ঢাকা, বৃহস্পতিবার 21 February 2019, ৯ ফাল্গুন ১৪২৫, ১৫ জমাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

কালো তুষারে ডুবেছে তিন শহর

২০ ফেব্রুয়ারি, সায়েন্স এ্যালার্ট : সাইবেরিয়ার মতো এলাকায় তুষার পড়বে এটা তো সাধারণ ব্যাপার। তুষারপাতে পুরো এলাকা হয়ে যাবে সাদা ধবধবে। সূর্যের আলো পড়লে ধাঁধাঁ লাগবে চোখে। এটা স্বাভাবিক ব্যাপার।

কিন্তু এবার যে সাইবেরিয়ার তিনটি শহর ঢেকে গেছে কালো বরফে! বিষয়টি চিন্তায় ফেলে দিয়েছে পরিবেশবিদদের। সম্প্রতি রাশিয়ার সাইবেরিয়ার প্রোকোপ্যেভস্ক শহরটিতে কালো তুষারপাত ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে বলে জানা গিয়েছে বিজ্ঞান বিষয়ক গণমাধ্যমে -এ প্রকাশিত এক প্রতিবেদন থেকে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রোকোপ্যেভস্ক শহরটি একটি কয়লাখনি অঞ্চলের অন্তর্গত। এই অঞ্চলে সর্বদাই বাতাসে ভাসতে থাকে কয়লার গুড়া। আপাতত বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, এ কয়লাজনিত দূষণই ওই কালো তুষারপাতের জন্য দায়ী।

তবে শুধু প্রোকোপ্যেভস্ক নয়, সাইবেরিয়ার কেমেরোভো এলাকার আরো কিছু শহর এ ভয়ানক দূষণে আক্রান্ত। কিন্তু এ থেকে উদ্ধার পাওয়ার শটকার্ট কোনো রাস্তা নেই বলে জানিয়েছেন পরিবেশবিদরা। কারণ কয়লা প্রসেসিং প্ল্যান্টগুলো থেকেই এ দূষণ ছড়াচ্ছে। আর রাশিয়ার এ অঞ্চল থেকেই দেশের ব্যবহারযোগ্য কয়লার ৬০ শতাংশ আহরিত হয়। ফলে কোনো ব্যবস্থা নেয়া মোটামুটি একটা কঠিন ব্যাপার।

অথচ এ দূষণের কারণেই এ অঞ্চলের মানুষের আয়ুসীমা কমছে। বেশ কিছু সমীক্ষায় এমন তথ্য জানা গেছে।

প্রোকোপ্যেভস্ক কোল প্ল্যান্টের ডিরেক্টর আনাটোলি ভোলকভ জানান, কয়লা তুলতে গিয়ে খনির বাইরেও কয়লার গুড়া উড়ছে। কিন্তু এই ওড়া বন্ধ করতে তারা অপারগ। ওদিকে ক্রমেই বেড়ে চলেছে দূষণ। কালো বরফ তারই বিপদ সংকেত।

কুজবাও অঞ্চলের প্রোকোপ্যেভস্ক, কিসেলইওভস্ক ও লেনিস্ক-কুজনেটস্কিন -এ তিনটি শহরেই কালো তুষারপাতের ঘটনা ঘটে। শহরগুলো সাইবেরিয়ার পশ্চিম অঞ্চলে অবস্থিত। এসব এলাকায় ২৫ লাখ লোক বসবাস করে। এ এলাকায় রাশিয়ার অর্ধেকের বেশি কয়লাখনি অবস্থিত, যা ১০ হাজার বর্গমাইল এলাকাজুড়ে বিস্তৃত। কয়লাখনি থেকে উড়ে আসা গুড়াগুলো বাতাসকে উত্তপ্ত করে তোলে। এরপর এগুলো তুষারের সাথে মিশে কালো তুষার তৈরি করে। নবেম্বর থেকে মার্চের মাঝামাঝি সময়ে সেখানকার তাপমাত্রা মাইনাস ২৩ ডিগ্রি ফারেনহাইটে নেমে আসে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ