপুরের শেষ দুই ব্যাটসম্যান শফিউল ইসলাম ও নাজমুল ইসলাম ১১ রান করতে পারেন । শেষ পর্যন্ত ২০ ওভারে ৯ উইকেটে ১৮১ রান পর্যন্ত যেতে সক্ষম হয়  রংপুর। ঢাকার আল ইসলাম ২৬ রানে ৪ উইকেট নেন। এ ম্যাচ দিয়েই টি-২০ ফরম্যাটে অভিষেক হয় ইসলামের। নিজের অভিষেক ম্যাচেই সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন ইসলাম।  

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

ঢাকা ডায়নাইমাটস: ২০ ওভারে ১৮৩/৯ (জাজাই ১, নারাইন ৮, রনি ১৮, সাকিব ৩৬, মিজানুর ১৫,  পোলার্ড ৬২, রাসেল ২৩, শুভাগত ৩, সোহান ৪, রুবেল ১*; মাশরাফি ৪-০-২২-১, সোহাগ ৩-০-২৮-২, শফিউল ৪-০-৩৫-৩, অপু ২-০-৩৪-০, রেজা ৩-০-৩২-১, হাওয়েল ৪-০-২৫-২)।

রংপুর রাইডার্স: ২০ ওভারে ১৮১/৯ (মারুফ ১০, গেইল ৮, রুশো ৮৩, মিঠুন ৪৯, বোপারা ৩, হাওয়েল ১৩, মাশরাফি ০, ফরহাদ ০, সোহাগ ০, শফিউল ১০*, নাজমুল ১*; রাসেল ৩-০-২৬-১, রুবেল ৩-০-২৬-০, শুভাগত ২-০-২৭-১, সাকিব ৪-০-৩৫-১, নারাইন ৪-০-৪০-২, আল ইসলাম ৪-০-২৬-৪)।

ফল: ঢাকা ডায়নামাইটস ২ রানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: আলিস আল ইসলাম। ফল : ঢাকা ডায়নামাইটস ২ রানে জয়ী।

ম্যাচ সেরা : আল ইসলাম (রংপুর রাইডার্স)।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ