ঢাকা, সোমবার 25 February 2019, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৫, ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

আইআইইউসি গর্ব করার মত একটা অবস্থান তৈরি করেছে

আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি) এর ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর কে. এম. গোলাম মহিউদ্দীন বলেছেন, আইআইইউসি গর্ব করার মত একটা অবস্থান তৈরি করেছে। বাংলাদেশের ঔষধশিল্প এখন বিশ্বে নজির স্থাপন করেছে। বঙ্গবন্ধু সোনার বাংলা গড়তে হলে সৎ, দক্ষ ও দুর্নীতিমুক্ত জনশক্তি গড়ে তোলার উপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি। 

গতকাল সকালে কুমিরা ক্যাম্পাসে আইআইইউসি’র আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি) এর ফার্মেসি বিভাগের প্রাক্তন ছাত্রদের ১ম পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রফেসর কে. এম. গোলাম মহিউদ্দীন কথাগুলো বলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের প্রফেসর ড. আকতার সাঈদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বোর্ড অব ট্রাস্টীজের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. কাজী দ্বীন মোহাম্মদ। অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, আইআইইউসি’র বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মোঃ দেলাওয়ার হোসেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের চেয়াম্যান এস এম মোয়াজ্জেম হোসেন, ইউএসটিসি’র ফার্মেসি বিভাগের চেয়াম্যান আবদুল মোতালেব, এসিআই ফার্মসিউটিক্যালস এর জিএম আলতাফ হোসাইন, গ্লোব ফার্মার প্রোডাকশন ম্যানেজার খাইরুল মামুন, ইনসেপ্টা ফার্মসিউটিক্যালস এর সাপ্লাই চেইন এসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার সাবিনা ইয়াসমিন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ফার্মেসি বিভাগের চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমান মামুন। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি’র ভিসি প্রফেসর কে. এম. গোলাম মহিউদ্দীন বলেন, দুই দশক আগেও এটি একটি ক্ষুদ্র কলেবরের বিশ্ববিদ্যালয় ছিল কিন্তু এখন এটিকে সত্যিকার অর্থে একটি বড় বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে গড়ে তুলতে আমরা সক্ষমতা অর্জন করেছি। আমাদের জন্য আজকের এই দিনটি একটি ব্যতিক্রমধর্মী দিবস হিসাবে চিহ্নিত। কারণ আজ আমরা আমাদের এ্যাম্বেসেডরদের নিইে এই উৎসব ও মহাসম্মিলন করছি। আর এ মহাসম্মিলনে উপস্থিত হয়ে আমাদেরকে বিশেষভাবে আনন্দিত করেছেন আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে পাশ করা গ্রাজুয়েটগণ, যারা বর্তমানে দেশের ভেতরে ও বাইরে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অবস্থান, পদমর্যাদা ও পেশায় নিয়োজিত আছেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি’র বোর্ড অব ট্রাস্টীজের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. কাজী দ্বীন মোহাম্মদবলেন সেদিন বেশি দূরে নয় যেদিন দক্ষিণ এশিয়ার সর্বশ্রেষ্ঠ উচ্চশিক্ষা কেন্দ্র হিসাবে আইআইইউসি’র অবস্থান নিশ্চিত হবে। আইআইইউসি’র পাশকৃত ছাত্র-ছাত্রীরা তাদের চিন্তা-চেতনায় ও কর্মক্ষেত্রে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের মিশন, ভিশন, অবজেকটিভ সমুন্নত রাখবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ