ঢাকা, শনিবার 09 February 2019, ২৭ মাঘ ১৪২৫, ৩ জমাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

খাসিভাষায় কুরআনের অনুবাদ

আলহামদুলিল্লাহ। এবার আমাদের প্রতিবেশী ভারতীয় রাজ্য মেঘালয়ের অধিবাসী খাসিয়া সম্প্রদায়ের নিজস্ব ভাষা খাসিতে মহাগ্রন্থ আল কুরআনের অনুবাদ হলো। অনুবাদের কাজটি অবশ্য ইংরেজি থেকে হয়েছে। সরাসরি আরবি থেকে হলে আরও ভালো হতো। পৃথিবীর অনেক ভাষায় পবিত্র কুরআনের অনুবাদ হয়েছে। এখনও অসংখ্য ভাষা, উপভাষা চালু আছে, যেগুলোতে কুরআন এখনও অনূদিত হয়নি। খাসিয়াদের খাসিভাষাও এমনই একটি নিভৃত ভাষা ছিল বলা যায়। এ ভাষা ভবিষ্যতে আরও সমৃদ্ধ হবে আশা করা যেতে পারে।
শিলং টাইমস সম্প্রতি জানায়, গত ২ ফেব্রুয়ারি মেঘালয়ের রাজধানী শিলংয়ে স্থানীয় খাসিভাষায় অনূদিত কুরআনের প্রকাশনা অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। মহৎ এ কাজটি সম্পন্ন করে ‘সেং ভালাং ইসলাম’  নামক একটি প্রতিষ্ঠান। ইসলাম ও কুরআনের বাণীর প্রচার এবং প্রসারের মহান উদ্দেশ্যে খাসিভাষায় এ অনুবাদ করা হয়েছে বলে প্রতিষ্ঠানের তরফ থেকে জানানো হয়। প্রাথমিকভাবে খাসিভাষায় অনূদিত কুরআনের তিন হাজার কপি ছাপানো হয়েছে। পরে চাহিদা মাফিক আরও ছাপা হবে বলে সংস্থাটি জানিয়েছে। বলা হয় দীর্ঘ ১২ বছরের অধ্যবসায় ও গবেষণার পর ১২৫১ পৃষ্ঠার পা-ুলিপি প্রকাশ করে অনুবাদের সম্পাদনা বোর্ড। সেং ভালাং ইসলামের তরফ থেকে জানানো হয়, খাসিভাষায় মহাগ্রন্থ কুরআন অনুবাদের ফলে ভারতীয় এ রাজ্যটির ১৬ লাখের বেশি মানুষ অর্থসহ তাঁদের নিজভাষায় কুরআন বুঝতে এবং পড়তে সক্ষম হবেন। সংস্থাটি আরও জানায়, খাসিয়ারা এখন সহজেই কুরআনের জ্ঞান অর্জন ও বিধানাবলী বাস্তবান করতে পারবেন। উল্লেখ্য, ‘খাসি’ হচ্ছে অস্ট্রোয়াসিয়াটিক ভাষার একটি শাখা। গত ২০০৫ ঈসায়ি সাল থেকে রাজ্যটিতে সহযোগী অফিসিয়াল ভাষা হিসেবে খাসি ব্যবহৃত হয়ে আসছে বলে প্রকাশ।
খাসিয়ারা মূলত প্রাচীনকাল থেকেই চিন এবং তিব্বত অঞ্চল থেকে মেঘালয় ও আসামে প্রবেশ করেন। এরা আসলে একটি উপজাতি। বাংলাদেশের সিলেট, নেত্রকোনা ও ময়মনসিংহেও এরা বসত গড়েন। বাংলাদেশি খাসিয়াদের সংখ্যাও বেশ। এরা পাহাড়ি এলাকায় বসবাস করতে ভালোবাসেন। এদের নিজস্ব বর্ণমালা নেই। রোমান হরফে খৃস্টান মিশনারিরা বই ছেপে তাঁদের ধর্ম প্রচার করেন। ফলে খাসিয়ারা প্রায় সবাই খৃস্টধর্মের অনুসারী। তাঁদের নিজস্ব ভাষা খাসিতে মহাগ্রন্থ আল কুরআনের অনুবাদ এবং তা প্রকাশের মহৎ উদ্যোগের জন্য মেঘালয়ের ‘সেং ভালাং ইসলাম’ সংস্থাকে সাধুবাদ জানাই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ