ঢাকা, বৃহস্পতিবার 21 February 2019, ৯ ফাল্গুন ১৪২৫, ১৫ জমাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

সৌদি আরবকে ইইউ কালো তালিকাভুক্ত করায় নাগরিক সমাজের উদ্বেগ

স্টাফ রিপোর্টার: জাগো নারী ফাউন্ডেশন ও সিএলএনবি’র মতবিনিময় সভায় সৌদি আরবকে ইইউ’র কালো তালিকা ভুক্ত করায় নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তারা বলেন, ইসলাম ধর্মীয় সর্বোচ্চ পবিত্র স্থান মক্কা নগরীর কা’বা শরীফ, মদীনা শরীফের মসজিদে নববী ও মোহাম্মদ (স) রওজা মুবারকরে জন্য সৌদি আরব বিখ্যাত। ইউরোপীয় ইউনিয়ন সন্ত্রাসে অর্থায়ন, মানি লন্ডারিং ও অর্থ পাচার রোধে ব্যর্থ হওয়ার অভিযোগে সৌদি আরবকে সম্প্রতি কালো তালিকা ভুক্ত করে। 
গতকাল বুধবার সকালে জাগো নারী ফাউন্ডেশন ও সিএলএনবি'র যৌথ উদ্যোগে রাজধানীর তোপখানা রোডস্থ নির্মল সেন মিলানয়তন ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন কর্তৃক সৌদি আরবকে কালো তালিকাভুক্ত করায় বাংলাদেশের কারণীয় (Views Exchange on Bangladesh's Imperatives Concerning EU's Black Listing of Saudi Arabia) শীর্ষক এক মত বিনিময় সভায় তারা এইসব কথা বলেন।
সিএলএনবি’র চেয়ারম্যান হারুনূর রশিদের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় সঞ্চালনা করেন নারী নেত্রী নূর-ঊন-নাহার মেরী। মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, বিশিষ্ট চিন্তাবিদ ও কলামিষ্ট বখতিয়ার চৌধুরী, সংযুক্ত শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি মোসাদেক হোসেন স্বপন, দুর্নীতি প্রতিরোধ আন্দোলনের সভাপতি হারুন অর রশিদ খান, সৎ সংঘ ফাউন্ডেশন সামসুল আলম জুলফিকার, সাবেক সরকারী কর্মকর্তা এম এ মালেক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাবেক সিনেট সদস্য নর্গীস জাহান বানু, শ্রমিক নেতা ডা: শামসুল আলম, বজলুর রহমান বাবলু, কামরুন নাহার, রেলওয়ে পোষ্য সোসাইটির সভাপতি মনিরুজ্জামান মনির, যুবনেতা হানিফ বাংলাদেশী, শ্রমিক নেতা খাদিজা রহমান, মাহবুবুর রশিদ।
মত বিনিময় সভায় আলোচকবৃন্দ বলেন, ইইউ’র এ সিদ্ধান্তে সৌদি আরব, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য প্রতিবাদ করেছে। সৌদি ভিসাধারী ও সৌদি আরবে কর্মরত বাংলাদেশিদের ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশে যাতায়াত, ব্যবসা ও ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করতে সমস্যার সম্মুখীন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। একই ভাবে ইউরোপীয় মুসলিমরা পবিত্র হজ্জ বা ওমরা করে দেশে ফেরার পথে তাদেরকে নিজ দেশের বিমানবন্দরে বিশেষ জিজ্ঞসাবাদের সম্মুখীন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
অনুষ্ঠানে নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিগণ সৌদি ভিসাধারী ইউরোপগামী বাংলাদেশিরা যাতে অনাকাঙ্খিত কোন সমস্যার সম্মুখীন না হন সে বিষয়ে সরকারকে ইইউ’র সাথে আলোচনা করে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা জরুরী বলে মত দেন। উল্লেখ্য, ইইউ সম্প্রতি সৌদি আরব সহ বিশ্বের ২৩ দেশ বা এলাকাকে কালো তালিকাভূক্ত করেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ