ঢাকা, বৃহস্পতিবার 24 January 2019, ১১ মাঘ ১৪২৫, ১৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

শাহজাদপুরে যমুনা চরের শিক্ষার্থীদের ১০ কিঃ মিঃ পথ পাড়ি দিয়ে যেতে হয় স্কুল-কলেজে 

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) : দীর্ঘ বালু পথ পাড়ি দিয়ে স্কুলে যাচ্ছে যমুনা চরের শিক্ষার্থীরা

এম,এ, জাফর লিটন, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) থেকে : সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার দুর্গম যমুনা চরাঞ্চলের শিক্ষার্থীদের প্রতিদিন ১০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে যেতে হয় স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসায়। ফলে কেউ প্রাথমিক শিক্ষা আবার কেউ মাধ্যমিকের গন্ডি পেড়িয়ে উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা গ্রহণ করতেই হিসমসিম খায়। যমুনার একেকটি গ্রাম থেকে আরেকটি গ্রামের দুরত্ব অনেক। পাড়ি দিতে হয় বালুকাময় দীর্ঘ পথ। যমুনা চরের কয়েকটি গ্রামে প্রাথমিক বিদ্যালয় থাকলেও হয়না সেখানে লেখাপড়া। কারণ যমুনার পশ্চিমপাড় থেকে শিক্ষকরা ঠিকমত ক্লাসে আসতে পারেনা। তাই সচেতন পরিবারের বেশিরভাগ ছেলেÑমেয়েদের দীর্ঘ ১০ কিলো পাড়ি দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ট্রলারে ঠুটিয়া উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজ ও জামিরতা, হাইস্কুল, জামিরতা ডিগ্রী কলেজ ও সোনাতনী উচ্চ বিদ্যালয়ে আসতে হয়। প্রমত্তা যমুনার বুকে বানতিয়ার,সোনাতনী,ছোটচানতারা,বড় চানতারার চর, ঠুটিয়ার চর,মাকড়ার চর,বাঙ্গালার চর, রতনদিয়ার চর শাহজাদপুর উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের  অংশ। বর্ষাকালীন সময়ে চরাঞ্চলের মানুষের জীবন চিত্র সীমাহীন দুর্ভোগের। যাতায়াত আদিকাল  থেকে নৌকার উপর ও বালুচর হেটে নির্ভরশীলসহ শিক্ষা, চিকিৎসা নাজুক অবস্থার মাঝে কাটে জীবন । দুর্গম এ ১০ কিলোমিটারের মধ্যে রয়েছে নৌপথ, সড়কপথ, বালিময় হাঁটাপথ। এ পথ পাড়ি দিতে প্রতিদিন শিক্ষার্থীদের  গুণতে হয় অন্তত ৪০/৫০ টাকা। সময়মত নদীঘাটে পৌছতে না পাড়লে কিম্বা খেয়া ছেড়ে দিলে সেদিন আর স্কুলে পৌছানো সম্ভব হয়না। এর মধ্যে যাদের খরচের টাকা ব্যয়ের সামর্থ না থাকে তারা ৫ম শ্রেণির উপরে আর পাঠদান না করতে পেরে ঝরে পড়ে। যমুনা চরের রাজধানী হিসেবে খ্যাত বানতিয়ারে একটি উচ্চ বিদ্যালয় থাকলেও সেখানে শিক্ষার্থীর সংখ্যা কম। আবার অন্য চর থেকে এই স্কুলে আসাও কঠিন হয়ে পড়ে দূর্গম বালুর পথ মারিয়ে। যমুনার পশ্চিমপাড়ের স্কুলে যেতে দুর্ভোগের যেমন সীমা থাকেনা, তেমনী করতে হয় অর্থ ব্যয়। বাড়ি থেকে ঐসব স্কুলে ক্লাস করতে ৩/৪ কিলোমিটার বালুপথ পাড়ি দিয়ে হোর দিঘুলিয়া কিম্বা বারো পাখিয়া নৌকাঘাটে আসতে হয়। তারপর ১০/ ১৫ টাকা দিয়ে নৌকায় বিপদ সংকুল যমুনা পাড়ি দিয়েই পৌঁছাতে হয় স্বপ্নের হাইস্কুলে। ফলে হত দরিদ্র যমুনা চরের সন্তানদের ৩০/৪০টাকা না হলে আর স্কুলে যাওয়া যায় না কোমলমতি শিক্ষার্থীদের। অনেক সময় ঝড়-ঝাপটা, রোধ, বৃষ্টি অতিক্রম করে তাদের লেখা পড়া চালানোয় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ