ঢাকা, রোববার 03 February 2019, ২১ মাঘ ১৪২৫, ২৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

কুমিল্লায় পৌনে এক ঘন্টা পর এসএসসি’র প্রশ্ন বিতরণ

 

কুমিল্লা অফিস : কুমিল্লায় এসএসসি পরীক্ষা শুরু হওয়ার পৌনে এক ঘন্টা পর একটি কেন্দ্রে পরীক্ষার্থীদের মাঝে রচনামূলক (সৃজনশীল) প্রশ্ন বিতরণ করার ঘটনা ঘটেছে। শনিবার জেলার দেবিদ্বার উপজেলার দুয়ারিয়া এজি মডেল একাডিমী কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। প্রথম দিনে ওই কেন্দ্রে ৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৫৭৬ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। 

কেন্দ্রের একাধিক পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকরা জানান, শনিবার বাংলা ১ম পত্র পরীক্ষার জন্য বোর্ড থেকে উপজেলা প্রশাসনে ৪ নং সেটের (গাঁদা) রচনামূলক প্রশ্ন কেন্দ্রে বিতরণের নির্দেশ দেয়া হয়। কিন্তু প্রশ্নের প্যাকেটে ৪ নং সেট না থাকায় বিপাকে পড়েন কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ। খবর পেয়ে কেন্দ্রে পৌছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ অন্যান্যরা। পরে বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে প্রশ্ন সংগ্রহ করে প্রায় ৪০ মিনিট পর বিতরণ করেন কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ। এরই মধ্যে এ খবর পেয়ে এলাকায় জানাজানি হলে ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা কেন্দ্রের মূল ফটকে জড়ো হয়। এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রবীন্দ্র চাকমা ও কেন্দ্র সচিব মোঃ আবু সেলিম ভূইয়া শিক্ষার্থীদের অতিরিক্ত সময় দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করলে অভিভাবকরা শান্ত হন। 

দুয়ারিয়া এজি মডেল একাডেমীর অধ্যক্ষ ও কেন্দ্র সচিব মোঃ আবু সেলিম ভূইয়া জানান, সকালে প্রশ্ন আনতে গিয়ে আমাদের কেন্দ্রে প্রশ্নের প্যাকেটে প্রশ্ন কম মনে হলে বিষয়টি উপজেলা মাধ্যমিক কর্মকর্তাকে জানাই। তখন তিনি কেন্দ্রে এসে প্যাকেট খুলতে বলেন। কেন্দ্রে এসে প্যাকেট খুলে দেখতে পাই প্রশ্নের যে ৪ নং সেটে সৃজনশীল পরীক্ষা নেয়ার কথা সেই সেট আমাদের প্যাকেটে নাই। ততক্ষণে পরীক্ষার্থীরা ৩০ মিনিটের ৩০ নম্বরের বহুনির্বাচনী অভীক্ষা শেষ করে নেয়। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানালে তিনি উপজেলার বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে সৃজনশীলের (রচনামুলক) প্রশ্ন সংগ্রহ করে দিলে বিলম্বে পরীক্ষা শুরু করা হয়। কিন্তু পরীক্ষার্থীরা যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয় এ জন্য তাদের অতিরিক্ত ৪৫ মিনিট সময় দেয়া হয়েছে। দেবিদ্বার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রবীন্দ্র চাকমা জানান, শনিবার বাংলা প্রথম পত্র পরীক্ষা ছিল। কিন্তু দুয়ারিয়া এজি মডেল একাডেমী কেন্দ্রে বোর্ড নির্ধারিত প্রশ্নের ৪ নং সেট না থাকায় পরীক্ষা বিলম্বিত হয়। ওই ঘটনায় তদন্ত চলছে, দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিকালে কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মো: রুহুল আমিন মুঠো ফোনে জানান, কোন সেটে পরীক্ষা হবে সেই বার্তা আমরা বোর্ড থেকে প্রথমে জেলা প্রশাসককে জানানোর পরে তা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সর্বশেষ কেন্দ্র সচিব পর্যন্ত পৌছে। কিন্তু কার ভুলে কিংবা অবহেলায় কেন্দ্রে নেয়া প্যাকেটে নির্ধারিত সেটের প্রশ্ন ছিল না তা তদন্ত করতে বোর্ড থেকে একটি তদন্ত টিম দেবিদ্বারে গিয়েছে, সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে তাদের রিপোর্ট দেয়ার পর পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে। তিনি আরও বলেন, এ বিলম্বের জন্য পরীক্ষার্থীরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি, তাদের সময় বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ