ঢাকা, সোমবার 04 February 2019, ২২ মাঘ ১৪২৫, ২৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ভেনেজুয়েলায় আগাম নির্বাচনের প্রস্তাব মাদুরোর

৩ ফেব্রুয়ারি, রয়টার্স: ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো আগাম পার্লামেন্ট নির্বাচনের প্রস্তাব দিয়েছেন।

শনিবার রাজধানী কারাকাসে প্রয়াত সাবেক প্রেসিডেন্ট উগো চাভেসের প্রথম প্রেসিডেন্ট হওয়ার ২০তম বর্ষপূর্তিতে এক সমাবেশে মাদুরো এ প্রস্তাব দেন। ভেনেজুয়েলার পার্লামেন্ট বিরোধীদল নিয়ন্ত্রিত ও মাদুরোর প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী -য়ান গুইদো পার্লামেন্টের প্রধান।

সরকারপন্থীদের সমাবেশের দিনটিতেই বিরোধীদলের ডাকে সরকারবিরোধী প্রতিবাদে যোগ দিতে হাজার হাজার লোক কারাকাসের রাস্তায় নেমে এসেছিল। বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, ক্ষমতা ছাড়ার জন্য মাদুরোর ওপর অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক চাপ ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে ভেনেজুয়েলার বিমান বাহিনীর এক জেনারেল পার্লামেন্টের প্রধান ও স্বঘোষিত ‘অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট’ -য়ান গুইদোর প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন।

নজিরবিহীন অর্থনৈতিক সংকটের কারণে ভেনেজুয়েলার লাখ লাখ নাগরিক দেশ ছেড়ে অন্য দেশে পাড়ি জমাচ্ছেন। এসব কারণে মাদুরোর জনপ্রিয়তায় ধস নেমেছে। তাই এখন সামরিক বাহিনীর সমর্থন তার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের পরিচালিত একটি ক্যুয়ের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ মাদুরোর।

কারাকাসে সমর্থকদের উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণে মাদুরো বলেছেন, চলতি বছর পার্লামেন্টের নির্বাচন ডাকা হবে কি না তা নিয়ে গণপরিষদে বিতর্ক হবে। ভেনেজুয়েলার প্রভাবশালী গণপরিষদ সরকার নিয়ন্ত্রিত।

গত বছরের শেষ দিকে মাদুরো একটি বিতর্কিত নির্বাচনে জয় পাওয়ার পর পার্লামেন্টের প্রধান ও বিরোধীদলীয় নেতা গুইদো নতুন, স্বচ্ছ একটি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দাবি জানিয়েছেন। সমাবেশে মাদুরো বলেছেন, “আপনি নির্বাচন চান? আপনি আগাম নির্বাচন চান?  আমরা পার্লামেন্ট নির্বাচন করতে যাচ্ছি।”

বিরোধীদলীয় আইনপ্রণেতা আরমান্দো আরমাস এক বিবৃতিতে বলেছেন, ২০২০ সালে অনুষ্ঠিত হওয়ার সূচি থাকা পার্লামেন্ট নির্বাচন এগিয়ে আনার প্রস্তাব করে আরেকটি উসকানি দিলেন মাদুরো।

তিনি বলেছেন “মাদুরো প্রেসিডেন্ট না আর গণপরিষদের কোনো বৈধতা নেই, কোনো মূল্য নেই।”

কারাকাসের সমাবেশে নিজ সমর্থকদের গুইদো বলেছেন, আরও অনেকে বিমান বাহিনীর ওই জেনারেলকে অনুসরণ করবে বলে আশা করছেন তিনি।

“আমি নিশ্চিত অনেক কর্মকর্তা ও সৈন্যই ওই ধারার পুনরাবৃত্তি ঘটাবে, খুব শিগগির, খুব শিগগির,” বলেছেন ৩৫ বছর বয়সী এ ইঞ্জিনিয়ার। শনিবার পুরো ভেনেজুয়েলাজুড়েই মাদুরোবিরোধী সমাবেশে হয়েছে। সরকারবিরোধী প্রতিবাদকারীরা ভেনেজুয়েলার জাতীয় পতাকার সঙ্গে মিলিয়ে হলুদ, লাল ও নীল রঙের পোশাক পরে হর্ন ও ড্রাম বাজিয়ে সমাবেশগুলোতে যোগ দেন। তারা সমস্বরে ‘গুইদো, গুইদো’ বলে শ্লোগান দেন।

গুইদোর সমর্থক ও রয়টার্সের প্রত্যক্ষদর্শী সাংবাদিকরা জানিয়েছেন, অত্যন্ত তিনটি শহরে দাঙ্গা পুলিশ প্রতিবাদকারীদের সমাবেশে যেতে বাধা দেওয়ার পরিকল্পনা করলেও পরে যেতে দেয়। এ ঘটনাকে প্রশাসনের ভিতরে মাদুরোর প্রতি সম্ভাব্য সমর্থন হ্রাসের লক্ষণ হিসেবে দেখছে পশ্চিমা গণমাধ্যম।

সাম্প্রতিক মাসগুলোতে ভেনেজুয়েলার সশস্ত্র বাহিনীতে মাদুরোবিরোধী ছোটখাটো বিদ্রোহ দেখা দিলেও বড় ধরনের কোনো বিরোধিতা দেখা যায়নি বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ