ঢাকা, বুধবার 13 February 2019, ১ ফাল্গুন ১৪২৫, ৭ জমাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

প্রচণ্ড অসুস্থ খালেদা জিয়ার চিকিৎসার আবেদন

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া প্রচ- অসুস্থ, তাই তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক দ্বারা আবারও চিকিৎসা করানোর আবেদন করেছেন তাঁর আইনজীবী। আদালত এ বিষয়ে পরে আদেশ দেবেন বলে জানিয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের সাবেক কেন্দ্রীয় কারাগারে অবস্থিত ঢাকার ৯ নং বিশেষ জজ শেখ হাফিজুর রহমানের আদালতে এ আবেদন করেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তালুকদার।
এর আগে নাইকো মামলায় হাজিরার জন্য দুপুর ১২টা ২৩ মিনিটে হুইল চেয়ারে করে খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করে কারা কর্তৃপক্ষ। এই নিয়ে আটবার তাকে কারা আদালতে হাজির করা হলো। শুনানি শেষে বেলা ২টা ৫ মিনিটে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।
আদালতে আইনজীবী বলেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসার ব্যাপারে হাইকোর্টের একটি আদেশ দেয়া আছে। এর আগেও তাকে চিকিৎসার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) নেয়া হয়। কিন্তু তার পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসা শেষ না হতেই আবার কারাগারে নেয়া হয়। এখন তিনি প্রচ- অসুস্থ তাই আমরা ব্যক্তিগত চিকিৎসক দ্বারা আবারও তাকে চিকিৎসা প্রদানের অনুমতি চেয়ে আবেদন করছি। এ সময় হাইকোর্টের আদেশটি আছে কি-না জানতে চান আদালত।
খালেদা জিয়ার আইনজীবী বলেন, আদেশটি আছে। পরে তা দাখিল করছি। এ সময় দুদকের আইনজীবীর কাছে তার বক্তব্য জানতে চান আদালত। দুদকের আইনজীবী মোশারখ হোসেন কাজল বলেন, এ বিষয়ে আমার জানা নেই। তবে জেল কোড অনুযায়ী আপনি আদেশ দিতে পারেন। বিচারক পরে আদেশ দেবেন বলে জানান।
অপরদিকে এ মামলার অপর আসামি বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ নিজের পক্ষে শুনানি শেষ করেন। শুনানিতে তিনি বলেন, এ মামলার এজাহার প্রাপ্তিতে আমার বিরুদ্ধে কোরো অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। অর্থ আত্মসাতেরও কোনো অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। সব জায়গায় বলা হয়েছে মওদুদ আহমদ অপিনিয়ন (মতামত) দিয়েছেন। আমি কোথাও কোনো অপিনিয়ন দেইনি।
এদিন মামলার আরেক আসামি শহীদুল ইসলামের পক্ষে তার আইনজীবী আসাদুজ্জামান আংশিক শুনানি করেন। শুনানিতে তিনি আরও সময়ের আবেদন করেন। আদালত শুনানির জন্য ২০ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেন।
এর আগে, গত ৩ জানুয়ারি নাইকো দুর্নীতি মামলার শুনানিতে এসে আদালতের স্থান নিয়ে অসন্তোষ জানিয়েছিলেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। তিনি আদালতকে উদ্দেশ করে বলেছিলেন, সাজা দিতে চাইলে দিয়ে দেন, আমি আর এ আদালতে আসব না।
নাইকো মামলার আসামীরা হলেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া, সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ও সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সচিব খন্দকার শহীদুল ইসলাম, ঢাকা ক্লাবের সাবেক সভাপতি সেলিম ভূঁইয়া, ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুন এবং জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাবেক সিনিয়র সহকারী সচিব সি এম ইউছুফ হোসাইন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ