ঢাকা, মঙ্গলবার 26 February 2019, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৫, ২০ জমাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

বিমান ছিনতাইয়ে চেষ্টাকারী যুবকের পরিচয় সনাক্ত

স্টাফ রিপোর্টার : চট্রগ্রামে বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টাকালে কমান্ডো অভিযানে নিহত যুবকের পরিচয় পাওয়া গেছে। তার আসল নাম পলাশ আহমেদ। নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের দুধঘাটা এলাকার পিয়ার জাহান সর্দারের ছেলে সে। পিয়ার জাহান সরদারের এক ছেলে দুই মেয়ে। তবে পলাশ ছোটকাল থেকেই বখাটে বলে জানা গেছে।
সোনারগাও থানায় বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টাকারীর ছবি রোববার রাতে চট্রগাম থেকে পুলিশ পাঠানোর পরে সোনারগাও থানা পুলিশ পলাশের বাড়িতে গিয়ে তার পরিচয় নিশ্চিত হয়।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পলাশদের বাড়িতে ১১টি ঘর। পলাশদের পাকা বিল্ডিং। ছেলের মৃত্যুতে  মা রীনা বেগম আহাজারি করছেন। ছেলের শোকে কাতর বাবাও। আশপাশের শত শত মানুষ জড়ো হয় বাড়িতে।
পলাশের বাবা পিয়ার জাহান বলেন, ১৯৯০ সালে কাজের উদ্দেশে তিনি নিজে ইরাক চলে যান। সেখানে চার বছর থাকার পর দেশে ফিরে আসেন। পরে তিনি আবার সৌদিআরব চলে যান। ২০১২ সালে তিনি আবার দেশে ফেরেন। এর মধ্যে ছেলে পলাশ স্থানীয় তাহেরপুর ইসলামিয়া আলিম মাদরাসা থেকে ২০১২ সালে দাখিল পরীক্ষা দিয়ে পাস করে। দাখিল পাস করে সে সোনাগাঁও ডিগ্রি কলেজে ভর্তি হয়। সেখানে পড়া অবস্থায় সে ঢাকায় চলে যায়। তারপর থেকে তার আচরণে পরিবর্তন দেখা দেয়।
তিনি জানান, পলাশের প্রথম স্ত্রীর নাম মেঘলা। তার বাড়ি বগুড়ার পাইপাড়া। সে ঘরে অয়ন নামে তার ২ বছরের পুত্রসন্তান রয়েছে। তবে মেঘলা তাকে ডির্ভোস দিয়ে বাবার বাড়িতে চলে গেছে।
পলাশের ২য় স্ত্রীর নাম শিমলা। তিনি নায়িকা এবং মডেল বলে জানান পিয়ার জাহান। শিমলাকে নিয়ে পলাশ গত বছরের এপ্রিলে সোনারগায়ে তার নিজ বাড়িতে আসে এবং শিমলা তার স্ত্রী বলে পরিচয় করে  দেয় পরিবারের সাথে।
তিনি বলেন, এক পর্যায়ে জানা যায়, পলাশ নাকি ঢাকায় চলচ্চিত্রে কাজ করার চেষ্টা করছে। তখন বাড়ির সঙ্গে তার যোগাযোগ ছিল না। মাঝে মাঝে বাড়িতে আসলেও এলাকার মানুষের সঙ্গে মিশতো না, কথা বলতো না।
তিনি বলেন, '২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারির দিকে শিমলা নামে এক মেয়েকে রাতের বেলা বাড়িতে নিয়ে আসে পলাশ। মেয়েটিকে চিত্রনায়িকা ও তার প্রেমিকা বলে আমাদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয়। দুই মাস পর আবার শিমলাকে বাড়িতে নিয়ে এসে বিবাহিত স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দেয়। বিয়ের কথা শিমলাও আমাদের কাছে স্বীকার করে। ওই রাতেই তারা আবার ঢাকায় চলে যায়। আমরা শিমলাকে বোঝানোর চেষ্টা করেছি, তাকে বলেছি আমার ছেলেকে যেন ভালো পথে ফিরিয়ে আনে। ছোটবেলা থেকেই ছেলেটি অবাধ্য ছিল। পড়াশোনা ছেড়ে দিয়ে প্রবাস থেকে আমার পাঠানো টাকা সে নানা পথে খরচ করেছে।'
তিনি জানান, সর্বশেষ ২০-২৫ দিন আগে পলাশ বাড়িতে আসে। বাড়িতে আসার পর তার আচরণে বিরাট পরিবর্তন দেখা দেয়। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়া শুরু করে, মসজিদে গিয়ে আজানও দিয়েছে। সর্বশেষ শুক্রবার বাড়ি থেকে যাওয়ার আগে বলেছে, সে কাজের সন্ধানে দুবাই যাবে।
স্থানীয় সূত্র জানায়, প্রকৃত নাম পলাশ হলেও বিভিন্ন সময় বিভিন্ন নাম ব্যবহার করে এলাকায় নায়ক নায়িকাদের নিয়ে বাড়ি আসত। এতে মারাত্মকভাবে পরিবারে লোকজন পলাশ আহমেদের উপর রাগাণ্বিত ছিলো । গত শনিবার রাতে পলাশ নিজের মোবাইল ফেলে বাড়ির সিমকার্ড ও মোবাইল নিয়ে দুবাই চলে যাচ্ছে বলে বেড়িয়ে যায়। ২০১৮ সালের এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি সময়ে সোনারগায়ের পিরোজপুর দুধঘাটা এলাকায় পলাশ আহম্মেদের বাড়িতে আসে নায়িকা শিমলা। ঐ সময় তার সাথে ছিলেন পলাশ আহমেদ। নায়িকা শিমলা পলাশের বাবা পিয়ার জাহানকে জানান সে পলাশকে  বিয়ে করেছে। পলাশও তার স্ত্রী হিসেবে শিমলাকে পরিচয় করে দেয় তার পরিবারের কাছে।
বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টাকারী মো. পলাশ আহমেদের বাবা পিয়ার জাহান জানান, '২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারির দিকে শিমলা নামে এক মেয়েকে রাতের বেলা বাড়িতে নিয়ে আসে পলাশ। মেয়েটিকে চিত্রনায়িকা ও তার প্রেমিকা বলে আমাদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয়। দুই মাস পর আবার শিমলাকে বাড়িতে নিয়ে এসে বিবাহিত স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দেয়। বিয়ের কথা শিমলাও আমাদের কাছে স্বীকার করে। ওই রাতেই তারা আবার ঢাকায় চলে যায়। এ সময় তিনি বলেন, আমরা শিমলাকে বোঝানোর চেষ্টা করেছি, তাকে বলেছি– আমার ছেলেকে যেন ভালো পথে ফিরিয়ে আনে। ছোটবেলা থেকেই ছেলেটি অবাধ্য ছিল। পড়াশোনা ছেড়ে দিয়ে প্রবাস থেকে আমার পাঠানো টাকা সে নানা পথে খরচ করেছে।'
এদিকে জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক জনপ্রিয় ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানের  সাথেও ঘনিষ্ঠতা ছিল বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টাকারী পলাশের সাথে। পলাশের সাথে  সাকিব আল হাসানের ছবিতে সেটাই দেখা যাচ্ছে। বিমান  ছিনতাইয়ের পলাশ তার ফেসবুকে সাকিবের সাথে একটি ছবি গত বছরের ৩১আগস্ট  আপলোড করেছে ।
এ ছবিতে পলাশ সাকিব আল হাসান ছাড়া শিমলা  রয়েছে। ফেসবুকে আপলোড করা ছবিতে পলাশ লিখেছে বউ(শিমলা) আমি আর সালা বাবু সাকিব। ফেসবুকে পলাশ মাহিবি জাহান নামে আইডি ব্যবহার করতো।
এদিকে বিমান ‘ছিনতাইয়ের চেষ্টাকারী’ পলাশের (২৩) লাশ বাড়িতে নিতে অপারগতা প্রকাশ করেছেন বাবা পিয়ার জাহান । সোমবার  সোনারগায়ের পিরোজপুর দুধঘাটা এলাকায় নিজ বাড়িতে তিনি বলেন, ‘পলাশ আমাদের অবাধ্য সন্তান। সে যে ঘটনা ঘটিয়েছে তা খুবই দুঃখজনক এবং আমাদের জন্য মানহানিকর। অপকর্মের  জন্য পলাশের লাশ আমরা বাড়িতে আনতে চাই না।
 তিনি বলেন, আমরা পলাশের লাশ আনতে যাবো না। তবে প্রশাসন যদি লাশ পৌঁছে দেয় সে ক্ষেত্রে দাফনের ব্যবস্থা করবো একথা বলে তিনি ডুকরে কেঁদে উঠেন।
পিয়ার জাহান বলেন, ‘পলাশের লাশ আমি দেখতে চাই না। তবে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে চূড়ান্তÍসিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’ তিনি  বলেন, ‘পলাশের খবর শোনার পর থেকে তার মা শয্যাশায়ী। তিনি কারও সঙ্গে কোনও কথা বলতে পারছেন না।’
পিয়ার জাহান বলেন, ‘ছেলের অবাধ্যতা গুছিয়ে দিতে আল্লাহর কাছে নামাজের পর দোয়া করতাম। আল্লাহর কাছে অনেক চেয়েছি। তাকেও অনেক বুঝিয়েছি। তবে সে কথা শোনেনি।
পলাশ মাহমুদ সম্পর্কে এসপি হারুন অর রশিদ বলেন, চট্টগ্রাম বিমান বন্দর থেকে বিমান ছিনতাই চেষ্টার মূল হোতা পলাশ সম্পর্কে আমরা বিস্তারিত জানার চেষ্টা করেছি। আমরা খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি সে মাদ্রাসার ছাত্র ছিল। দাখিল পাশ করার পরেই পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হতে থাকে।
তার বাবা মায়ের কাছ থেকে জানা যায়, সে বিভিন্ন চলচ্চিত্র টিমের সাথে কাজ করতো বলে জানায় পলাশ। ঘটনার আগে গত শুক্রবার দুবাই যাওয়ার কথা বলে বাসা ছাড়ে সে। পরবর্তীতে পুলিশ ও গণমাধ্যম কর্মীরা ব্যাপারটি জানালে পরিবার তাদের ছেলের ব্যাপারে নিশ্চিত হন।
সম্মেলনে এসপি আরও জানান, পলাশের বিরুদ্ধে থানায় কোন মামলা নেই তবে জানতে পেরেছি অতীতে নারী ঘটিত একটি মামলা ছিল তার বিরুদ্ধে। এলাকার লোকজনের সাথে তেমন মিশতো না। এছাড়া বেশ কিছু বছর পূর্বে দুবাই লোক পাঠানোর কথা বলে প্রতারণা করার অভিযোগ দিয়েছে এলাকাবাসী।
পলাশের ব্যক্তিগত জীবন সম্পর্কে পুলিশ সুপার জানান, পলাশের পরিবার জানিয়েছে তাদের বাসায় দুইবার অভিনেত্রী শিমলা এসেছিলো। এবং তারা বিবাহিত বলেও দাবী করা হয়। এ ব্যাতিত তার অন্য কোন বিষয় জানতো না তার পরিবার। মূলত পরিবারের সাথে বিচ্ছিন্ন থাকতো সব সময়।
সোনারগাঁয়ের সাধারণ ছেলে
সোনারগাঁ সংবাদদাতা রুহুল আমিন জানান, চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উড়োজাহাজ ছিনতাইয়ের চেষ্টাকালে কমান্ডো অভিযানে নিহত আহম্মাদ পলাশ জাহান শনাক্ত করেছেন তাঁর বাবা পেয়ার জাহান সরদার। পলাশের বাড়ি নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের দুধঘাটা গ্রামে। পলাশ সাধারণ ছেলে।
সরেজমিনে জানাযায়, দুধঘাটা গ্রামের পলাশদের একতলা পাকা বাড়িটিতে অসংখ্য মানুষের ভীরের মধ্যে কথা হয় পিয়ার জাহান সরদারের সঙ্গে। পরিবারের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন পলাশের কর্মকান্ড নিয়ে কথা বলেন তার বাবা ও এলাকার লোকজন। পলাশের মা রেণু বেগম গত রবিবার হাসপাতাল থেকে বাড়ি এসেছেন। সে স্ট্রোক করেছিল। বাড়ি এসে ছেলের কথা শোনার পর বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন মা।
এলাকার লোকজন জানান, আহম্মদ পলাশ ভালো ছেলে ছিল। তার কোন অভিযোগ কখনও কেউ শেনেন নাই। তাকে এলাকার অনেকেই চিনেন না। পলাশের বাবা পিয়ার জাহান সরদার দীর্ঘদিন সৌদি আরবে ছিলেন। এখন দেশে একটি মুদি দোকানি। তাঁর স্ত্রী রেনু বেগম। পিয়ার জাহান-রেনু দম্পতির চার সন্তানের মধ্যে পলাশ দ্বিতীয়। একটাই ছেলে তাঁদের। বাকি তিনজন মেয়ে। পলাশ মা বাবার খুভ আদরের সন্তান বলেই ছেলের সব আবধার মানতে গিয়ে ছেলে তাদের হাতছাড়া হয়ে গেছে।
পিয়ার জাহান জানান, স্থানীয় তাহেরপুর সিনিয়র মাদ্রাসা থেকে ২০১১ সালে পলাশ দাখিল পাস করেন। পরে সোনারগাঁ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তি হন। প্রথম বর্ষেও পর পড়াশোনা বন্ধ করে দেন। এরপর বাড়ি ছেড়ে ঢাকায় চলে যান। ঢাকায় কী করতেন, কোথায় থাকতেন পলাশ, সে সম্পর্কে তাঁরা কিছু জানতেন না। বাড়িতে প্রায় আসতেনই না। ঢাকায় গান এবং অভিনয় করতেন বলে স্থানীয় লোকজনের কাছে শুনেছেন তিনি। “কবর’’ নামের একটি নাটক করেছে শুনেছি। সবশেষ গতশুক্রবার সে দুবাই চলে যাবার কথা বলে ৫০০ দিরহাম করতে সে আমার কাছ থেকে বার হাজার টাকা নিয়েছে। এর আগে গত কোরবানি ঈদের এক মাস আগে এবং এরপর এক সপ্তাহ আগে দুই দফায় পলাশ বাড়ি আসেন। তখন তাঁর সঙ্গে চলচ্চিত্র নায়িকা সিমলা ছিলেন বলে দাবি করেন পলাশের বাবা। তিনি বলেন, পলাশ তাঁকে জানান, সিমলাকে তিনি বিয়ে করেছেন। তবে সিমলা ও পলাশের বয়সের বিরাট পার্থক্য থাকাতে এই বিয়েতে আপত্তি করেন তাঁরা। এ কারণে ছেলে আমার রাগ করে ওই দিনই সিমলা ও পলাশ ঢাকায় চলে যান। এর পর থেকে সে কী করত, কোথায় থাকত তা জানতাম না। পলাশের জাতীয় পরিচয়পত্র ছিল না বলে জানান পলাশের বাবা। নাম আহম্মাদ পলাশ হলেও ফেসবুকে মাহি বি জাহান নামে অ্যাকাউন্ট আছে তাঁর। ওই অ্যাকাউন্টে দেওয়া ছবিগুলোও সিমলার সাথে পলাশের গভীর সম্পের্কের বিষয়টি শনাক্ত করেন তার বাবা।
নিহত পলাশের লাশ এখন ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মর্গে আছে। তবে ছেলের লাশ চান না বাবা। বললেন, যে মরেও আমাকে কলংকিত করেছে, তার লাশ আমি চাই না।
সোনারগাঁ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আজাদ বলেছেন, রাত দুইটার দিকে ঢাকা থেকে পলাশের ছবি পাঠানো হয় থানায়। মা–বাবাকে দেখিয়ে তাঁরা নিশ্চিত হন যে এটিই পলাশ। আবুল কালাম আজাদ বলেন, পলাশের নামে স্থানীয় থানায় কোনো মামলা নেই।
বিমান ছিনতাই চেষ্ঠার ঘটনায়
নিহতের লাশ হিমঘরে
চট্টগ্রাম ব্যুরো: বাংলাদেশ বিমানের বোয়িং ময়ুরপংখী ছিনতাই চেষ্ঠার ঘটনা চট্টগ্রামে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। গতকাল সোমবার বিষয়টি ছিল চট্টগ্রামের টক অব দ্যা টাউন। কমান্ডো অভিযানে নিহত যুবক কীভাবে এত নিরাপওা বেস্টনী ভেদ করে বিমানে উঠে বিমান ছিনতাইয়ের মত ঘটনা ঘটানোর চেষ্ঠা করলো তাতে নগরবাসী বিস্মিত হয়েছে। তারা শাহজালাল আন্তজার্তিক বিমানবন্দরের নিরাপওা ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তুলছে।
এদিকে পুলিশ সূত্র জানিয়েছে, বিমান ছিনতাই চেষ্ঠার ঘটনায় এখনও মামলা হয়নি। সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে মামলা দায়ের করার কথা রয়েছে। অজ্ঞাতপরিচয় হিসেবে যুবকের লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠায় পতেঙ্গা থানার পুলিশ। কমান্ডো অভিযানে নিহত যুবক পলাশের সুরতহাল ও ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। লাশটি এখন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের হিমঘরে রাখা হয়েছে। অভিভাবক বা স্বজনদের কেউ গিয়ে লাশ শনাক্ত করলে যাচাইবাছাই শেষে সেটা হস্তান্তর করা হবে।
চট্টগ্রাম নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (কর্ণফুলী জোন) জাহিদুল ইসলাম গনমাধ্যমকে বলেন, ‘অভিযানের পর গত রোববার রাতে আমাদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে। আমরা প্রথমে সুরতহাল সম্পন্ন করি। 
এদিকে গত রোববার চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আটকেপড়া ১৪৭ জন দুবাইগামী যাএীরা গতকাল সোমবার  বেলা দেড়টার দিকে দুবাইয়ের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন। বাংলাদেশ বিমানের অন্য একটি বিমানে তাদের দুবাই পাঠানো হয়েছে বলে বিমান সূএ জানিয়েছে। চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের ব্যবস্থাপক সরওয়ার-ই-আলম  জানান, সোমবার বেলা দেড়টায় আটকে থাকা যাত্রীদের নিয়ে বিমানের একটি ফ্লাইট রওনা হয়।
বিমানবন্দরে বাংলাদেশ বিমানের স্টেশন ম্যানেজার মাহফুজুল আলম জানান, আটকা পড়া ১৪৭ জন যাত্রীকে রোববার বিভিন্ন হোটেলে রাখা হয়। সোমবার দুপুরে তারা অন্য একটি ফ্লাইটে রওনা হয়ে যান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ