ঢাকা, বুধবার 23 January 2019, ১০ মাঘ ১৪২৫, ১৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

প্রবল ঠাণ্ডায় স্থবির যুক্তরাষ্ট্রের পূর্বাঞ্চল

২২ জানুয়ারি, রয়টার্স : বয়ে যাওয়া তীব্র শীতল বাতাসের কারণে প্রবল ঠাণ্ডার কবলে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যপশ্চিমাঞ্চল ও পূর্বাঞ্চল; সড়কগুলো বরফাচ্ছাদিত হয়ে পিচ্ছিল হয়ে উঠেছে।

সোমবার মার্টিন লুথার কিং জুনিয়র দিবস উপলক্ষে ছুটি থাকায় ও সরকারে আংশিক অচলাবস্থা চলমান থাকায় ওই অঞ্চল দুটির অধিকাংশ বাসিন্দাই আবহাওয়া কর্মকর্তাদের পরামর্শ মেনে ঘর থেকে বের হননি, খবর বার্তা সংস্থার।

একটি তুষারঝড়ের পর উত্তরের মেরু অঞ্চল থেকে বয়ে আসা বরফশীতল বাতাস দেশটির উত্তরপূর্বাঞ্চলজুড়ে ৩০ সেন্টিমিটার তুষারপাতের কারণ হয়েছিল, রোববার ওই তুষার গলতে শুরু করে।

এ দিন শিকাগোতে তুষার দিয়ে দুর্গ বানানোর পর নিজের ওই তুষারদুর্গ ধসে ১২ বছরের এক বালিকা মারা গেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। তার সঙ্গে খেলারত নয় বছর বয়সী আরেক বালিকাকে তুষার খুড়ে উদ্ধার করা হয়।

হাসপাতালে হাইপোথার্মিয়ার চিকিৎসা নেওয়া এই বালিকাটি বেঁচে যাবে, এমনটি আশা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মেরিল্যান্ডের আবহাওয়া পূর্বাভাস কেন্দ্রের কর্মকর্তা মার্ক চেনার্ড জানিয়েছেন, রোববার রাত থেকে সোমবার ভোররাত পর্যন্ত নিউ ইয়র্ক থেকে বস্টন হয়ে নিউ ইংল্যান্ডের উত্তরাঞ্চলের তাপমাত্রা মাইনাস ২০ সেলসিয়াসে নেমে গিয়েছিল। এর সঙ্গে ঘন্টায় ৪৮ থেকে ৬৪ কিলোমিটার বেগে বয়ে যাওয়া বাতাস যোগ হয়ে পরিস্থিতি প্রাণঘাতী অবস্থার পৌছে গেছে বলে জানিয়েছেন এ আবহাওয়াবিদ।  “এটি নিশ্চিতভাবে বিপজ্জনক, জীবন-মৃত্যু ধরনের আবহাওয়া বিরাজ করছে। মিনেসোটা ও উইসকনসিনের তাপমাত্রা আরও নেমে যেতে পারে,” বলেছেন তিনি। 

“সকালে বস্টনের তাপমাত্রা মাইনাস ১৬ সেলসিয়াসে দাঁড়াতে পারে, এর সঙ্গে বাতাসের ঠা-া যোগ হয়ে মাইনাস ২৪ সেলসিয়াসও ছাড়িয়ে যেতে পারে। নিউ ইয়র্ক ও ডি.সি.র তাপমাত্রা একই রেঞ্জে থাকতে পারে এবং দিনের পরবর্তী সময়ে নেমে মাইনাস ১৩-১৪ হয়ে যেতে পারে। এটি রেকর্ড ঠা-া বা প্রায় রেকর্ডের কাছাকাছি ঠা-া হতে পারে,” বলেছেন চেনার্ড।

নর্থ ডাকোটা থেকে পূর্ব উপকূলের মেট্রোপলিটান কেন্দ্রগুলোসহ ১০টিরও বেশি রাজ্যে সতর্কতা জারি করে বিভিন্ন পরামর্শ দিয়েছে ন্যাশনাল ওয়েদার সার্ভিস।

সোমবার নিউ ইয়র্কে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা মাইনাস ৮ সেলসিয়াস ও বস্টনে মাইনাস ১১ সেলসিয়াস থাকতে পারে বলে পূর্বাভাসে বলা হয়েছে।

আবহাওয়াজনিত কারণে সাত হাজার ৫০০টিরও বেশি ফ্লাইটে বিঘ্ন ঘটেছে, যার অধিকাংশই নিউ ইয়র্ক ও নিউ ইংল্যান্ডে বলে জানিয়েছে ফ্লাইটঅ্যাওয়ার ডটকম।

মঙ্গলবার আবহাওয়া কিছুটা উষ্ণ হতে পারে বলে জানিয়েছেন চেনার্ড।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ