ঢাকা, শুক্রবার 15 March 2019, ১ চৈত্র ১৪২৫, ৭ রজব ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

চলনবিলসহ নদ-নদীতে মাছ নেই জেলে পরিবারের দুর্দিন চলছে

 

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) সংবাদদাতা : চলনবিলে নদ-নদীতে মাছ নেই জেলে পরিবারের দুর্দিন চলছে। পাবনা, নাটোর সিরাজগঞ্জের প্রধান প্রধান নদ নদীতে পানি শূন্য হয়ে চর জেগে উঠেছে। কোনো কোনো নদীতে কৃষকেরা ইরি-বোরো আবাদ করছে। ছোট ছোট জলাশয় হাওর বিলে মাটি ভরাট করে ফসলি জমিতে পরিণত করেছে, কৃষি জমিতে মাটি খনন করে আবাদী জমি বিনষ্টের পাশাপাশি নষ্ট করছে হাওর বিল। কিছু কিছু পুকুর ডোবা খাল বিলে পানি থাকলেও মেশিন লাগিয়ে পানি সেচে এবং বিষ দিয়ে দেশীয় মাছের বংশ ধ্বংস করছে। সিরাজগঞ্জের প্রধান নদী যমুনা, করতোয়া, বড়াল, হুরাসাগর নদীর নাব্যতা সংকট বাড়ছে। দীর্ঘদিন ধরে নদী খনন ও ড্রেজিং না করার কারণে করতোয়া ও হুরাসাগর নদী এখন নালায় এবং মরায় পরিণত হয়েছে। যার কারণে উপজেলার কমপক্ষে দেড় হাজার জেলে পরিবার বেকার হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। তাদের নৌকা এখন নদীঘাটের বালু চরে আটকা পড়ে রয়েছে। একারণেই বাপ-দাদার পেশা ছেড়ে অনেকেই ভিন্ন পেশায় জড়িয়ে পড়েছে। উপজেলা সদরের পাশ দিয়ে করতোয়া নদী প্রবাহিত, হাবিবুল্লাহনগর, নরিনা, গাড়াদহ ইউনিয়নের উপর দিয়ে প্রবাহিত করতোয়া নদীর সিংহভাগ এখন নালায় পরিণত হয়েছে। এ ছাড়া কৈজুরী, গালা, জালালপুর ইউনিয়নের পাশ দিয়ে যমুনা নদী প্রবাহমান। স্বাধীনতার পর থেকে আজ পর্যন্ত যমুনা নদীর কোন অংশেও ড্রেজিং ও খনন করা হয়নি। একারণেই উজান থেকে বয়ে আসা পলি জমি দীর্ঘ ৪২ বছরে গভীর নদীগর্ভ ভরে উঠেছে। যমুনা ও করতোয়ার বুক জুড়ে এখন হাজার হাজার একর আবাদী জমি। জমি জিরাত খুঁইয়ে যাওয়া পরিবারগুলো তাদের জমি ফিরে পেয়েছে। অপরদিকে নদীর নাব্যতা সংকটের কারণে বেকার হয়ে পড়েছে দেড় হাজার জেলে। তারা এখন ওই পেশা ছেড়ে দিয়ে বিভিন্ন এনজিও সংস্থা ও দাদন ব্যবসায়ীদের নিকট চরা সুদে ঋণ নিয়ে বাড়িতে খোরাকি দিয়ে পাড়ি জমিয়েছে ভিন্ন জেলায়। অনেকে রিক্সা-ভ্যান আবার কেউ কেউ রাজমিন্ত্রী, কাঠমিস্ত্রীর জোগালী হিসেবে কাজ করছেন। নদীতে নৌকা চালিয়ে এবং মাছ ধরে যে রোজগার করতো তারা ভিন্ন জেলায় হাড়কাপানো পরিশ্রম করে সে রোজগাড় করতে পারছেন না তারা। যমুনা পাড়ের জেলে জেলে জয়ন্ত কুমার জানান, দীর্ঘদিন মাছ ধরা এবং নৌ-শ্রমিকের কাজ করে এসে আজ হঠাৎ করে রিক্সা-ভ্যান চালাতে পারছি না।

 তারপরও সংসার চালানোর দায়ে এ সব পেশায় পরিশ্রম করতে হচ্ছে। হরিনাথপুরের জেলে অজয় কুমার জানান, নদীতে জল নেই তাই আমরা অলস সময় কাটাচ্ছি। সংসার চলছেনা ঋণগ্রস্থ্য হয়ে পড়ছি। তাড়াশের মাগুড়া বিনোদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আতিকুল ইসলাম জানান, নদীগুলোর নাব্যতা ফিরে আনতে হলে নদী খনন ও ড্রেজিং করা একান্ত প্রয়োজন। এতে করে পরিবেশের ভারসাম্য ফিরে আসবে। পাশা পাশি নৌ-শ্রমিক ও জেলে সম্প্রদায় নতুন করে আবার তাদের হারানো পেশা ফিরে পাবে। নাব্যত্য সংকটের কারণে আজ আমার ইউনিয়নের কমপক্ষে ৩০০ নৌ-শ্রমিক ও জেলে সম্প্রদায় বেকার হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ পালিত : “প্রাথমিক শিক্ষার দীপ্তি, উন্নয়ন জীবনের ভিত্তি” এই প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে সিরাজগঞ্জের তাড়াশে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ উদযাপন উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার সকালে উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে তাড়াশ পৌর শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। 

পরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইফ্ফাত জাহানের সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হক। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মনোয়ারা পারভিন মিনি, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ফকির জাকির হোসেন, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান, সমবায় কর্মকর্তা জুলফিকার আলী প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ