ঢাকা, বৃহস্পতিবার 24 January 2019, ১১ মাঘ ১৪২৫, ১৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ময়ূর নদীসহ ২২ টি খালের দখল উচ্ছেদ ও ড্রেন সংস্কারের দাবি

খুলনা অফিস : ময়ূর নদীসহ সংযুক্ত ২২টি খালের সকল অবৈধ দখল উচ্ছেদ ও ড্রেনেজ ব্যবস্থা সংস্কারের দাবিতে বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির পক্ষ থেকে স্মারকলিপি দেয়া হয়েছে। বুধবার বেলা ১১টায় খুলনা বিভাগীয় কমিশনার এর কার্যালয়ে বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়ার নিকট স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। 

স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, খুলনা মহানগরীতে সামান্য বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। মূলত ময়ূর নদীর সাথে সংযুক্ত খাল সমূহের অবৈধ দখল ও ভরাট হয়ে যাওয়া জলাবদ্ধতার মূল কারণ। জলাবদ্ধতা নিরসনে ময়ূর নদীসহ এর সাথে সংযুক্ত হাতিয়া নদী, ময়ূর নদী, ক্ষুদে কাল, ছরিছড়া খাল, মতিয়াখালি খাল, হরিণটানা খাল, বাটকেমারী খাল, ক্ষেত্রখালী খাল, লবণচরা-১, লবণচরা-২, নিরালা খাল, তালতলা খাল, বাস্তহারা খাল, পূর্ব নিরালা খাল, প্রান্তিক খাল, মান্দার খাল, গল্লামারী নর্থ  খাল, লবনচরা গোড়া খাল, রায়েরমহল মোল্লা পাড়া খাল, রায়েরমহল বাজার খাল দখলমুক্ত এবং পুনরায় খনন করতে হবে। বর্তমান মেয়রের নির্বাচনী ইশতেহারের প্রথম দফাই ছিল খুলনার সকল খালের অবৈধ দখল উচ্ছেদ ও ড্রেনেজ ব্যবস্থা সংস্কার করে শহরকে জলাবদ্ধতা মুক্ত করা। আমরা অনতিবিলম্বে এর বাস্তবায়ন দেখতে চাই। 

স্মারকলিপি প্রদানকালে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের মহাসচিব শেখ আশরাফ উজ জামান, সহ-সভাপতি মো. নিজামউর রহমান লালু, সিনিয়র নেতা এস এম দাউদ আলী, যুগ্ম-মহাসচিব এডভোকেট শেখ হাফিজুর রহমান হাফিজ, মো. মনিরুজ্জামান রহিম, মো. মিজানুর রহমান জিয়া, সরদার রবিউল আলম, মো. রকিব উদ্দিন ফারাজী, এস এস ইকবাল হোসেন বিপ্লব, সামসুল কাদের মজনু, নুরুজ্জামান খান বাচ্চু, মীর বরকত আলী, বিশ্বাস জাফর আহমেদ, পঙ্গু মুক্তিযোদ্ধা মো. ইদ্রিস আলী খান, মো. আবুল হোসেন (আবুল), মো. আবুল কাশেম, অধ্যাপক মো. আজম খান, এস এম এ রহিম, কাজী মিরাজ হোসেন প্রমুখ।

পশুর চ্যানেলে বালু ভর্তি বলগেট ডুবি : মংলা বন্দরের পশুর চ্যানেলে এম.বি জুবায়ের নামে এক বালু ভর্তি একটি বলগেট ডুবির ঘটনা ঘটেছে। তবে বলগেটে থাকা নয়জন স্টাফ সাঁতরিয়ে তীরে উঠতে সক্ষম হয়েছে। মঙ্গলবার দিবাগত গভীর রাতে প্রচন্ড ¯্রােতের টানে নোঙ্গরের শিকল ছিঁড়ে পেছনে থাকা অপর আরেকটি নৌযানের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ডুবে যায় বলগেটটি। নৌযানটি সুনামগঞ্জ থেকে ১৪ হাজার ফুট লাল বালু বোঝাই করে খুলনা যাচ্ছিল। বুধবার পর্যন্ত মালিক পক্ষ ঘটনাস্থলে যায়নি ও উদ্ধার তৎপরতা শুরু করেনি।

বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি বাহারুল ইসলাম বাহার বলেন, খুলনা যাওয়ার পথে মঙ্গলবার রাতে মংলা বন্দরের পশুর নদীর বানিশান্তা এলাকায় নোঙ্গর করে অবস্থান করছিল বালু বোঝাই বলগেটি। গভীর রাতে ¯্রােতের টানে নোঙ্গরের শিকল ছিঁড়ে পেছনে থাকা একটি টাগ বোটের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এতে ঘটনাস্থলেই বালু বোঝাই বলগেটটি ডুবে যায়। নৌযানটিকে উদ্ধারের জন্য মালিকপক্ষ বরিশাল থেকে বিকেলে মংলার উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন বলেও জানান এ শ্রমিক নেতা।

মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের হারবার মাস্টার কমান্ডার দুরুল হুদা বলেন, নৌযানটি ডোবার পর থেকে চ্যানেলে জাহাজ চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। আমরা বলগেটটির অবস্থান শনাক্তে কাজ শুরু করেছি।

খুলনায় মাদকবিক্রেতাসহ ৬৬ জন গ্রেফতার : খুলনা মেট্রোপলিটন ও জেলা পুলিশের অভিযানে ২৪ ঘণ্টায় মাদকবিক্রেতাসহ ৬৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বুধবার সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় মহানগরীর ৮ থানা ও জেলার ৯ থানা এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

কেএমপি’র অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (আরসিডি) শেখ মনিরুজ্জামান মিঠু জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনা মহানগর পুলিশের অভিযানে মহানগরীর বিভিন্ন থানা এলাকা থেকে ১২ জন মাদকবিক্রেতাসহ মোট ৩৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে ৮৯ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ১০০ গ্রাম গাঁজা ও ১০ লিটার চোলাই মদ উদ্ধার করা হয়।

অপরদিকে খুলনা জেলা বিশেষ শাখার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আনিচুর রহমান জানান, খুলনা জেলা পুলিশের নিয়মিত অভিযানে ২২ জানুয়ারি সকাল ৮টা থেকে ২৩ জানুয়ারি সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘন্টায় মোট তিনজন মাদক ব্যবসায়ীসহ ৩২ জন আসামীকে গ্রেফতারপূর্বক বিজ্ঞ আদালতে সোর্পদ করা হয়েছে। জেলার বিভিন্ন থানা এলাকা থেকে এসব মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে ৪৫ পিচ ইয়াবা ও ৮ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করা হয় এবং তিনটি মাদক মামলা রুজু করা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ