ঢাকা, বুধবার 23 January 2019, ১০ মাঘ ১৪২৫, ১৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

একটি সেতু বদলে দিতে পারে দুই উপজেলার মানুষের জীবনযাত্রা

শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) সংবাদদাতা: একটি সেতু বদলে দিতে পারে দুই উপজেলার মানুষের জীবনযাত্রা অথচ এমন একটি জনগুরুত্বপূর্ণ সেতু নির্মাণ হচ্ছে না বছরের পর বছর। মুন্সীগঞ্জ সিরাজদিখান উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের কে.সি. রোড, কাচিকাটা হয়ে শুলপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে মানুষ চলা-চলের রাস্তা থাকলেও সেতু না থাকায় জনদুর্ভোগে পড়েছে এলাকার সাধারণ মানুষ। এ রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন প্রায় সহ¯্রাধিক লোক বাঁশের সাঁকো দিয়ে যাতায়াত করে। সেতু থাকলে সিএনজি, লেগুনা, নছিমন, করিমন, ভ্যান, রিকশা, অটোরিকশাসহ সব ধরনের যানবাহন চলাচল করতে পারতো। মহা সড়কে এই সব যানবাহন চলাচল করা, সরকারিভাবে চলাচল নিষেধ করা আছে। সেতুটি হয়ে গেলে নিমতলা টু শ্রীনগর যে সব লোকাল যানচলাচল করতো সে সব যান চলাচল নিমতলা, কেয়াইন, শুলপুর, হাঁসাড়া, বীরতারা, আটপাড়া, পাটাভোগ হয়ে শ্রীনগর বাজার আসতে পারবে মনে করেন সাধারণ মানুষ। এ সেতুটি না থাকায় পণ্য সরবরাহে ভাড়া লাগে দ্বিগুণ যা সাধারণ ক্রেতাদের ওপর বর্তায়। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় সিরাজদিখান উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের শুলপুর উচ্চ বিদ্যালয় দক্ষিণ পাশে কে.সি. রোডটি দুই পাশে পিচঢালা সড়ক কিন্তু সেতু না থাকায় কোন যানচলাচল করতে পারে না। বৃষ্টির দিনে এই সড়ক সেতু না থাকায় প্রায়ই দুর্ঘটনার কবলে পড়ে সাধারণ মানুষ। এতে করে যাত্রী গন্তব্যে পৌঁছাতে সময় লাগে বেশি। সেতুটি না থাকায় অনেক সময় মুমূর্ষু রোগীদের হাসপাতালে নেয়ার আগেই মৃত্যু হয় বলে জানা যায়। কেয়াইন ইউনিয়ন ইউপি সদস্য নয়ন রোজারিও বলেন, বৃষ্টির দিনে সেতুটি না থাকায় চলাই দুস্কর হয়ে পড়ে। তাই আমাদের দাবি সেতুটি দ্রুত পাকা করা হোক সরকারের কাছে এটাই আমাদের একমাত্র দাবি। কেয়াইন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আশ্রাফ আলী বলেন, ব্রিজটি হলে আমাদের অনেক সুবিধা হবে। আমরা মহাসড়কে গাড়ি চালাতে পারিনা সরকারিভাবে নিষেধ করা আছে। সেতুটি হয়ে গেলে আমাদের চলাচলে সুবিধা হবে। এই সেতুটি না থাকায় যাতায়াতসহ সব ধরনের যান চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সেতুটি যাতে পাকা করা অতি জরুরি। এই সেতুটি যাতে পাকা করা হয় এ জন্য আমাদের (শ্রীনগর-সিরাজদিখান) মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের এমপি, বিকল্পধারা বাংলাদেশ প্রেসিডিয়াম সদস্য মাহী বি. চৌধুরী ও প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি। এ ব্যাপারে কেরানীগঞ্জ সড়ক ও জনপদ উপ-বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ আলম জানান, অল্পদিনের মধ্যেই কাজ শুরু করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ