ঢাকা, মঙ্গলবার 18 June 2019, ৪ আষাঢ় ১৪২৬, ১৪ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

‌জাহালমকে ৩ বছর কারাগারে রাখার ঘটনায় দুদকের দায় নেই

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা একটি মামলায় নিরাপরাধ জামালপুরের জাহালম তিন বছর কারাভোগ করেছেন। ৪ ফেব্রুয়ারি গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার থেকে অবশেষে মুক্তি লাভ করেছেন জাহালম। কিন্তু দুদক বলেছে এ ঘটনায় তাদের দায় নেই। 

আজ মঙ্গলবার সকালে হাইকোর্টে জমা দেয়া এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদনে  দুদক এ দাবী করেছে। 

প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ ব্যাংক ও সোনালী ব্যাংকের নথির ওপর ভিত্তি করেই ঋণ দেয়া হয়। তদন্তকারী কর্মকর্তাদের এ ঘটনায় দায় নেই বলেও উল্লেখ করা হয় এতে। দুদকের আইনজীবী বলেন, কে দায়ী তা শুনানির পর ঠিক করবেন আদালত। একই সাথে বাংলাদেশ ব্যাংকসহ চারটি ব্যাংককে পক্ষভুক্ত করতে আবেদন করেছে দুদক।

গত ২৮ জানুয়ারি একটি জাতীয় দৈনিকে ‘৩৩ মামলায় ‘ভুল’ আসামি জেলে: ‘স্যার, আমি জাহালম, সালেক না’ শিরোনাম একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এতে সোনালী ব্যাংকের প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি টাকা জালিয়াতির ৩৩টি মামলায় নিরপরাধ জাহালমের জেলখাটার প্রসঙ্গ তোলা হয়। ওই প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, আবু সালেকের (মূল অপরাধী) বিরুদ্ধে সোনালী ব্যাংকের সাড়ে ১৮ কোটি টাকা জালিয়াতির ৩৩টি মামলা হয়েছে। কিন্তু আবু সালেকের বদলে জেল খাটছেন এবং আদালতে হাজিরা দিয়ে আসছিলেন জাহালম। তিনি পেশায় পাটকল শ্রমিক।

এরপর ওই প্রতিবেদনটি গত সোমবার আদালতের নজরে আনেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট অমিত দাসগুপ্ত।এর পরিপ্রেক্ষিতে দুদকের মহাপরিচালক (আইন) মইনুল ইসলাম, দুদকের মামলার বাদী পরিচালক আব্দুল্লাহ আল জাহিদ, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়রে সচিবের একজন প্রতিনিধি ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিবের মনোনীত প্রতিনিধিকে গতকাল রবিবার তলব করেন আদালত। সকালে ওই চারজন হাইকোর্টে হাজির হন।

শুনানিতে আদালত জাহালমের কারাভোগের ঘটনাকে আরেকটি ‘জজ মিয়া নাটক’ উল্লেখ করেন। একই সঙ্গে দুদককে অবশ্যই স্বচ্ছতার সঙ্গে করার পরামর্শ দেন। পাশাপাশি দুদকের মামলা থেকে নিরাপরাধ জাহালমকে অব্যাহতি দিয়ে ওইদিনই তাকে মুক্তির নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ