ঢাকা, মঙ্গলবার 19 February 2019, ৭ ফাল্গুন ১৪২৫, ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ঝিনাইদহে সন্ত্রাসীদের অত্যাচারে বাড়িছাড়া ১৫ পরিবার নষ্ট হচ্ছে ৫০ বিঘা জমির আবাদি ফসল

ঝিনাইদহ সংবাদদাতা : ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ভীটশ্বর গ্রামে সন্ত্রাসীদের অত্যাচারে বাড়িছাড়া ১৫ পরিবার। নষ্ট হচ্ছে ৫০ বিঘা জমির আবাদি ফসল। এর প্রতিকার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভুক্তভোগিরা। 

রবিবার ঝিনাইদহ প্রেসক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন- ভুক্তভোগী আল মামুন, হাসেম আলী, রবিউল ইসলাম, ফরহাদুজ্জামান ও তাসলিমা বেগম।

এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ভীটশ্বর গ্রামের আতিয়ার রহমান খানের মেয়ে ভুক্তভোগি মোহনা খাতুন। লিখিত বক্তব্যে তিনি অভিযোগ করেন, ভীটশ্বর গ্রামের রামকান্ত মন্ডলের ছেলে হৃষিকেশ মন্ডলে কাছ থেকে মহিউদ্দিন বিশ্বাসের ছেলে ফারুক আলী স্ট্যাম্পের মাধ্যমে ছয় জনকে সাক্ষী রেখে ২০১৫ সাল থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে ৩ কিস্তিতে ভীটশ্বর গ্রামের ১৪৩ নং মৌজার ২৭২৮ দাগের মধ্যে ৪৬ শতক জমি বায়না নামা করে দেয়।  এরপর দীর্ঘদিন ধরে তারা জমি ভোগ- দখল করে আসছিল। পরে ওই জমি রেজিস্ট্রি করে না দিয়ে বিভিন্ন তাল বাহানা করতে থাকে রামকান্ত। এছাড়াও ২০১৮ সালে ১ আগস্ট হৃষিকেশ মন্ডল ও তার ভাই অমরেশ মন্ডল একই দাগের আরও ৪৬ শতক জমি তাদের কাছে রেজিস্ট্রি মূলে বিক্রি করে। দুই ভাইয়ের কাছ থেকে সর্ব মোট ৯২ শতাংশ জমি কেনা হয়। পরবর্তীতে রেজিস্ট্রি কৃত জমি গোপনে অন্যের কাছে বিক্রি করার ষড়যন্ত্র করলে বিষয়টি জানাজানি হয়ে যায়। 

পরবর্তীতে তারা হৃষিকেশ মন্ডল ও তার ভাই অমরেশ মন্ডলের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তালবাহানা শুরু করে।এ ছাড়াও তাদের দখলে থাকা জমি থেকে উচ্ছেদ করার জন্য হুমকি দেয়। এরই জের ধরে গত ১০ ফেব্রুযারি সকালে ওই গ্রামের হৃষিকেশ মন্ডল, সাইফুল দফাদার, শরিফুল ইসলাম ওরফে হুমো শরিফুল, বিকাশ চন্দ্র, পিযুষ চন্দ্র, নিপেন মন্ডল, উজ্জল মন্ডল, লাল মিয়া দফাদার, মোলাম দফাদার, আফিরুল ও মসিয়ার বিশ্বাস ওরফে মসে সহ আরও কয়েকজন দেশিয় অস্ত্র-সস্ত্র ও লাঠি সোটা নিয়ে তাদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে মারধর করে রান্না ঘর পুড়িয়ে দেয়। তারা ১০টি হাঁস মেরে ফেলে এবং মাঠে থাকা একটি স্যালো মেশিন ভাংচুর করে। এছাড়াও ওই মাঠে ধানে সেচ দেয়া স্যালো মেশিন সেচ দেয়া অবস্থায় বন্ধ করে দেয়। যার ফলে ৫০ বিঘা ইরি আবাদি জমির ফসল সেচের অভাব ও পরিচর্যা করতে না দেয়ার কারণে ফসলগুলো নষ্ট হতে চলেছে।  এই ঘটনায় ঝিনাইদহ আদালতে ২টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। সন্ত্রাসীদের অত্যাচারে বাড়িছাড়া রয়েছে ১৫ টি পরিবার। এ ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনীসহ সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন ভূক্তভোগিরা।  কুড়িয়ে পাওয়া এক লাখ টাকা ফিরিয়ে দিলেন পুলিশ কনস্টেবল মুসা মিয়া রাস্তায় কুড়িয়ে পাওয়া এক লাখ টাকার ব্যাগ মালিককে ফিরিয়ে দিলেন মুসা মিয়া নামে পুলিশের এক কনস্টেবল।  সততার পরিচয় দেয়া মুসা মিয়া ঝিনাইদহের মহেশপুর থানায় পুলিশ কনস্টেবল হিসেবে কর্মরত।

স্থানীয় ব্র্যাক অফিসের সামনের রাস্তায় কুড়িয়ে পাওয়া ৯৭ হাজার টাকা মালিককে ফেরত দেন কনস্টেবল মুসা মিয়া। মহেশপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাশেদুল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ওসি বলেন, রোববার বেলা ১১টার দিকে মহেশপুর থানার পুলিশ কনস্টেবল মুসা মিয়া মহেশপুর ব্র্যাক অফিসের সামনে একটি ব্যাগ কুড়িয়ে পান। ব্যাগটি খুলে তিনি দেখতে পান টাকা, ব্যাংকের চেক ও জমির দলিল রয়েছে। পরে ব্যাগসহ টাকা থানায় জমা দেন তিনি। ওসি রাশেদুল আলম আরও বলেন, দুপুর ১২টার দিকে টাকার মালিক মহেশপুর উপজেলার নেপা ইউনিয়নের কুল্লা গ্রামের টিন ব্যবসায়ী আশরাফুল হককে খবর দেয়া হয়। পরে টাকার পরিমাণ, ব্যাংক চেক নম্বর ও জমির দলিলের বর্ণনা দিয়ে টাকা ফেরত পান তিনি। টাকা, ব্যাংক চেক ও জমির দলিল ফিরে পেয়ে খুশি টিন ব্যবসায়ী আশরাফুল হক।

 টিন ব্যবসায়ী আশরাফুল হক বলেন, আমি জমি কেনার জন্য ৯৭ হাজার টাকা নিয়ে খালিশপুর ব্যাংক থেকে আরও টাকা তুলতে যাওয়ার পথে টাকার ব্যাগটি রাস্তায় পড়ে যায়। পরে পুলিশ কনস্টেবল মুসা মিয়া রাস্তায় ওই টাকার ব্যাগ কুড়িয়ে পেয়ে থানায় জমা দেন। টাকার পরিমাণ, ব্যাংক চেক নম্বর ও জমির দলিলের বর্ণনা দিলে টাকা ফেরত দেন ওসি। ব্যবসায়ীকে টাকা ফেরত দেয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন- মহেশপুর থানা পুলিশের ওসি রাশেদুল আলম, এসআই কামাল হোসেন, এএসআই বাবু লাল বসু ও পুলিশ কনস্টেবল মুসা মিয়া ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ