ঢাকা, মঙ্গলবার 22 January 2019, ৯ মাঘ ১৪২৫, ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

চট্টগ্রামে নানা কৌশলে চলছে ভর্তি বাণিজ্য

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রামে অনেক বেসরকারি স্কুলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ভর্তির নীতিমালা না মেনে নতুন ভর্তির ক্ষেত্রে আদায় করা হচ্ছে ইচ্ছেমত ফি। আবার অনেক স্কুলে নীতিমালা অনুযায়ী ভর্তি ফি ৩ হাজার টাকা রাখলেও মাসিক বেতন বাড়ানো হয়েছে ২০০ থেকে ৮০০ টাকা পর্যন্ত। আবার অনেকে অতিরিক্ত টাকা নিয়ে অতিরিক্ত টাকার রসিদ দিচ্ছে না।
 শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বেসরকারি স্কুল-স্কুল এন্ড কলেজ মাধ্যমিক, নি¤œ মাধ্যমিক ও সংযুক্ত প্রাথমিক স্তরে শিক্ষার্থী ভর্তি নীতিমালায় বলা হয়েছে, সেশন চার্জসহ ভর্তি ফি সর্বসাকুল্যে মফস্বল এলাকায় ৫০০ টাকা, পৌর (উপজেলা) এলাকায় ১ হাজার টাকা, পৌর (জেলা সদর) এলাকায় ২ হাজার টাকা এবং ঢাকা ব্যতীত অন্যান্য মেট্রোপলিটন এলাকায় ৩ হাজার টাকার বেশি হবে না। নীতিমালায় আরো বলা হয়েছে, একই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বার্ষিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে এক শ্রেণী থেকে অন্য শ্রেণীতে ভর্তির ক্ষেত্রে সেশন চার্জ নেয়া গেলেও পুনঃভর্তির ফি নেয়া যাবে না। চট্টগ্রাম মহানগরীতে অতিরিক্ত ফিস আদায়, ভর্তি বাণিজ্য নিয়ে ভোক্তা অধিকার সংগঠন কনজ্যুমারস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক ইলিয়াছ হোসেনের কাছে একটি তালিকা হস্তান্তর করেছেন এবং বিগত বছরগুলির ন্যায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানদের নিয়ে মতবিনিময় সভা আহবান করার দাবি জানিয়েছেন। কিন্তু জেলা প্রশাসন এক্ষেত্রে ধীরে চলো নীতি অবলম্বন করছেন বলে অভিযোগে কনজ্যুমারস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) চট্টগ্রামের নেতৃবৃন্দ জানিয়েছেন।
 ক্যাব চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের কাছে প্রেরিত অভিযুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির মধ্যে এসব স্কুলের মধ্যে চট্টেশ^রী রোডে অবস্থিত চিটাগাং ন্যাশনাল ইংলিশ স্কুলে নতুন ভর্তিতে নেয়া হচ্ছে ১৫ হাজার ৬০০ টাকা। নাসিরাবাদে সানসাইন গ্রামার স্কুলে উন্নয়ন ফি ৯ হাজার এবং ভর্তি ফি ৫ হাজার টাকা। চাঁন্দগাও আবাসিকে ফুলব্রাইট টিউটোরিয়াল স্কুলে ৮ হাজার ৫০০ টাকা, ব্রাইট ফোর টিউটেরিয়াল, ৮ হাজার ৫০০ টাকা, বেপজা স্কুল এন্ড কলেজে ১০ হাজার ২০০ টাকা, টিএসপি কমপ্লেক্স ম্যাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৫ হাজার টাকা এবং মেহের আফজল উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩ হাজার ৪০০ টাকা নেয়া হচ্ছে। খাজা রোড়ে ইয়ং ওমেন’স ক্রিস্টিয়ান এসোসিয়েশনে (ওয়াইডাবি¬উসিএ) ভর্তি ফি ৩ হাজার টাকা ছাড়াও আরো ৩ হাজার ৭৫০ টাকাসহ মোট ৬ হাজার ৭৫০ টাকা, নাসিরাবাদ আবাসিকে অংকুর সোসাইটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ হাজার ৫০ টাকা, মেহেদীবাগের বাংলাদেশ অ্যালিমেন্টারী স্কুলে ৩ হাজার ৪০০ টাকা, জামাল খান এজি চার্চ স্কুলে ৫ হাজার ১০০ টাকা, বন গবেষনাগার উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩ হাজার ১১০ টাকা আদায় করা হলেও রশিদ দিচ্ছে ২ হাজার ২০০ টাকার।
এবিষয়ে কনজ্যুমারস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম নাজের হোসাইন জানান, নগরীর অনেক বেসরকারি স্কুলে ভর্তি নীতিমালার বাইরে অতিরিক্ত ফি আদায় করছে বলে অভিভাবকদের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়েছি। তবে অভিভাবকরা অসহায়, অভিযোগ কার কাছে জানাবেন, কে তাদের কথা শুনবে? সে বিষয়ে পরিস্কার নির্দেশনা নেই? অনেকে আবার উচ্চ আদালত থেকে রায় নিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করছেন।
তিনি বলেন,অভিভাবকদের অভিযোগের বিষয়টি আমরা লিখিত ভাবে জেলা প্রশাসনকে জানিয়েছি। কিন্তু জেলা প্রশাসন এবিষয়ে উদ্যোগ নিতে কালক্ষেপন করছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ